নিরামিষ রান্নার অন্যরকম ৫ টি রেসিপি - জিভে জল আনার মত

কোনো বাড়িতে শনিবার তো কোথাও মঙ্গলবার , সপ্তাহের এক না এক দিন সম্পূর্ণ নিরামিষ রান্নার চল  প্রায় সব বাঙালি বাড়িতেই আছে । সমস্যা হল নিরামিষ পদের । সেই এক মুগের ডাল , আলুভাজা খেতে কার ভালোলাগে ? এই কারনে এখানে দেওয়া হল আনকমন ৬ টি নিরামিষ রেসিপি । 


১। শাহী মোতিমহল ডাল 

উপকরণঃ  কলাইয়ের ডাল ১ কাপ , রাজমা ১/২ কাপ , ছোলার ডাল ১/২ কাপ , কুচানো পেঁয়াজ ২টি , মিহি করে কুচানো আদা দু'টুকরো , কুচানো রসুন ১০ কোয়া , কাঁচা লঙ্কা ৪ টি , শুকনো লঙ্কার গুড়ো ১.৫ চামচ , খোসা ছাড়ানো টম্যাটো ৪ টি , হলুদ গুড়ো ১/২ চামচ , হিং সামান্য , জিরে ভাজা গুড়ো ২ চামচ , নুন আন্দাজ মত , মিহি করে কুচানো ধনে পাতা ১ টেবিল চামচ , টক দই ১ কাপ , ক্রীম ২ টেবিল চামচ , মাখন ২ টেবিল চামচ , ভালো ঘি ৩ টেবিল চামচ । 
প্রস্তুত প্রনালীঃ প্রথমেই বলে রাখি - ফুটন্ত জ্বলে টম্যাটো ৪ টে ঢাকা দিয়ে কয়েক মিনিট রেখে দিয়ে তারপর ঠান্ডা জল দিলেই খোসা ফেটে যাবে । এই খোসা সাবধানে ছাড়িয়ে নিতে হবে তাহলেই খোসা ছাড়ানো টম্যাটো পাওয়া যাবে । এরপর - ডাল আলাদা আলাদা ভাবে ধুয়ে ভিজিয়ে রাখতে হবে । প্রথমে রাজমা সেদ্ধ করতে হবে তারপর রাজমার সঙ্গে ছোলার ডাল ও কলাইয়ের ডাল মেশাতে হবে । কুচানো পেঁয়াজ , রসুন , আদা , হলুদ গুঁড়ো ও নুন দিয়ে ডাল সেদ্ধ করতে হবে । সেদ্ধ হলে দই , ক্রীম ও মাখন মিশিয়ে আরও কিছুক্ষন ফোটাতে হবে । 
ঘি গরম করে হিঙের গুঁড়ো ভাজতে হবে । খোসা ছাড়ানো মিহি করে কুচানো টম্যাটো , লঙ্কার গুঁড়ো , কুচানো ধনেপাতা ঘিয়ের মধ্যে ছেড়ে দিতে হবে । এরপর সবকিছু ৫ মিনিট নাড়াচাড়া করে ডালে ঢেলে দিতে হবে । রুটি ও পরোটার সাথে খেতে ভীষণ ভালো লাগে । গরম গরম খেতে হবে । 

২। খাট্টা ছোলার ডাল 

উপকরণঃ ছোলার ডাল ২৫০ গ্রাম, ঘি ২ টেবিল চামচ, কুচানো পেঁয়াজ ১ টি , তেঁতুল জল ১ কাপ , মিহি করে কুচানো রসুন ২ কোয়া , পেষা ছোট এলাচ ৪ টি , পেষা লবঙ্গ ২ টি , পেষা দালচিনি ১টি কাঠি , লঙ্কার গুড়ো ১ চা চামচ , কুচানো ধনে পাতা ১ টেবিল চামচ , নুন আন্দাজমত । 
প্রস্তুত প্রনালীঃ ডাল এক রাত জলে ভিজিয়ে রাখতে হবে । সকালে জল ঝরিয়ে নিতে হবে । এরপর আন্দাজমত জল দিয়ে ডাল সেদ্ধ করে নিতে হবে । ঘি গরম করে কুচানো পেঁয়াজ ও রসুন বাদামি করে ভেজে নিতে হবে । 
তেঁতুল জলে সব গুঁড়ো মশলা একসাথে দিয়ে দিতে হবে । ফুটে উঠলে সেদ্ধ ডালে এই মশলাগুলো দিয়ে ঢিমে আঁচে ১৫ মিনিট বসিয়ে রাখতে হবে । টক টক এই ডাল ভাতের সাথেই বেশী ভালো লাগে । 

৩। ভেজিটেবিল ফেভারিট 

উপকরণঃ  গাজর ১০০ গ্রাম , বীন ১০০ গ্রাম, ছাড়ানো মটরশুঁটি ১ কাপ, ফুলকপি ১ টি , ময়দা  আধ কাপ, মাখন ১০০ গ্রাম, গোলমরিচ গুঁড়ো ১ চা চামচ, কোরানো চীজ ২ টেবিল চামচ, ঘি ২ টেবিল চামচ, দুধ ১ কাপ, নুন আন্দাজ মতো, সোডা (খাওয়ার) সামান্য।
প্রস্তুত প্রণালীঃ  গাজর ছোট ছোট টুকরো করে কেটে  নিতে হবে। বীণ ও ছোট ছোট টুকরো করে কেটে নিতে হবে।
ফুলকপির ছোট ছোট ফুল ভেঙে নিয়ে একটু নুন জলে ডুবিয়ে রাখতে হবে।
সমস্ত তরকারি ও মটরশুঁটি একসঙ্গে মিশিয়ে একটু নুন ও সোডা দেওয়া জলে   সেদ্ধ করে জল ঝরিয়ে নিতে হবে। দুধে নুন, গোলমরিচ ও ময়দা ফেটিয়ে নিতে হবে। ঘি গরম করে তাতে ময়দা গোলা দুধ ঢেলে তাড়াতাড়ি নাড়তে হবে যাতে পুড়ে বা ডেলা পাকিয়ে না যায়। ঘন হয়ে এলে সেদ্ধ তরকারি ঢেলে দিতে হবে ও সাবধানে নাড়তে হবে যাতে তরকারির টুকরো ভেঙে না যায়।  ওপর থেকে প্রথমে মাখন ছড়িয়ে তারপর কোরানো চীজ ছড়িয়ে দিতে হবে। খুব ঢিমে আঁচে এক মিনিট বসিয়ে নামিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন।

৪। টমাটো দেওয়া ফুলকপি    

উপকরনঃ  ফুলকপি ভাঙা ছোট ছোট ফুল ২ কাপ,  টমাটো (কুচোনো) ৪টি, আজিনোমোটো আট ভাগের এক ভাগ চা-চামচ, সোয়া সস ১ টেবিল চামচ, নুন আন্দাজ মতো, ভাজবার জন্য বাদাম তেল।
গোলার উপকরনঃ  মযদা আধ কাপ, এরারুট আধ কাপ, সামান্য নুন, সামান্য বেকিং পাউডার, জল দেড় কাপ।
মাখাবার জন্য চাইঃ  সোয়া সস ১ টাবিল চামচ, গোলমরিচ আধ চা চামচ, থেঁত করা রসুন ৪ কোয়া, থেঁত করা আদা ১ চা চামচ, কুচোনো পেঁয়াজ সিকি কাপ, নুন আন্দাজ মতো।
সাজাবার জন্য চাই-- শাকসুদ্ধ চারটি পেঁয়াজ (কুচোনো)
প্রস্তুত প্রনালিঃ  মাখাবার উপকরণগুলো একসঙ্গে মিশিয়ে নিতে হবে। ফুলকপিতে এই মিশ্রণ  পনেরো মিনিট মাখিয়ে রাখতে হবে।ফুলকপি এই মিশ্রণ থেকে বার করে নিতে হবে এবং মিশ্রন টি রেখে দিতে হবে ।একটি পাত্রে ময়দা, বেকিং পাউডার, এরারুট ও নুন মিশিয়ে নিতে হবে ।ধীরে ধীরে জল মিশিয়ে একটা গোলা তিরি করে নিতে হবে । কড়াইয়ে তেল গরম করে নিতে হবে । একটি একটি করে ফুলকপির ফুল গোলায় ডুবিয়ে হাল্কা বাদামি করে ভেজে নিতে হবে । তেল ঝরিয়ে রাখতে হবে।
একটি পাত্রে ২ টেবিল চামচ তেল গরম করে তাতে কুচোনো টমাটো ছেড়ে দিয়ে কড়া আঁচে
 দু-মিনিট নাড়াচাড়া করতে হবে। যে মিশ্রণে ফুলকপি ডুবিয়ে রাখা হয়েছিল সেই মিশ্রণ, ১ টেবিল চামচ সোয়া সস, নুন, আজিনোমোটো ও ভাজা ফুলকপি মিশিয়ে দিতে হবে। ঢাকা না দিয়ে দু মিনিট আঁচে বসিয়ে রাখতে হবে। মাঝে মাঝে নেড়ে দিতে হবে। নামিয়ে একটি পাত্রে ঢেলে রেখে ওপর থেকে শাকসুদ্ধ পেঁয়াজ (কুচোনো) ছড়িয়ে দিতে হবে।

৫। দুধ দেওয়া বাঁধাকপি 

উপকরনঃ কুচোনো বাঁধাকপি এক কাপ, দুধ এক কাপ, মাখন দুই টেবিল চামচ, এরারুট এক টেবিল চামচ(সিকি চামচ জলে গুলে নিতে হবে), নুন গোলমরিচ আন্দাজ মতো দিতে হবে।
প্রস্তুত প্রনালিঃ মাখন গলিয়ে নিয়ে বাঁধাকপি ছিঁড়ে দিতে হবে। আল্প ভেজে নিয়ে দুধ নুন ও গোলমরিচ মিশিয়ে দিতে হবে। সমস্তটা ঘন হয়ে এলে  জলে গোলা এরারুট মিশিয়ে ক্রমাগত নাড়তে হবে।বাঁধাকপি সেদ্ধ হয়ে গেলে নামিয়ে একটা ডিশে ঢেলে চারপাশে ভাজা পাউরুটির টুকরো দিয়ে সাজিয়ে পরিবেশন করতে হবে।


রেসিপি গুলো ভালো লাগলে অবশ্যই শেয়ার করুন । সহজে শেয়ার করতে নীচের WHATSAPP আইকনে ক্লিক করে বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন । 

নিরামিষ রান্নার অন্যরকম ৫ টি রেসিপি - জিভে জল আনার মত নিরামিষ রান্নার অন্যরকম ৫ টি রেসিপি  - জিভে জল আনার মত Reviewed by Kona Dey Chakraborty on September 03, 2018 Rating: 5

No comments:

Powered by Blogger.