Featured Posts

[Travel][feat1]

লাহুল স্পিতি ভ্রমণ গাইড - হোটেলের ফোন নাম্বার সহ

August 07, 2020

লাহুল আর স্পিতি, এই দুটি উপত্যকা নিয়ে গড়ে উঠেছে নতুন জেলা, জেলা সদর কেলং (৪৫৯০ মি)। ভারত-তিব্বত সীমান্ত জুড়ে লাহুল-স্পিতি। এই জেলাকে ঘিরে রয়েছে উত্তরে লাদাখ, দক্ষিণে কিন্নর আর কুলু, পশ্চিমে চাম্বা। গ্রেট হিমালয়ান জাসকার আর পীরপাঞ্জাল পর্বতশ্রেণী ঘিরে রেখেছে লাহুল আর স্পিতি। রুক্ষ মরুভূমির মত এখানকার প্রকৃতি। বছরের ৭ মাস বরফে মােড়া, গাছপালা নেই। কনকনে ঠান্ডা, তবুও এর নিসর্গ প্রকৃতি, বৌদ্ধ মনাষ্ট্রি, লেক, পর্যটকদের মন কেড়ে নেয়। আগে এখানে যেতে অনুমতির প্রয়ােজন হতাে। এখন আর কোনও বাধানিষেধ নেই। লাহুল-স্পিতি ভ্রমণের কিছুটা বাঁধা পথের দূরত্ব। তবে যদি সেই দূরত্বকে অতিক্রম করা যায় তবে এক অজানা জগৎ তার সবটুকু সৌন্দর্য নিয়ে উদ্ভাসিত হয়ে উঠবে চোখের সামনে।

একই জেলার এই দুই উপত্যকার ঐতিহাসিক পটভূমিও দুরকমের। অতীতে লাহুল কখনও ছিল লাদাখ রাজাদের দখলে, কখনওবা ছিল কুলুর রাজাদের শাসনে। লাদাখ রাজাদের নিজেদের মধ্যে ঝগড়ার সুযােগ নিয়ে ১৮৪০-এ কুলুর মহারাজা রণজিৎ সিংহ দখল করে লাহুল। ১৮৪৬-এ ব্রিটিশ রাজত্বের অংশ হয়। সেসময় কাংড়া জেলার কুলু সাব-ডিভিসনের একটি অংশ ছিল লাহুল। অপরদিকে স্পিতিও ১৮৪৬-এ ব্রিটিশ রাজত্বের অংশ হয়, যা তখন ছিল লাদাখের অংশ। এক্ষেত্রে উল্লেখ্য, ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি কিন্তু সরাসরি নিজেদের আইন মেনে শাসন করেনি এই অঞ্চল। স্থানীয় রাজাদের মাধ্যমে শাসন করত এই অঞ্চল।

১৯৪১-এ লাহুল ও স্পিতি নিয়ে তৈরি হয় নতুন সাব-ডিভিসন। ১৯৬২-তে জন্ম নেয় নতুন জেলা লাহুল-ম্পিতি। প্রায় চোদ্দ হাজার বর্গ কিমি আয়তনের এই জেলার জনসংখ্যা মাত্র ৩৫ হাজার। ৫০০-র বেশি গ্রাম থাকলেও বসবাস আছে ২৬৫টি গ্রামে। এই জেলাতেই রয়েছে পৃথিবীর সর্বোচ্চ গ্রাম কিবের। ইন্দো-তিব্বতি সীমান্তের লাহুল ও স্পিতি উপত্যকার প্রবেশপথ হলাে রােটাং পাস। তিব্বতি ভাষায় রােটাং অর্থ মৃত্যু। এক সময় এখানে কত মানুষের মৃত্যু হয়েছিল তার হিসেব নেই। এই পথে অতীতে বাণিজ্য হতাে স্পিতি, দ্রাস, কারগিল, লাদাখ হয়ে মধ্য এশিয়ায়। দুর্গম পথ, প্রতিকূল আবহাওয়া, তবুও পথের আকর্ষণে মানুষ ছুটে চলেছেন পথ কোথাও সংকীর্ণ, বন্ধুর, চড়াই, রয়েছে ভয়ঙ্কর হিমবাহ, চন্দ্র আর ভাগা এই দুই নদী। 

চোখে পড়ে বৌদ্ধ মনাষ্ট্রি, তার চিত্রসম্ভার , শিল্পকর্ম। স্থানীয় মানুষেরা সহজ, সরল, অতিথিপরায়ণ। 

এই জেলা ভ্রমণ করা যায় দু’দিক থেকে। সিমলা থেকে শুরু করে রামপুর-সারাহানসাংলা-কল্পানাকো ঘুরে নিয়ে এই জেলার কাজা-কুনজুম-কেলং দেখে শেষ করা যায়

মানালিতে অথবা মানালি থেকে শুরু করে কেলং-কাজা-কল্লা-সাংলা-সারাহান-রামপুর হয়ে শেষ করা যায় সিমলায়। 

লাহুল-স্পিতির বিভিন্ন থানা; কেলং, Ph; (01900) 222223;

কাজা, Ph: (01906) 222253; উদয়পুর, Ph: (01909) 222210..

স্পিতি নদীর তীরে ৩০০০ মিটার উঁচুতে পাহাড়ি শহর টাবাে। চারদিকে ঘিরে আছে গগনস্পর্শী পাহাড়ের সারি। প্রায় হাজার বছরের প্রাচীন এই গ্রাম। এক সময় বৌদ্ধ ধর্ম প্রচারে এখানে এসেছিলেন গুরু পদ্মসম্ভবনা। ৯৯৬ খ্রিস্টাব্দে এখানে তৈরি হয় তাকে গুম্ফা।

বৌদ্ধদের কাছে এই গুহার মাহাত্ম্য অপরিসীম। কাশ্মীর থেকে শিল্পীরা এখানে এসে ফুটিয়ে তােলেন নানান চিত্রকলা। অসাধারণ তার শিল্পশৈলী। সেই কারণেই তাবােকে বলা হয় হিমালয়ের অজন্তা। ৩০০০ বর্গ মিটার অঞ্চল জুড়ে এই গুম্ফা। রয়েছে গুম্ফা স্তুপ থঙ্কাস, নানান ভঙ্গিতে বুদ্ধের মূর্তি, প্রাচীন পুঁথি, বাদ্যযন্ত্র। দেওয়ালে জাতক অবলম্বনে বুদ্ধের জীবন কথা। গর্ভগৃহে ধ্যানমগ্ন বুদ্ধের বিশাল মূর্তি। বর্তমানে UNESco একে ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ হিসেবে ঘােষিত করেছে। এছাড়া তাবাের কিছু গুহাতে রয়েছে প্রাচীন চিত্রকলা। স্থানীয় ভাষায় তাদের বলা হয় দুওয়াং।

নাকো থেকে কাজার পথে ৬৪ কিমি দূরত্বে টাবাে। থাকার জন্যে রয়েছে 

(STD Code 01906) Dewachen Retraet, Ph: 223301, 9459883443, MAP: 6100/- ;

Hotel Tow Dhey, Ph: 9418271129, 9418537574, 1500/-;Maitrey H/

Stay, Near Monastery, Ph: 223329, 9418981317; Millenium (Monestry)

G/House, Ph: 223315/33; Tashi Khangsar, Ph: 223346/77, 1200/

টাবাে থেকে স্পিতি নদীর পাশ দিয়ে কাজার পথে ২৫ কিমি এগিয়ে ডানদিকে আলাদা পথে আরও ৭ কিমি গেলে ধাংকার গুম্ফা। ৩৮৭০ মিটার উচ্চতায় এই জায়গায় এক সময় ছিল স্থানীয় রাজাদের দুর্গ। স্থান মাহাত্ম্যে বহিরাগতদের আক্রমণ থেকে বাঁচতে এই দুর্গের গুরুত্ব ছিল অপরিসীম। আজ পড়ে আছে শুধুই, ধ্বংসাবশেষ। সপ্তম থেকে নবম শতাব্দীতে তৈরি গুম্ফাটিও ঐতিহাসিক গুরুত্ব বহন করে। লা-ও সম্প্রদায়ের বৌদ্ধদের এই গুম্ফাটিকে বলা হয় লা-ও-পা গুম্ফা। বহুতল এই গুম্ফায় রয়েছে পাঁচটি হলঘর। জুখাং হলঘরটিতে রয়েছে বজ্ৰধারার বিশাল রৌপ্য মূর্তি। গুম্ফা থেকে আড়াই কিমি দূরে ৩৫০০ফুট উচ্চতায় রয়েছে ছােট্ট একটি লেক। পীনপার্বতী নদীর তীরে কুংবি গুম্ফাটিও দেখার মতাে। ধাংকারে থাকার কোনও ব্যবস্থা নেই। তবে উৎসাহীরা লেকের ধারে তাবু খাটিয়ে থাকতে পারে।

কাজা থেকে ঘুরে আসা যায় ২৯ কিমি দূরে পীন নদীর দুধারে পর্বতমালার ঢালে পীন উপত্যকা। রুক্ষ, সবুজহীন স্পিতি জেলায় পীন ভ্যালি জুড়ে সবুজের চোখ জুড়ানাে রূপ দেখে মুগ্ধ হতে হয়। বিদেশী পর্যটকদের কাছে যথেষ্ট জনপ্রিয় এই পীন ভ্যালি। বলা হয় "Land of ॥bex and Snow Leopards". পাহাড় থেকে নেমেছে কুংরি গ্লেসিয়ার। কাজা থেকে পীন ভ্যালির পথে আত্তারগু-তে পীন নদী মিশেছে স্পিতির সাথে।

লাহুল স্পিতি ভ্রমণ গাইড - হোটেলের ফোন নাম্বার সহ লাহুল স্পিতি ভ্রমণ গাইড - হোটেলের ফোন নাম্বার সহ Reviewed by WisdomApps on August 07, 2020 Rating: 5

সাপ্তাহিক রাশিফল বাংলা ২৬শে জুলাই থেকে ০১লা আগস্ট

July 26, 2020
সাপ্তাহিক রাশিফল বাংলা জুলাই - আগস্ট ২০২০ 
মেষঃ সপ্তাহের প্রথমদিকে ব্যাবসায়িক লাভ। নতুন কর্মোদ্যমে আশাতীত সাফল্য। ঐশ্বরিক কৃপায় মানসিক বল বুদ্ধি ও কাজে কর্মে উৎসাহ। সপ্তাহের মধ্যভাগে জ্ঞাতি পরিজনের সঙ্গে আপস মিমাংসা। দাম্পত্যজীবনে মনোমালিন্য আবসান। প্রেম পরিণয়ে অহেতুক উত্তেজনা ও আবেগ প্রশমন করা জরুরি। সপ্তাহের অন্তভাগে পারিবারিক সন্তোষ বৃদ্ধি। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সহযোগিতায় কর্মক্ষেত্রে জটিলতার অবসান। সন্তানের বিদ্যাশিক্ষায় তুলনামুলকভাবে মনোযোগ বৃদ্ধিতে প্রশান্তি।

বৃষঃ আলোচ্য সপ্তাহের প্রথমভাগে দাম্পত্যজীবনে বাদানুবাদ, মনোমালিন্য এড়িয়ে চলা প্রয়োজন। কর্মক্ষেত্রে নিত্য নৈমিত্তিক জটিলতা মানসিক উদ্বেগের অন্যতম প্রধান কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। সপ্তাহের মধ্যভাগে ব্যবাসা ক্ষেত্রে নতুন আশা উদ্যমের সঞ্চার। তবে আবেগের বশবর্তী হয়ে মাত্রাতিরিক্ত লগ্নি না করাই শ্রেয়। শ্যার, ফটকায় লাভের সম্ভাবনা বেশ প্রবল। সপ্তাহের অন্তভাগে গৃহ সংস্কার, নির্মাণের উদ্যোগ শুভ হতে পারে। তবে সম্পত্তি জনিত কারণে জ্ঞাতি-বিরোধের সম্ভাবনা প্রবল। প্রেম-পরিণয়ে উত্তেজনা, আবেগ পরিহার করে চলা প্রয়োজন।
 
মিথুনঃ এই সপ্তাহের প্রথম ভাগে ব্যাবসায়িক ক্ষেত্রে লাভে যোগ বেশ পরিস্কার। একই সঙ্গে ঋনবৃদ্ধির যোগও প্রবল। সন্তানের বিদ্যাশিক্ষায় সফলতাতে মানসিক তৃপ্তি। সপ্তাহের মধ্যভাগে কর্মক্ষেত্রে আবেগ, উত্তেজনা পরিহার করে চলা প্রয়োজন। নতুবা কর্মক্ষেত্রে অস্থিরতা বৃদ্ধির যোগ থাকছে। সপ্তাহের অন্তভাগে উচ্চবিদ্যার্জন, গবেষণামূলক কার্যে সফলতা। পারিবারিক ক্ষেত্রে জ্ঞাতি পরিজনের হৃদয়হীনতায় হতাশা বৃদ্ধি। গৃহ সংস্কার বা নির্মাণের পরিকল্পনা আরও কিছুদিন পিছিয়ে দেওয়া প্রয়োজন। লটারি প্রাপ্তির যোগ বেশ শুভ।

কর্কটঃ এই সপ্তাহের প্রথমদিকে কর্মসূত্রে দূর যাত্রার প্রয়োজন হতে পারে। বিকল্প কর্মানুসন্ধানে সফলতা। সপ্তাহের মধ্যভাগে আয় উপার্জন বৃদ্ধি। ঋন পরিশোধ। গৃহ নির্মাণ বা সংস্কারের পরিচালনা সফল হতে পারে। স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কের উন্নতি। সপ্তাহের অন্তভাগে পুরানো মামলা-মোকদ্দমায় আইনি জটিলতা বৃদ্ধির যোগ রয়েছে। প্রেম পরিণয়ে পুরানো তিক্ততার অবসান। শেয়ার, ফটকায় অবিবেচকের মতো লগ্নি না করাই শ্রেয়। 

সিংহঃ এই সপ্তাহের প্রথমদিকে শরীর-স্বাস্থ্যের প্রভূত উন্নতি। কর্মক্ষেত্রে দায়-দায়িত্ব বৃদ্ধি। ব্যবসাক্ষেত্রে উদ্যোগ ও পরিশ্রম অনুজায়ী আয় উন্নতিতে প্রত্যাশা পুরন নাও হতে পারে। সপ্তাহের মধ্যভাগে পারিবারিক সমস্যা বৃদ্ধি, দাম্পত্য কলহ বৃদ্ধির যোগ রয়েছে। অহেতুক উত্তেজনা মতানৈক্য মনোমালিন্য এড়িয়ে চলা প্রয়োজন। সপ্তাহের অন্তভাগে বিকল্প কর্মানুসন্ধানে প্রানপন চেষ্টা চালিয়ে যাওয়া প্রয়োজন। আলাপ আলোচনার মাধ্যমে জ্ঞাতি-স্বজন বিরোধের নিস্পত্তিতে উদ্যোগী হওয়া প্রয়োজন।

কন্যাঃ আলোচ্য সপ্তাহের প্রথমদিকে জ্ঞাতি-পড়শির অসহযোগিতায় বিষয় সম্পত্তি নিয়ে মনোমালিন্য, বাদানুবাদ বৃদ্ধি পাওয়ার যোগ রয়েছে। সপ্তাহের মধ্যভাগে আধ্যাত্মিক কৃপায় শরীর স্বাস্থ্যের অপ্রত্যাশিত উন্নতি। সন্তানের আচরণে হতাশা বৃদ্ধি। সপ্তাহের অন্তভাগে অত্যাধিক পরিশ্রমে শারীরিক ক্লান্তি। চাকুরীজীবীদের পক্ষে সপ্তাহের শেষলগ্নে দায়িত্ব বৃদ্ধি যোগ থাকছে। স্বনিযুক্তি প্রকল্পে যুক্ত ব্যাক্তিদের পক্ষে সপ্তাহটা মোটের ওপর বেশ আশাব্যাঞ্জক।

তুলাঃ এই সপ্তাহের গোঁড়ার দিকে ব্যাবসা বাণিজ্যের অগ্রগতি বিকল্প কর্মানুসন্ধানে সাফল্য। সপ্তাহের মধ্যভাগে পারিবারিক বিবাদ, মনোমালিন্যের নিষ্পত্তি, শেয়ার, ফটকা, লটারিতে ভাবেচিন্তে বিনিয়োগ করা প্রয়োজন। সপ্তাহের অন্তভাগে দাম্পত্য কলহ বৃদ্ধি পেতে পারে। তাই অপ্রয়জনীয় আবেগ, উত্তেজনা পরিহার করা জরুরি। সন্তানের বিদ্যা-শিক্ষ্যায় অগ্রগতিতে মানসিক প্রফুল্লতা বৃদ্ধি।

বৃশ্চিকঃ আলোচ্য সপ্তাহের প্রথমদিকে কর্মক্ষেত্রে দক্ষতার স্বীকৃত পেতে পারেন। প্রয়োজনে বদলি/ সংস্থা পরিবর্তনও ঘটার যোগ প্রবল। গুরুজনের পরামর্শে পারিবারিক সমস্যার সন্তোষজনক সমাধান। সপ্তাহের মধ্যভাগে উত্তরাধিকার সূত্রে পাওয়া সম্পত্তির অধিকার নিয়ে জ্ঞাত-পরিজনের সঙ্গে বিরোধ। জনহিতকর কাজের সুবাদে সমাজে প্রভাব/ প্রতিপত্তি বৃদ্ধি। সপ্তাহের অন্তভাগে ব্যাবসায়িক ক্ষেত্রে আয় উপার্জন বৃদ্ধি। প্রেম পরিণয়ে যাবতীয় মান-অভিমান-মনোমালিন্যের অবসান। 

ধনুঃ এই সপ্তাহের প্রথমভাগে বহু শ্রম নিষ্ঠায় কর্মক্ষেত্রে সফলতা উচ্চপদ প্রাপ্তি। স্বনিযুক্তি প্রকল্পে যুক্ত ব্যাক্তিদের আয় উপার্জন বৃদ্ধির যোগ সুস্পষ্ট। সপ্তাহের মধ্যভাগে প্রেমজ ক্ষেত্রে তিক্ততা ও মনোমালিন্য। দাম্পত্য জীবনে ভুল বোঝাবুঝির অবসান। সপ্তাহের অন্তভাগে গৃহসংস্কার/ নির্মাণের পরিকল্পনা সফল হতে পারে। বিদ্যাশিক্ষায় সন্তানের একাগ্রতা বৃদ্ধিতে মানসিক সন্তোষ বৃদ্ধি। অপ্রিয় সত্য এখন এড়িয়ে চলাই শ্রেয়। আধ্যাত্মিক কৃপায় শরীর স্বাস্থ্যের অগ্রগতি। মানসিক উদ্বেগের অবসান।

মকরঃ এই সপ্তাহের গোরার দিকে ব্যাবসা-বাণিজ্যে অত্যাধিক বিনিয়োগ না করাই শ্রেয়। ঋন-পরিশোধ মানসিক ভার লাঘব। সপ্তাহের মধ্যভাগে কর্মক্ষেত্রে দায়িত্ব বৃদ্ধিতে সহকর্মীদের গুপ্ত শত্রুতা বৃদ্ধি পেতে পারে। সতর্ক থাকা প্রয়োজন। সপ্তাহের অন্তভাগে গৃহ, সম্পত্তি, নিয়ে বিবাদ আইন আদালত পর্যন্ত গড়াতে পারে। আধ্যাত্মিক প্রেরণায় শরীর স্বাস্থ্যের উন্নতি।

কুম্ভঃ আলোচ্য সপ্তাহের প্রথমদিকে দির্ঘদিনের কোনও আশা-আকাঙ্খার সঞ্চার। সপ্তাহের মধ্যভাগে দাম্পত্য জীবনে ভুল বোঝাবুঝির অবসান প্রেম-পরিণয়ে আশা-আকাঙ্খার সঞ্চার। সপ্তাহের অন্তভাগে উচ্চতর বিদ্যার্জন, গবেষণামূলক কার্যে আপাতত স্থগিত রাখাই প্রয়োজন।

মীনঃ এই সপ্তাহের প্রথম দিকটা বিদ্যার্থীদের পক্ষে বেশ আশা ব্যাঞ্জক। ব্যাবসায়ীরাও ব্যাবসাক্ষেত্রে সন্তোষজনক লাভ পাবেন। সপ্তাহের মধ্যভাগে জ্ঞাতি, পড়শির শত্রুতায় বিষয় সম্পত্তি নিয়ে অহেতুক ঝামেলা, ঝঞ্ঝাট, দাম্পত্য সন্তোষ বজায় থাকবে। সপ্তাহের অন্তভাগে করমসুত্রে দূরযাত্রার প্রয়োজন হতে পারে। একাধিক উপায়ে আয়-উপার্জন বৃদ্ধির প্রচেষ্টা, প্রয়াস সফল হতে পারে। ঐশ্বরিক কৃপায় শরীর-স্বাস্থ্যের উন্নতিতে মানসিক ভার লাঘব। 
সাপ্তাহিক রাশিফল বাংলা ২৬শে জুলাই থেকে ০১লা আগস্ট সাপ্তাহিক রাশিফল বাংলা ২৬শে জুলাই থেকে ০১লা আগস্ট Reviewed by WisdomApps on July 26, 2020 Rating: 5

প্রেমধর্ম ছাড়া সব কিছুই বৃথা - চৈতন্যদেবের চিরন্তন কিছু বাণী

July 22, 2020

চৈতন্যদেবের চিরন্তন কিছু বাণী








○ পৃথিবীতে মানুষ এসেছে প্রেমধর্মকে সকলের মধ্যে বিলিয়ে দেবার জন্য। প্রেমধর্ম ছাড়া সব কিছুই বৃথা।

○ জীবে প্রেমের মাধ্যমেই আসল অভীষ্টপূর্ণ হয়। সকলের প্রতি ভালোবাসা প্রদান না করলে কখনো আমরা ঈপ্সিত লক্ষ্যে পৌছোতে পারব না।

○ হরিনাম সংকীর্তনের মধ্যে দিয়ে আত্মা বিশুদ্ধ হয়। সংকীর্তনের মাধ্যমে আমরা ঈশ্বরের সান্নিধ্য অনুভব করতে পারি।

○ এই জগত কৃষ্ণময়, স্থল-জল-অস্তরীক্ষে_সর্বত্র তিনি বিরাজমান। প্রত্যেক মানুষের আত্মার অভ্যন্তরে তীর প্রকাশ।

○ মানুষে মানুষে তুচ্ছ ভেদাভেদ দূর করতে হবে। মানুষ এই জগতে ঈশ্বরের সব্ব্বশ্রেষ্ঠ জীব, সে কথা মনে রাখতে হবে.

○ “শুন শুন নিত্যানন্দ, শুন হরিদাস। সর্বত্র আমার আজ্ঞা করহ প্রকাশ । 

○  প্রতি ঘরে ঘরে গিয়া কর এই ভিক্ষা। “বল কৃষ্ণ ভজ কৃষ্ণ, কর কৃষ্ণ শিক্ষা।”

    আর তিন যুগে ধ্যানাদিতে যেই ফল হয়।
        কলিযুগে কৃষ্ণনামে সেই ফল পায়।। 

○ কিবা বিপ্র, কিবা নামী, শূদ্র কেন নয়? যেই কৃষ্ণ তত্ব বেত্তা সেই গুরু হয়।। 

○ “অন্য-বাঞ্থা, অন্য-পৃজা ছাড়ি' “জান”, 'কর্ম'। আনুকুল্যে সর্বেন্দ্রীয়
কৃষ্ণানুশীলন। এই 'শুদ্ধভক্তি'_ইহা হৈতে “প্রেমা' হয়। পঞ্চরাত্রে ভাগবতে এই লক্ষণ কয়।।”


○ তৃণের চেয়েও নীচ হয়ে বৃক্ষের মতো সহিঝুর হয়ে আত্মসন্মানিত হবার অভিলাষমাত্র না রেখে এবং অপর সকল জীবের প্রতি সন্মান প্রদর্শন করে সর্বদা যিনি হরিনাম সংকীর্তন করেন , তিনিই প্রকৃত বৈষ্ণব ।  

 ○সন্গ্যাসীর পক্ষে রাজ দর্শন বিষ ভক্ষণ তুল্য, কারণ রাজকীয় বৈভবের সংস্পর্শে সন্যাসীর হৃদয়ে বিষয় বাসনারপ প্রজ্বলিত অগ্নির অভ্যুদয় হতে পারে, যার ফলে সর্বত্যাগের আকাঙ্খা পুড়ে ছাই হয়ে যেতে পারে।

○ আমাকে সন্ন্যাসী বা সাধক বা অবতার-__কিছুই ভেবো না। আমাকে তুমি সামান্য এক কৃষ্ণানুরাগী বলেই জেনো।

○ যাঁর মুখে একটিবার মাত্র কৃষ্ণনাম শুনবে, তাকেই জানবে সে বৈষ্ণব । একটিবার মাত্র কৃষ্ণনাম করলে সবপাপ চলে যায়। হৃদয়ে নতুন ভক্তির প্রকাশ হয়। 

○ কলিকালে ভক্তি ছাড়া পথ নেই। 'ব্রহ্ম” শব্দের অর্থ হলো যড়শ্বর্যপূর্ণ  ভগবান। তাকে নির্বিশেষ বললে তার পূর্ণতায় ক্ষতি হয়।

○ শ্রীকৃষ্ণ হলেন পরমেশ্বর, তার বিগ্রহ সচ্চিদানন্দময়। তিনি হলেন! অনাদি, তিনি সকলের আদি। তিনি সমস্ত কারণের মূল। 

○ শ্রদ্ধাভক্তি সহকারে কৃষ্ণনাম জপ করাই শ্রেষ্ঠ পথ।

○ সবসময় যাঁর মুখে কৃষ্ণনাম বা যিনি নিরস্তর কৃষ্ণনাম যপ করেন তিনি বৈষ্ণব শ্রেষ্ঠ। তাঁর চরণ বন্দনা করবে। 

○ শ্রীকৃষের প্রধান তিনটি শক্তি - চিৎশক্তি, জীবশক্তি এবং মায়াশক্তি ।  অনন্ত শক্তি শ্রীকৃষ্ণের। 

প্রেমধর্ম ছাড়া সব কিছুই বৃথা - চৈতন্যদেবের চিরন্তন কিছু বাণী প্রেমধর্ম ছাড়া সব কিছুই বৃথা - চৈতন্যদেবের চিরন্তন কিছু বাণী Reviewed by WisdomApps on July 22, 2020 Rating: 5

সাপ্তাহিক রাশিফল জুলাই ১৯ থেকে ২৫ শে জুলাই

July 20, 2020

মেষঃ
সপ্তাহের প্রথম দিকে নিত্যনতুন কর্ম পরিকল্পনার সঞ্চার বিকল্প কর্মানুসন্ধানে সাফল্য। ব্যাবসা ক্ষেত্রে আগ্রগতি। সপ্তাহের মধ্যভাগে পারিবারিক জীবনে ভুল বোঝাবুঝির আবসান। আধ্যাত্মিক কৃপায় শরীর-স্বাস্থ্যের উন্নতি। সপ্তাহের অন্তভাগে সন্তানের বিদ্যাশিক্ষায় একাগ্রতা ও সন্তোষজনক অগ্রগতিতে মানসিকভার লাঘব। স্ব-নিযুক্তি কাজকর্ম/প্রকল্পে যুক্ত ব্যাক্তিদের আয়-উপার্জন বৃদ্ধিতে মানসিক প্রফুল্লতা, প্রেম-পরিণয়ে অতিরিক্ত মান-অভিমানে সমস্যার জটিলতা বৃদ্ধি।

বৃষঃ সপ্তাহের প্রথম দিকটা কর্মক্ষেত্রে যতটা সম্ভব বাদানুবাদ এড়িয়ে চলাই ভালো। নতুবা বিপত্তি বাড়তে পারে। চাকুরীজীবীদের আয়-ব্যায়ের মধ্যে সমতা বজায় রাখা প্রয়োজন। সপ্তাহের মধ্যভাগে ওষুধের ব্যাবসায়ী ও চিকিৎসা সামগ্রীর সঙ্গে ব্যাবসায়িক লেনদেনের সঙ্গে যুক্ত ব্যাক্তিদের আয়-উপার্জন বৃদ্ধির যোগ সুস্পষ্ট। ঈর্ষাকাতর ব্যাক্তির দুরভিসন্ধি সম্পর্কে সচেতনতা প্রয়োজন। সপ্তাহের অন্তভাগে উচ্চশিক্ষা ও গবেষণামূলক কার্যের সঙ্গে যুক্ত ব্যাক্তিদের সফলতা ও স্বীকৃতি প্রাপ্তির যোগ। দাম্পত্য জীবনে মনোমালিন্যের আবসান। প্রেম-পরিণয়ে মানসিক প্রফুল্লতা বৃদ্ধি।

মিথুনঃ উচ্চপদস্থ ব্যাক্তিদের সঙ্গে মনোমালিন্যে কর্মক্ষেত্রে অহেতুক জটিলতা বৃদ্ধির যোগ। তাই সপ্তাহের প্রথম দিকে অতন্ত্য ধৈর্য ও বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে পরিস্থিতির সদ্বাবহার করা প্রয়োজন। সপ্তাহের মধ্যভাগে নিকট অত্মীয় , বন্ধুবর্গের সহায়তায় ব্যাবসা ক্ষেত্রে ক্রমিক অগ্রগতি সন্তানের বিদ্যাশিক্ষায় অমনোযোগিতা ও চঞ্চলতার উত্তরোত্তর বৃদ্ধি দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। সপ্তাহের অন্তভাগে বাতজবেদনা, শ্বাসকষ্ট, হৃদযন্ত্রের সমস্যায় বিব্রত হাওয়ার যোগ থাকলেও খুব বেশি দুশ্চিন্তার কিছু নেই। সহৃদয় ব্যাক্তির সহায়তায় বিকল্প কর্মানুসন্ধানের সাফল্য।

কর্কটঃ অত্যাধিক দুশ্চিন্তা ও অর্থনৈতিক টানাপোড়েনে মানসিক চাপ বৃদ্ধি। মনে স্থিরতা রাখা প্রয়োজন। এই অবস্থা খুব বেশিদিন চলবে না। ঈশ্বরের কৃপায় খুব শীঘ্রই সমস্যা মুক্তির যোগ আসন্ন। সপ্তাহের মধ্যভাগে গুরুজন স্থানীয় ব্যাক্তির শরীর-স্বাস্থ্যের উল্লেখযোগ্য অগ্রগতিতে মানসিকভার লাঘব। স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কের টানাপোড়েন অব্যাহত। সপ্তাহের অন্তভাগে উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত সম্পত্তি নিয়ে পারিবারিক বিবাদে আইনি শলা-পরামর্শ করা নিতান্তই জরুরি।

সিংহঃ সপ্তাহের প্রথম দিকে ব্যাবসা ক্ষেত্রে আয়-উপার্জন বৃদ্ধি ও অগ্রগতির যোগ সুস্পষ্ট। ব্যায়ভাব বেশি থাকবে। দাম্পত্য জীবনে মানোমালিন্যর অবসান। সপ্তাহের মধ্যভাগে ভাগ্য বিড়ম্বনা ও হতাশায় মনোবল হ্রাস পেলেও গুরুজন স্থানীয় সহৃদয় ব্যাক্তির পরামর্শে নতুন উদ্যোগে ও উদ্যমে নবকর্ম প্রেরণার সঞ্চার। রাগে ও অচরণে সংযম জরুরি। নতুবা পারিবারিক বিরোধ। দাম্পত্য অশান্তির আশঙ্কা। সপ্তাহের অন্তভাগে পিত্ত, শ্লেস্মা বৃদ্ধি ও বাতজবেদনায় কাহিল হওয়ার সম্ভাবনা। যোগ, ধ্যান ও প্রাণায়ামে শরীর-স্ব্যাস্থের উন্নতি।

কন্যাঃ সপ্তাহের প্রথমভাগে কর্মক্ষেত্রে দায়িত্ব বৃদ্ধি। মৌলিক-চিন্তা ও সুযোগের সদ্বাবহারে ব্যাবসায়িক অগ্রগতি। সপ্তাহের মধ্যভাগে রক্তে শর্করা বৃদ্ধিতে এবং ইউরিক অ্যাসিডের প্রাবল্যে নানা-ধরনের শারীরিক জটিলতা। রোজকার সাংসারিক দায়-দায়িত্ব পালনে ভবিষ্যৎ সঞ্চয়ে হাত পড়তে পারে। সপ্তাহের অন্তভাগে অধ্যাত্মিক কৃপায় শরীর-স্বাস্থ্যের উন্নতি। কন্যাসন্তানের বিবাহ সংক্রান্ত বিষয়ে উদ্যোগ ও পরিকল্পনা। 

তুলাঃ সপ্তাহের প্রথম দিকে বাস্তববাদী পরিকল্পনা ও উপস্থিত বুদ্ধিমত্তার জোরে কর্মক্ষেত্রে দুর্জন সহকর্মীর যাবতীয় চক্রান্ত বানচাল করে দিতে সক্ষম হবেন। শরীর ও মনের অস্থিরতায় যোগ, প্রাণায়ামে উদ্যোগী হওয়া প্রয়োজন। সপ্তাহের মধ্যভাগে শেয়ার, ফটকায় অর্থ ক্ষতির যোগ সুস্পষ্ট। মানসিক শক্তির বিকাশে পারিবারিক সমস্যা ও শত্রু ভয় থেকে মুক্তি। সপ্তাহের অন্তভাগে রাজনৈতিক ক্ষেত্রে পদ ও দায়িত্ব বৃদ্ধি। শিল্পী, কলাকুশলীদের নতুন কর্মোদ্যোগ। আইন ব্যাবসায়ীদের আয় উপার্জনের ক্রমিক অগ্রগতি।

বৃশ্চিকঃ সপ্তাহের প্রথমভাগে লাঘব। ব্যাবসা ক্ষেত্রে ধীরে ধীরে আয়-উপার্জন বৃদ্ধিতে উৎসাহ, উদ্দীপ্নার সঞ্চার। বিবাহ এবার উদ্যোগী হওয়া প্রয়োজন। সপ্তাহের মধ্যভাগে দিনের পর দিন কর্মী সংকোচনে মানসিক উদ্বেগ বৃদ্ধি। ভবিষ্যতের সঞ্চয়ে হাত। দাম্পত্য জীবনে অত্যাধিক আবেগে সম্পর্কের জটিলতা বৃদ্ধি। সপ্তাহের অন্তভাগে প্রেম-পরিণয়ে পুরানো বিবাদের নিস্পত্তি। বিকল্প কর্মানুসন্ধানে উল্লেখযোগ্য সাফল্যে মানসিকভার লাঘব।

ধনুঃ সপ্তাহের প্রথমভাগেই শরীর-স্বাস্থ্যের ক্রমিক অগ্রগতিতে মানসিক বল বৃদ্ধি। ব্যাবসা, বিকল্প জীবিকায় নবউদ্যম ও কর্ম প্রেরণার সঞ্চার। তবে পাওনাদারের তাগাদার বিড়ম্বনার যোগ সুস্পষ্ট। ঠাণ্ডা মাথায় উক্ত সমস্যার সমাধান করা প্রয়োজন। সপ্তাহের মধ্যভাগে কর্মে সংস্থাগত পরিবর্তনের উদ্যোগ পরিকল্পনা করা প্রয়োজন, গৃহ সংস্কারে এখনই অত্যাধিক বিনিয়োগ না করাই শ্রেয়। সপ্তাহের অন্তভাগে সম্পত্তিঘটিত বিবাদে আইনি পরামর্শ নেওয়া জরুরি। প্রেম-পরিণয়ে নৈরাশ্য বৃদ্ধি।

মকরঃ সপ্তাহের প্রথমদিকে বিকল্প জীবিকা ও কর্মানুসন্ধানে আশাতীত সাফল্যে মানসিক বল বৃদ্ধি। বলবান শত্রুর দুরভিসন্ধি সম্পর্কে সতর্কতা প্রয়োজন। সপ্তাহের অন্তভাগে রাজনৈতিক, ক্ষেত্রে কৃতিত্বের পরিচয়। শেয়ার, ফটকায় খুব বেশি লগ্নি থেকে বিরত থাকা প্রয়োজন। সন্তানের বিদ্যাশিক্ষায় উত্তরোত্তর অমনোযোগিতায় হতাশা বৃদ্ধি।

কুম্ভঃ সপ্তাহের আদ্যভাগে সময়চিত চিকিৎসা ও ঐশ্বরিক কৃপায় প্রিয়জনের শরীর-স্বাস্থ্যের উল্লেখযোগ্য উন্নতিতে মানসিক উদ্বেগের অবসান। কর্মক্ষেত্রে জটিলতা বৃদ্ধিতে মানসিক অস্থিরতা বৃদ্ধি। সপ্তাহের মধ্যভাগে স্বামী-স্ত্রী'র যৌথ বোঝাপড়ায় 
পারিবারিক মনোমালিন্যের অবসান। কর্মক্ষেত্রে জটিলতা বৃদ্ধিতে মানসিক অস্থিরতা বৃদ্ধি। গৃহ নির্মাণ ও গৃহ সংস্কারে ব্যাঙ্ক ঋন অনুমোদনের সম্ভাবনা অতীব প্রবল। সপ্তাহের অন্তভাগে কর্মক্ষেত্রে বহুদিনের অচলবস্থার সন্তোষজনক সমাধান। সন্তানের বিদ্যাশিক্ষায় মনোযোগ হ্রাসে হতাশার উদ্রেক।

মীনঃ এই সপ্তাহের প্রথম দিকে আয়-উপার্জন বৃদ্ধির যোগাযোগ সুস্পষ্ট। তবে ঋন বৃদ্ধিতে এবার রাশ টানা প্রয়োজন। প্রেম-পরিণয়ে মনোমালিন্য বৃদ্ধিতে নৈরাশ্যের সঞ্চার। সপ্তাহের মধ্যভাগে শরীর-স্বাস্থ্যের বিষয়ে সতর্কতা অবলম্বন প্রয়োজন। পারিবারিক ক্ষেত্রে আবেগের বশবর্তী হয়ে কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত হবে না। সপ্তাহের অন্তভাগে ব্যাবসা ক্ষেত্রে খুব বেশি লগ্নি করা উচিত হবে না। উচ্চশিক্ষা, বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ, গবেষণামূলক কার্যে প্রয়োজনীয় স্বীকৃতি প্রাপ্তিতে মানসিক প্রফুল্লতা। 
সাপ্তাহিক রাশিফল জুলাই ১৯ থেকে ২৫ শে জুলাই সাপ্তাহিক রাশিফল জুলাই ১৯ থেকে ২৫ শে জুলাই Reviewed by WisdomApps on July 20, 2020 Rating: 5

পবিত্র বাইবেল -এর কিছু বানী বাংলায়

July 19, 2020

পবিত্র বাইবেল -এর কিছু বানী বাংলায় 



• যাদের হৃদয় শুদ্ধ তারা সকলকেই শুদ্ধ দেখেন। কিন্তু যাদের হৃদয় অশুদ্ধ এবং অবিশ্বাসী তাদের কাছে পৃথিবীর কিছুই বিশুদ্ধ নয়; কারণ তাদের মন এবং বিবেক, দুটোই নােংরা।

• যিনি ঈশ্বরে বিশ্বাসী, তিনি সুখী।

• অন্তরে প্রকৃত অর্থেই আনন্দিত হও। তােমার জন্য বিস্ময়কর অপার আনন্দ অপেক্ষা করে আছে।

• যারা মুক্তিলাভের আকাঙ্ক্ষা করেন তাদের সেবার জন্যই দেবদূততাপম আত্মারা পৃথিবীতেই প্রেরিত হন।

• বিবেকবান মানুষদের মুক্তি হলেন স্বয়ং প্রভু; তাদের বিপদে তিনিই শক্তি জোগান।

• কীভাবে কোন্ পথে যেতে হবে সে শিক্ষা শিশুকে দাও, যখন সে বৃদ্ধ হবে তখনও সে তার পথ থেকে বিচ্যুত হবে না।

• লক্ষ রাখ, প্রার্থনা করাে যাতে তুমি প্রলােভনে পা না বাড়াও। আত্মা শক্তিমান, কিন্তু দেব দুর্বল।

• তােমার যা আছে তাতেই সন্তুষ্ট হও। ঈশ্বর বলেছেন, “আমি তােমাকে কখনােই ছেড়ে যাব না, কখনও পরিত্যাগ করব না।” অতএব আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে বলাে, “প্রভু আমাকে সাহায্য করবেন, আমি ভীত নই।”

• এবং তারপর আমি এক ভারী কণ্ঠস্বর শুনতে পেলাম যা সিংহাসন থেকে ভেসে এল, এখন থেকে ঈশ্বর মানুষের সঙ্গেই বাস করবেন, তাদের সঙ্গেই থাকবেন। তারা তার প্রজা হবে, ঈশ্বর স্বয়ং তাদের সঙ্গে পালক হিসাবে থাকবেন। তিনি তাদের প্রত্যেকের চোখ থেকে অশ্রু মুছিয়ে দেবেন। থাকবে না কোনাে মৃত্যু, শােক, কান্না কিংবা যন্ত্রণা, কারণ পুরােনাে যাবতীয় প্রথা আজ অতিক্রান্ত।

• তােমার হাতের কাছে যে কাজ পাও, তা-ই সর্ব শক্তি দিয়ে করাে। 

• এবং যিশু তাদের বললেন... যদি তােমাদের একটি সরষে দানার মতনও বিশ্বাস থাকে, তােমরা পাহাড়কে বলতে পার, এখন থেকে তুমি ওই দূরে অবস্থান করবে’; পাহাড় সরে যাবে; এবং তােমাদের
পক্ষে কিছুই অসম্ভব বলে বােধ হবে না। 

• তুমি যা কিছু করাে ঈশ্বর তার মধ্যেই থাকেন।

• ভালােবাসায় কোনাে ভয় নেই; কারণ প্রকৃত ভালােবাসা সকল প্রকার ভয়কে দূরে ছুঁড়ে ফেলে দেয়।

• যদি তুমি শিশুর মতন নির্মল না হও, স্বর্গরাজ্যে প্রবেশাধিকার পাবে .

• কারণ আমি নিশ্চিতরূপে জানি যে মৃত্যু কিংবা জীবন, দেবদূত কিংবা দৈত্য, বর্তমান কিংবা ভবিষ্যৎ, উচ্চতা কিংবা গভীরতা, কোনােরকম শক্তি, সকল সৃষ্টির কোনাে কিছুরই এমন ক্ষমতা নেই যে প্রভু যিশুর ভালােবাসা থেকে আমাদের আলাদা করতে পারবে না। তােমার পুত্র ও কন্যারা ভবিষ্যদ্বাণী করবে, বয়স্করা স্বপ্ন দেখবে, তােমার যুবকেরা কল্পনা করবে।

• অজানা অচেনা ব্যক্তিকে সেবা করতে ভুলাে না, কারণ তাদের সেবা করে অনেকে না জেনেই বহু দেবদূতের সেবা করেছেন। সেই মানুষই পুণ্যবান যিনি প্রভুকে বিশ্বাস করেন এবং তাকেই আশা
এবং ভরসাস্থল হিসাবে মেনেছেন।

• তােমরা একে অপরের প্রতি সদয় হও, একে অপরের প্রতি ক্ষমাশীল হও, কারণ স্বয়ং ঈশ্বর প্রভু যিশুর জন্য তােমাদের ক্ষমা করেছেন। 

• কোথাও কোনাে গ্রিক কিংবা ইহুদি নেই, নেই বন্ধন কিংবা মুক্তি,পুরুষ না নারী; কারণ খ্রিষ্টের চোখে তােমরা সকলেই এক। 

• তখন ঈশ্বর বললেন, “সমগ্র পৃথিবীর মুখমণ্ডলে ছড়িয়ে থাকা বীজভর্তি প্রতিটি গাছ তােমাদের দিলাম, প্রতিটি গাছ যার ফল আছে আর বীজও আছে। ওগুলি তােমাদের খাদ্য। এবং পৃথিবীর যাবতীয় পশু, আকাশের যত পাখি, মাটির যে সকল প্রাণী নড়াচড়ায় সক্ষম, প্রতিটি জিনিস যাতে প্রাণ আছে, প্রত্যেক সবুজ গাছ—এসব সব তােমাদের দিলাম।

• তৃপ্ত বাসনা আত্মার কাছে মধুর। একজন বােকা লােক তার ক্রোধের পূর্ণ বহিঃপ্রকাশ ঘটায়, কিন্তু
একজন জ্ঞানী ব্যক্তি সর্বদা নিজেকে সংযত রাখেন।

• আমরা তাকে ভালােবাসি কারণ তিনিই প্রথম আমাদের ভালােবেসেছিলেন। নিজেকে যতটা ভালােবাস, প্রতিবেশীকে তােমার ঠিক ততটাই ভালােবাসা উচিত।

• আশীর্বাদধন্য মানুষদের হৃদয় বিশুদ্ধ; কারণ তারা ঈশ্বরকে দেখবেন। প্রভুর জন্য অপেক্ষা করাে : সৎসাহসী হও, তিনি তােমার হৃদয়কে শক্তিশালী করে গড়ে তুলবেন : আমি বলি, অপেক্ষা করাে প্রভুর
জন্য।

• যদি কেউ বলেন, “আমি প্রভুকে ভালােবাসি” তবুও তিনি তার ভাইকে ঘৃণা করেন, তিনি একজন মিথ্যাবাদী। কারণ যে ভাইকে তিনি স্বচক্ষে দেখেছেন তাকে যদি ভালােবাসতে না পারেন, তা হলে যে প্রভুকে তিনি চোখেই দেখেননি তাকে তার পক্ষে ভালােবাসা সম্ভব নয়।
• যদি কেউ পড়ে যায় তার অর্থ এই নয় যে সে পরিত্যক্ত হয়; কারণ প্রভু তাকে স্বহস্তে তুলে ধরেন।
• কখনাে কখনাে শয়তান নিজেকে একজন আলাের দেবদূতের মুখােশে ঢেকে রাখে। গ্রহণকারী অপেক্ষা দাতার মাথাতেই আশীর্বাদ বেশি ঝরে।
• তারপর যিশু বললেন, “হে পিতা, তুমি ওদের ক্ষমা কোরাে, কারণ ওরা জানে না ওরা কী করছে...”
• বিচার কোরাে না, তােমারও বিচার হবে না : নিন্দা কোরাে না, তুমিও নিন্দিত হবে না : ক্ষমা কোরাে, তুমিও ক্ষমা পাবে।
• যিনি সহজে রাগেন না তিনি শক্তিমান; নগর বিজয় অপেক্ষা আত্মাকে জয় করা বেশি কঠিন।
• প্রভু তার শিষ্যদের সান্ত্বনা দিয়েছেন, যন্ত্রণাদগ্ধ প্রাণে করুণা বর্ষণ
করেছেন।


বাইবেল বাংলা । বাংলায় বাইবেলের বানী । Quotes of Bible in Bengali .  bible-study-in-bengali
পবিত্র বাইবেল -এর কিছু বানী বাংলায় পবিত্র বাইবেল -এর কিছু বানী বাংলায় Reviewed by WisdomApps on July 19, 2020 Rating: 5

গুরু নানকের বাণী - ঈশ্বর , ধর্ম ও মানুষ সম্বন্ধে

July 18, 2020

গুরু নানকের বাণী




• ধর্মের নামে যে অনাচার, স্বার্থপরতা, সঙ্কীর্ণতা চলেছে, তা অবিলম্বে দূর করতে হবে। এক ধর্মের মানুষ অন্য ধর্মের মানুষকে ভালােবাসবে। সমস্ত মানুষ সমাজকে একসঙ্গে ধৰ্মসূত্রে আবদ্ধ করতে হবে।

• প্রবঞ্চনা করাে না। মানুষের ওপর অত্যাচার করাে না। সৎ হও,পরিশ্রমী হও, ঈশ্বর নিশ্চয়ই তােমাকে আশীর্বাদ করবেন।

• ঈশ্বর এক এবং অদ্বিতীয়। তিনি নিরাকার সর্বগুণের আধার। তার অপর কোনাে সত্তা নেই, কোনাে আকার নেই। তাই মুর্তি পূজা অর্থহীন।

• সত্য পথে চলাে, সৎ জীবন যাপন করাে, ঈশ্বরের নাম করাে। 

•যে মানুষ পরিপূর্ণ ভাবে নিজেকে ঈশ্বরের কাছে সমর্পণ করে, নিজের ভক্তি বিশ্বাসকে নিবেদন করে, সে-ই পায় ঈশ্বরের সান্নিধ্য।

• ঈশ্বর মানুষের ধর্ম দেখেন না, জাতি, দেখেন না, ধনী দরিদ্র দেখেন। । তার চোখে সকলেই সমান। তিনি শুধু বিচার করেন মানুষের কর্ম। যে মানুষ যেমন কাজ করে, তেমনই ফল পায়।

• সকলের ওপরে সত্য, কিন্তু তারও উপরে সত্যের জন্য বেঁচে থাকা।

•হে ব্রাহ্মণ সেই উপবীতই জীবের জন্য ধারণ কর, দয়া যাহার কার্পাসস্বরূপ, সন্তোষ সূত্রস্বরূপ, ইন্দ্ৰিদমনরূপ যাহার গ্রন্থি। ইহা ছিন্ন হয় না, মলিন হয় না, ইহা অগ্নিতে জ্বলিয়া যায় না। নানক বলেন,
সেই মানুষই ধন্য যিনি ইহা পরিধান করে সংসারে বিচরণ করেন।

•শুধু জল দিয়ে পূর্বপুরুষদের তৃপ্ত করা যায় না। প্রয়ােজন ভালাে কাজের। তুমি যদি অন্যের উপকার করাে, তাদের মঙ্গল চিন্তা করাে, সৎ কাজ করাে, তবেই তােমার সাথে তােমার পূর্বপুরুষদের সুনাম
ছড়িয়ে পড়বে। সেটাই হবে তাদের প্রতি সবথেকে বেশি সম্মান জানানাে।
গুরু নানকের বাণী - ঈশ্বর , ধর্ম ও মানুষ সম্বন্ধে গুরু নানকের বাণী - ঈশ্বর , ধর্ম ও মানুষ সম্বন্ধে  Reviewed by WisdomApps on July 18, 2020 Rating: 5

এই সপ্তাহের রাশিফল ১২ ই জুন থেকে ১৮ই জুন

July 12, 2020
মেষ রাশি:
এই রাশির জাতক-জাতিকাদের পক্ষে সপ্তাহটা বেশ আশাব্যঞ্জক। সপ্তাহের প্রাথমিকদিকে উপার্জন বৃদ্ধির ভাব সুস্পষ্ট। পারিবারিক সমস্যার সন্তোষজনক সমাধান। সপ্তাহের মধ্যভাগে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের অনুকূলে কর্মজগতে জটিল থেকে জটিলতর সমস্যার সমাধান। ব্যবসাক্ষেত্রে এত দিনের পরিশ্রমের ফল এবার পেতে শুরু করবেন। সপ্তাহের অন্তভাগে শরীর স্বাস্থ্যের উন্নতি। প্রবাসে বসবাসকারী আত্মীয়-পরিজনের বিষয়ে দুশ্চিন্তা বৃদ্ধি। সন্তানের বিদ্যাশিক্ষার তুলনামূলক অগ্রগতিতে মানসিক প্রশান্তি।

বৃষ রাশি: সপ্তাহের প্রথম দিকে কর্মক্ষেত্রের অত্যাধিক জটিলতা মানসিক উদ্বেগের প্রধানতম কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। সন্তানের বিদ্যাশিক্ষায় অমনোযোগীতায় বৃদ্ধি। সপ্তাহের মধ্যে ব্যবসাক্ষেত্রে আয়-উপার্জন বৃদ্ধিতে মানসিক বল বৃদ্ধি। গুরুজন স্থানীয় ব্যক্তির শরীর স্বাস্থ্যের অগ্রগতি। ঋণ বৃদ্ধিতে পারিবারিক অসন্তোষ। সপ্তাহের অন্তভাগে মাত্রাছাড়া সন্দেহবাতিকতা দাম্পত্য অসন্তোষ এর অন্যতম প্রধান কারণ। প্রেমিক-প্রেমিকার অত্যাধিক আবেগপ্রবণতা বর্জনীয়।

মিথুন রাশি: সপ্তাহের প্রথম দিকেই পারিবারিক বিতর্কবিবাদ অসন্তোষের মীমাংসা করে নিতে বদ্ধপরিকর হওয়া প্রয়োজন। উচ্চতর গবেষণা অভিনয় চারুকলা ও শিল্পকলার সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিবর্গের পক্ষে মধ্যভাগ অত্যন্ত শুভ। বিষয় সম্পত্তি ক্রয়-বিক্রয় নিয়ে জ্ঞাতি পরিজনের সঙ্গে অশান্তি বৃদ্ধি। শরীর স্বাস্থ্যের প্রতি যত্নবান হওয়া এখনই প্রয়োজন। নতুবা বিপত্তি বৃদ্ধির যোগ সুস্পষ্ট। সপ্তাহের অন্তভাগে কর্মস্থলে প্রশাসনিক দায় দায়িত্ব মানসিক চাপ। ব্যবসা-বানিজ্যের অগ্রগতিতে মানসিক ভার লাঘব।

কর্কট রাশি: এই সপ্তাহের গোড়ার দিকে আধ্যাত্বিক কৃপায় শরীর স্বাস্থ্যের অত্যাশ্চর্য অগ্রগতিতে মানসিক বল বৃদ্ধি। উচ্চশিক্ষা বা কর্মক্ষেত্রে দায়িত্ব বৃদ্ধি কারণে দূরযাত্রার যোগাযোগ সুস্পষ্ট। সপ্তাহের মধ্যভাগে সহৃদয় ব্যবহার ও যুক্তিপূর্ণ সিদ্ধান্তে শত্রুর হৃদয় জয় করে কার্যসিদ্ধির উপায় উদ্ভাবন করে নেওয়াই শ্রেয়। নতুবা আইনি ঝামেলা বৃদ্ধি পাওয়ার যোগাযোগ থাকছে। সপ্তাহের অন্তভাগে ব্যবসাক্ষেত্রে অত্যাধিক বিনিয়োগ এখনই করার জন্য পার্টনারের চাপ বৃদ্ধি।

সিংহ রাশি: সপ্তাহের প্রথম দিকে এই রাশির জাতক-জাতিকারা মাতৃ পিতৃ শ্বশুরকুল থেকে আদর-আপ্যায়ন সহযোগিতা পেতে পারেন। প্রেম পরিণয় মতানৈক্য এড়িয়ে চলাই শ্রেয়। নতুবা মনোমালিন্য বৃদ্ধি পাওয়ার যোগ সুস্পষ্ট। সপ্তাহের মধ্যভাগটা ব্যবসায়ীদের পক্ষে বেশ আশাপ্রদ। তবে প্রয়োজনের অতিরিক্ত লগ্নিতে এখনই রাশ টানা প্রয়োজন। সপ্তাহের অন্তভাগে অপ্রাপ্তির বেদনায় নিত্য কর্তব্যে অমনোযোগিতা পারিবারিক অশান্তির কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে।

কন্যা রাশি: এই রাশির জাতক-জাতিকাদের পক্ষে সপ্তাহের প্রথম দিনগুলি যাবতীয় বাকবিতণ্ডা মতানৈক্য এড়িয়ে চলা উচিত। বিশেষ করে কর্মক্ষেত্রে ঠান্ডা মাথায় যাবতীয় অস্থিরতা সমাধানে উদ্যোগী হওয়া প্রয়োজন। সপ্তাহের মধ্যভাগে ব্যবসাক্ষেত্রে ঋণ বৃদ্ধি বিড়ম্বনার কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। শিল্পী-কলাকুশলীদের পক্ষে সপ্তাহের অন্তঃভাগ যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। পারিবারিক জীবনে জ্ঞাতি পরিজনদের অমানবিক আচরনে হতাশা বৃদ্ধি বিদ্যাশিক্ষায় সন্তানের মনোযোগ বৃদ্ধিতে মানসিক প্রশান্তি।

তুলা রাশি: সপ্তাহের প্রথম দিকে বিকল্প উপার্জন ও স্বনির্ভর ব্যক্তিদের আয় বৃদ্ধির যোগাযোগ বেশ সুস্পষ্ট। বৃত্তি শিক্ষা কলা শিক্ষা চারুকলার সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিরা ও কর্মক্ষেত্রে নজর কাড়তে পারেন। সপ্তাহের মধ্য ভাগে দুর্জন ব্যক্তির অপচেষ্টা ব্যর্থ করে চাকরীক্ষেত্রে দায়দায়িত্ব সুনাম বৃদ্ধি। তৃতীয় ব্যক্তিকে ঘিরে দাম্পত্য কলহ ও পারিবারিক অসন্তোষের যথোপযুক্ত সমাধান এখনই করা প্রয়োজন। সপ্তাহের অন্তভাগে বিবাহবহির্ভূত সমস্যা সামাজিক বিড়ম্বনার কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে . প্রিয়জনের শরীর-স্বাস্থ্যের অগ্রগতিতে মানসিক ভার লাঘব।

বৃশ্চিক রাশি: দাম্পত্য সুরক্ষার প্রয়োজনীয় আইনি পরামর্শ ব্যবস্থাদি সপ্তাহের প্রথম দিকেই করে নেওয়া প্রয়োজন। ব্যবসাক্ষেত্রে ঢিলেঢালা মনোভাব শীঘ্র পরিহার করে আরো উদ্যোগী হওয়া প্রয়োজন। সপ্তাহের মধ্যভাগে কর্মক্ষেত্রের নিরন্তর কর্মী সংকোচনে মানসিক অস্থিরতা বৃদ্ধি। আমদানি রপ্তানি ব্যবসা নেটওয়ার্কিংয়ের ব্যবসায় বাড়তি বিনিয়োগের সুফল এবার পেতে শুরু করবেন। সপ্তাহের অন্তভাগে বহু শ্রম ও প্রচেষ্টার সুফল কর্মজগতে পাওয়ার যোগ সুস্পষ্ট প্রেম পরিণয় অত্যাধিক আবেগ বর্জন করে বাস্তবোচিত সিদ্ধান্তে অটল থাকাই সমীচীন।

ধনু রাশি: বিকল্প কর্মযোগের দীর্ঘ প্রচেষ্টার সুফল সপ্তাহের গোড়ার দিকেই পেয়ে যাবেন। ঈশ্বরের কৃপায় ব্যবসাক্ষেত্রে ধীরগতিতে হলেও আয়-উপার্জন বৃদ্ধিতে মানসিক বল বৃদ্ধি। সপ্তাহের মধ্যভাগে গৃহ সংস্কার ক্রয়-বিক্রয় সংক্রান্ত বিষয়ে জ্ঞাতি পরিজনের সঙ্গে বাদানুবাদ মনোমালিন্য। উচ্চতর বিদ্যার্জনে সফলতা স্বীকৃতিতে মানসিক প্রশান্তি। সপ্তাহের অন্তভাগে গুরুজনের পুরনো জটিল রোগ ব্যাধির উপশম। দাম্পত্য জীবনে ভুল বোঝাবুঝির অবসান।

মকর রাশি: সপ্তাহের শুরুর দিকে সন্তানের বিদ্যাশিক্ষা উত্তরোত্তর অমনোযোগীতায় হতাশা বৃদ্ধি। কর্মক্ষেত্রে অতিরিক্ত দায় দায়িত্ব বৃদ্ধিতে এতদিনের নৈরাজ্যকর অবস্থার সমাপ্তি। সপ্তাহের মধ্যভাগে বিকল্প জীবিকার আশাতিরিক্ত উপার্জনে যাবতীয় উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার অবসান। সপ্তাহের অন্তভাগে উপযুক্ত আইন ব্যবস্থায় পুরনো মামলা-মোকদ্দমায় আপাতত স্বস্তি। সামান্য ভুল বোঝাবুঝি মনোমালিন্য কারণে পুরনো প্রেম পরিণয় যাতে আর চিড় না খায় সেজন্য এখনই উদ্যোগী হওয়া প্রয়োজন। 

কুম্ভ রাশি: পৈত্রিক সম্পত্তিতে নিকটাত্মীয়ের সন্দেহজনক মনোভাব সম্পর্কে অত্যন্ত সতর্ক হওয়া প্রয়োজন সপ্তাহের প্রথম দিকে এই ব্যাপারে আলাপ আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধানে উদ্যোগী হওয়া আবশ্যক। উচ্চশিক্ষায় এতদিনের পরিশ্রমের স্বীকৃতি সপ্তাহের মাঝামাঝি সময়ে প্রাপ্তি হয়ে যাওয়ার যোগ সুস্পষ্ট। কর্মক্ষেত্রে ধীরগতিতে আয় উপার্জন বৃদ্ধির যোগ। অযথা তাড়াহুড়োয় ভুল সিদ্ধান্ত নেওয়া থেকে বিরত থাকা প্রয়োজন। সপ্তাহের অন্তভাগে ঈশ্বরের কৃপায় শরীর-স্বাস্থ্যের উল্লেখযোগ্য উন্নতি দাম্পত্য অসন্তোষের নিরাসন।

মীন রাশি: সপ্তাহের প্রথম দিকে শিল্পী কলাকুশলী অভিনেতাদের কর্মতৎপরতা বৃদ্ধি। পারিবারিক ক্ষেত্রে বিতর্কিত বিষয়ে মন্তব্য করা থেকে বিরত থাকুন নতুবা পারিবারিক অসন্তোষ বৃদ্ধির যোগ স্পষ্ট। সপ্তাহের মধ্যভাগে বাতবেদনায় মানসিক ও শারীরিক অসুস্থতা বৃদ্ধি। সপ্তাহের অন্তভাগে ব্যবসা-বাণিজ্যের ক্ষেত্রে উত্তরোত্তর আয়-উপার্জন বৃদ্ধিতে যাবতীয় হতাশা ও নৈরাশ্য থেকে মুক্তি। প্রেম পরিণয় বিতর্কবিবাদ অবসানে প্রফুল্লতা বৃদ্ধি।
এই সপ্তাহের রাশিফল ১২ ই জুন থেকে ১৮ই জুন এই সপ্তাহের রাশিফল ১২ ই জুন থেকে ১৮ই জুন Reviewed by WisdomApps on July 12, 2020 Rating: 5

হোমারের কিছু কথা - আপনাকে ভাবতে বাধ্য করবে

July 10, 2020


  •  কোনো অতিথি কখনই অতিথিপরায়ণ গৃহস্বামীকে ভুলে যায় না।
  •  যে অতিথি থাকতে চায় তাকে তাড়াতাড়ি বিদায় দেওয়া আর যে তাড়াতাড়ি চলে যেতে চায় তাকে ধরে রাখা সমান অপরাধ।
  •  অনেকেই যখন একটা কঠিন কাজে কাধ দেয় তখন কাজটা সহজ হয়ে যায়।
  •  নম্রতার দ্বারা অনেক কিছু অর্জন করা যায় কিন্তু ব্যয় হয় না কিছুই।
  •  পৃথিবীকে এমন অতৃতপ্তিকর আর কিছুই নেই মানুষের অভিমানী চাহিদা ছাড়া।
  •  বৃক্ষের পাতার মতো মানুষের প্রজাতি। এখন যৌবনের সবুজ কোন্টা__কোন্টা পড়ছে ঝরে। বসন্তে আসবে আর একটি প্রজন্ম-_যারা করছে তারা রেখে যাবে উত্তরাধিকার
  • অতি শিক্ষিত লোকের বৃদ্ধি কম।
  •  বর্তমানকে সঠিকভাহব পাঠ করা এবং সময়ের সঙ্গে এগিয়ে চলাই বিচক্ষণতার পরিচায়ক । 
  •  একজন সহানুভূতিশীল বন্ধু ভাইয়ের মতোই প্রিয় হতে পারে।
  •  অতিরিক্ত বিশ্রাম যন্ত্রণাদায়ক হয়ে ওঠে।
  •  বড় বড় কাজ এবং বড় বড় আবিষ্কার পারস্পরিক বিশ্বাস এবং. সহযোগিতার মাধ্যমে নিম্পন্ন হয়।
  • আমরা সবাই একদিন মরবো, এই সত্য স্বীকার করে জীবনের শেষদিন পর্যস্ত কাজ করতে করতেই মরা ভাল। টু ডাই ইন হারিনেস।
  •  বেশিরভাগ মানুষকেই অসহনীয় দুর্ভাগ্যের মোকাবিলা করতে এবং অকালে মৃত্যুর নির্মম শিকারে পরিণত হতে হয়।
  •  মানুষকে করতে হবে যুদ্ধ আর স্বর্গকে দিতে হবে সফলতা।
হোমারের কিছু কথা - আপনাকে ভাবতে বাধ্য করবে হোমারের কিছু কথা - আপনাকে ভাবতে বাধ্য করবে Reviewed by WisdomApps on July 10, 2020 Rating: 5

জীবন ও যৌনতা সম্পর্কে সিগমুন্ড ফ্রয়েডের কিছু অসাধারণ উক্তি

July 09, 2020

সিগমুন্ড ফ্রয়েড (মে ৬, ১৮৬৫- সেপ্টেম্বর ২৩, ১৯৩৯) ছিলেন একজন অস্ট্রিয় মানসিক রোগ চিকিৎসক এবং মনস্তাত্ত্বিক। তিনি "মনোসমীক্ষণ" (Psychoanalysis) নামক মনোচিকিৎসা পদ্ধতির উদ্ভাবক। ফ্রয়েড "মনোবীক্ষণের জনক" হিসেবে পরিগণিত। তার বিভিন্ন কাজ জনমানসে বিরাট প্রভাব ফেলেছে। মানব সত্বার 'অবচেতন', 'ফ্রয়েডিয় স্খলন', 'আত্মরক্ষণ প্রক্রিয়া' এবং 'স্বপ্নের প্রতিকী ব্যাখ্যা' প্রভৃতি ধারণা জনপ্রিয়তা পায়। একই সাথে ফ্রয়েডের বিভিন্ন তত্ত্ব সাহিত্য, চলচ্চিত্র, মার্ক্সবাদী আর নারীবাদী তত্ত্বের ক্ষেত্রেও গভীর প্রভাব বিস্তার করে। তিনি ইডিপাস কম্পলেক্স ও ইলেক্ট্রা কম্পলেক্স নামক মতবাদ সমূহের জন্য অধিক আলোচিত। এখানে  জীবন ও যৌনতা সম্পর্কে সিগামুন্ড ফ্রয়েডের কিছু অসাধারণ উক্তি দেওয়া হল - 


  • গণিকাবৃত্তি পৃথিবীর আদিমতম ব্যবসা । 
  • পুরুষ ও নারীর মধ্যে তেমন কোনো যৌন প্রতিদন্ধিতা নেই। শরীরের সম্পূর্ণ সুখানুভূতির জন্য তারা হলো একে অন্যের পরিপূরক।
  • প্রকৃতির নিয়মে বালিকারা যেমন এক লহমায় যুবতী হয়ে যায়, সমবয়সী পুরুষের চেয়ে শরীরে মনে অনেক বেশি পরিণত , সেই  ইঙ্গিতে তারাই আগে পা রাখে বার্ধক্যের উষর প্রান্তরে । 
  •  একথা স্বীকার করতেই হবে যে, মানবসত্তা পুরুষ ও নারীর যুগলবন্দি শুনতে চায়, তার এক হাতে পৌরুষের উদ্দাম মন্দিরা অপর হাতে নারীত্বের মরমী সেতার। এই দুই নিয়েই বেজে ওঠে জীবনের কনসার্ট। 
  •  সব পূর্ণতারই থাকে নিজস্ব অহমিকা।
  •  কিছু কিছু যৌন নির্ভরশীলতা হলো আবশ্যকীয়, যা প্রেমের বাধনকে সুসংহত ও সুসংবদ্ধ করে।
  • একটি সুন্দরী নারী দর্শনে পুরুষের  মনে এবং একটি বলিষ্ঠ স্বাস্থ্যের সুপুরুষ দর্শনে নারীর মনে আসক্তি ও কামভাব জাগ্রত হবে এটাই তো স্বাভাবিক। এই স্বাভাবিকত্বের মধ্যে যারা অন্যায় ও পাপ অনুসন্ধানে তৎপর হয়, তারা অসুস্থ মস্তিস্ক । 
  •  যে মেয়ে একবার তুলে দেয় শরীরের সমস্ত উপহার, সে কিছুতেই ভুলতে পারে না সেই প্রেমিক অথবা সুপুরুষের মুখ। 
  • সেক্স ব্যতীত প্রেম অলীক কল্পনা মাত্র।
  • রমণীত্ব হলো সেই গুণ, যা নারীকে বহু পুরুষের চোখে ভোগ্যা করে তোলে।
  • আমার মতে যে কোনো শিশুই স্বার্থপর, অপরাধপ্রবণ এবং আত্মসুখী। শিশুর যদি পর্যাপ্ত শক্তি সাধ্য থাকতো তাহলে সে গোটা পৃথিবীটাকে বুঝি ধ্বংস করে ফেলতো।
  • যৌন ইচ্ছা কোনো পাপের পরিণতি নয়, এ হলো জীবনের স্বাভাবিক সুন্দর বহিঃপ্রকাশ।
জীবন ও যৌনতা সম্পর্কে সিগমুন্ড ফ্রয়েডের কিছু অসাধারণ উক্তি জীবন ও যৌনতা সম্পর্কে সিগমুন্ড ফ্রয়েডের কিছু অসাধারণ উক্তি Reviewed by WisdomApps on July 09, 2020 Rating: 5

এই সপ্তাহের রাশিফল ০৫ই জুলাই থেকে ১১ই জুলাই

July 05, 2020
মেষ রাশি:
কর্মক্ষেত্রে দায়িত্ব বৃদ্ধি মাধ্যমে সপ্তাহটি শুরু হতে পারে। ব্যবসা-বাণিজ্যের ধীরগতিতে ,অগ্রগতিতে ধৈর্য বজায় রাখা প্রয়োজন। সপ্তাহের মধ্যে ভাগে দাম্পত্য কলহের কারণে পারিবারিক শান্তি বিঘ্নিত হতে পারে। বিবাহযোগ্য পুত্র-কন্যাকে নিয়ে দুশ্চিন্তা বৃদ্ধি। শেয়ার ফাটকা লটারিতে অত্যাধিক লগ্নি করা উচিত হবে না। সপ্তাহের অন্তভাগে বৃত্তিগত প্রশিক্ষণ, চারুকলা, হস্তশিল্পে প্রতিভার স্বীকৃতি। আধ্যাত্বিক কৃপায় শরীর স্বাস্থ্যের উন্নতিতে মানসিক বল বৃদ্ধি। সন্তানের বিদ্যাশিক্ষায় মনসংযোগ হীনতায় হতাশা বৃদ্ধি।

বৃষ রাশি: এই সপ্তাহের প্রথম দিকেই পুরনো মামলা-মোকদ্দমা, আইনি সমস্যায় সুনিশ্চিত ও আইনি পরামর্শ নেয়ার আবশ্যকতা দেখা দিতে পারে। ব্যবসায় বৃদ্ধিতে আরো বেশি উদ্যমী হওয়ার প্রয়োজন দেখা যাচ্ছে। সপ্তাহের মধ্যভাগে বিরূপ সহকর্মীর উস্কানিতে কর্মক্ষেত্রে অস্থিরতা বৃদ্ধি পেতে পারে। ঠান্ডা মাথায় উক্ত সমস্যা সমাধানে উদ্যোগী হওয়া প্রয়োজন। সপ্তাহের অন্তভাগে নিজের ও পরিবারের সদস্যদের সম্মান রক্ষায় বাড়তি সতর্কতার প্রয়োজন হতে পারে। উপস্থিত বুদ্ধি ও সময়োচিত সিদ্ধান্ত ব্যবসায় ভরাডুবি কাটিয়ে অগ্রগতি। 

মিথুন রাশি: এই রাশির জাতক জাতিকাদের আলোচ্য সপ্তাহের প্রথম দিকে বেশি দূরবর্তী যাত্রা এড়িয়ে যাওয়া প্রয়োজন। কর্ম ক্ষেত্রে বহু প্রত্যাশিত দায়িত্ব বৃদ্ধি পদোন্নতিতে মানসিক প্রফুল্লতা, সপ্তাহের মধ্যভাগে আয় উপার্জন বৃদ্ধি, দূরযাত্রা। প্রেম পরিণয় বিতর্কবিবাদ মানসিক স্থিরতা ভঙ্গ হতে পারে। সপ্তাহের অন্তভাগে ব্যবসায়ীদের ব্যবসা বৃদ্ধির সুযোগ আসতে পারে। স্থির সংকল্পের মাধ্যমে পুরনো গৃহবিবাদের সন্তোষজনক সমাধান।

কর্কট রাশি: সপ্তাহের প্রথম দিকে আয় উপার্জন বৃদ্ধির সুবর্ণ সুযোগ কাজে লাগাতে আরো উদ্যোগী হওয়া প্রয়োজন। শত্রুর সঙ্গে এখনো সংঘাতে না গিয়ে আপস মীমাংসা করে করে নেওয়াই বুদ্ধিমানের কাজ হিসেবে পরিগণিত হতে পারে। সপ্তাহের মধ্যযুগের সন্তানের বিদ্যাশিক্ষায় অগ্রগতি। প্রেম পরিণয়ে নৈরাশ্যের অবসান ঘটিয়ে রাগ অনুরাগ এর প্রাবল্য। সপ্তাহের আদ্যভাগে ভেষজ চিকিৎসা, যোগ, প্রাণায়াম শরীর-স্বাস্থ্যের অভূতপূর্ব অগ্রগতি। ঋণ আদায়কারী সংস্থার আচরণে সামাজিক সম্মানহানি।

সিংহ রাশি: মন ও বুদ্ধির অস্থিরতায় কর্ম ক্ষেত্রে সঠিক সিদ্ধান্ত নিরূপণে সিদ্ধান্তহীনতা। এই কারণে সপ্তাহের প্রথম দুই দিন কোন দৃঢ় সিদ্ধান্ত না নেওয়ায় শ্রেয়। সপ্তাহের মধ্যভাগে ব্যবসা-বাণিজ্যের ক্রমিক অগ্রগতিতে মানসিক অস্থিরতার অবসান। উচ্চতর বিদ্যার্জন, গবেষণামূলক অধ্যয়নে সফলতা। সপ্তাহের অন্তভাগে কর্মসূত্রে দূরযাত্রার প্রয়োজন দেখা দিলেও তা এড়িয়ে যেতে পারলে ভালো হয়। জ্ঞাতি পরিজনদের হৃদয়হীন আচরণে পারিবারিক শান্তি বিঘ্নিত।

কন্যা রাশি: এই সপ্তাহের গোড়ার দিকে সৃজনশীল উৎপাদনমূলক ও ইমারতি দ্রব্য ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিরা ব্যবসা-বাণিজ্য বেশ কিছুটা সফলতা আশা করতে পারেন। সপ্তাহের মধ্যভাগে পারিবারিক ও দাম্পত্য জীবনা মতানৈক্য এড়িয়ে চলাই শ্রেয়। প্রেম পরিণয়ে বিতর্ক এড়িয়ে চলুন। সপ্তাহের অন্তভাগে ঋণ পরিশোধে মানসিক ভার লাঘব। অঙ্কন, চারুকলা, অভিনয় ও অন্যান্য শিল্পকর্মের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদের নতুন কর্মদ্যম ও কর্মপ্রেরণার সঞ্চার।

তুলা রাশি: এই জাতির জাতক-জাতিকাদের সপ্তাহের প্রথম দিকে কর্মক্ষেত্রের নতুন দায়িত্ব ন্যস্ত হতে পারে। ব্যবসাক্ষেত্রে ঋণ বৃদ্ধিতে মানসিক চাপ বৃদ্ধি। সপ্তাহের মধ্যভাগে জমি সম্পত্তি ক্রয়-বিক্রয়ের জ্ঞাতি পরিজনদের সঙ্গে মনোমালিন্য। বলবান শত্রুর কার্যকলাপ সম্পর্কে সজাগ দৃষ্টি রাখা প্রয়োজন। প্রবাসী আত্মীয়ের শরীর স্বাস্থ্য নিয়ে উৎকণ্ঠা বৃদ্ধি। সপ্তাহের অন্তভাগে পারিবারিক মতবিরোধের সন্তোষজনক মীমাংসা। সন্তানের বিদ্যাশিক্ষায় ক্রমিক অবনতিতে উদ্বেগ বৃদ্ধি।

বৃশ্চিক রাশি: সপ্তাহের প্রথম দিকে কারিগরি বিষয়, বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ, হস্ত সূচি শিল্পের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিবর্গের কর্মসংস্থানের নতুন দিগন্ত উন্মোচন।  প্রেমিক-প্রেমিকাদের পক্ষে সপ্তাহটি বেশ ভালোই যাবে। সপ্তাহের মধ্যভাগে কর্মক্ষেত্রে যে অনুযায়ী দায়িত্ব বৃদ্ধি হবে সেই অনুযায়ী স্বীকৃতি প্রাপ্তিতে বাধাবিঘ্ন। ব্যবসাক্ষেত্রে সন্তোষজনক অগ্রগতি। সপ্তাহের অন্তভাগে গুরুজনের স্বাস্থ্য নিয়ে দুশ্চিন্তার কারণ না থাকলেও সতর্কতাতা আবশ্যক।

ধনু রাশি: সপ্তাহের প্রথম দিকে কর্মক্ষেত্রে অত্যধিক জটিলতা মানসিক উদ্বেগের প্রধানতম কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বিতর্কে না গিয়ে আপস করে নেওয়ায় এই মুহূর্তে সমীচীন।  সপ্তাহের মধ্যভাগে আয়ের থেকে ব্যয়ের ভাব বেশি। পাওনাদারের নিত্যনৈমিত্তিক তাগাদা বিড়ম্বনার কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। দাম্পত্য জীবনে অতিরিক্ত আশা-প্রত্যাশা না করাই বাঞ্ছনীয়। সপ্তাহের অন্তভাগে প্রবাসী আত্মীয় স্বজনের খোঁজ খবরে মানসিক ভার লাঘব। উচ্চতর বিদ্যা, গবেষণামূলক কাজের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদের পক্ষে সপ্তাহটি অত্যন্ত ফলপ্রদ বলে বিবেচিত হতে পারে।

মকর রাশি: কর্ম জগতে নিত্যনৈমিত্তিক কর্মী সংকোচনের ঘটনা সপ্তাহের প্রথম দিকে মানসিক চাপ বৃদ্ধি করতে পারে। ব্যবসাক্ষেত্রে অনেকদিনের শ্রম ও প্রচেষ্টার শুভফল এবার হাতেনাতে পাবেন। সপ্তাহের মধ্যভাগে স্বামী-স্ত্রীর বোঝাপড়ায় তৃতীয় পক্ষের অবান্তর আগমন অশান্তির কারণ হতে পারে। তাই উক্ত বিষয়ে সতর্ক থাকা প্রয়োজন। সপ্তাহের আদ্যভাগে শেয়ার, ফাটকা, লটারিতে অর্থাগম মানসিক প্রফুল্লতা।

কুম্ভ রাশি: সপ্তাহের প্রথম দিকে এই রাশির জাতক-জাতিকারা বিকল্প কর্মানুসন্ধানা সফলতা লাভ করতে পারে। ব্যবসাক্ষেত্রে ধীরে ধীরে আয় উপার্জন বৃদ্ধি সুস্পষ্ট। সপ্তাহের মধ্যভাগে বিদ্যাশিক্ষা, কারিগরি ও বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষনে সন্তোষজনক অগ্রগতিতে, গুরুজনস্থানীয় ব্যক্তির শরীর স্বাস্থ্যের অগ্রগতিতে মানসিকভার লাঘব। পুরানো মামলা-মোকদ্দমায় জটিলতা বৃদ্ধি উক্ত বিষয়ে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া জরুরী।

মীন রাশি: সপ্তাহের প্রথম ভাগেই উপস্থিত বুদ্ধি ও প্রত্যুতপন্নমতিত্ব কর্মক্ষেত্রে শত্রুতা সৃষ্টিকারী ব্যক্তির ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে সফল হবেন। সপ্তাহের মধ্যভাগে আইনজীবী, চিকিৎসক ,জরুরি পরিষেবায় যুক্ত ব্যক্তিবর্গের উপার্জন বৃদ্ধির যোগ সুস্পষ্ট। আধ্যাত্মিক কৃপায় বহু পুরনো রোগ ব্যাধির উপশম। সপ্তাহের অন্তভাগে উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত সম্পত্তি ক্রয়-বিক্রয় বন্টনা দিতে জ্ঞাতি, পরিজনদের সঙ্গে মনোমালিন্য। প্রেম পরিণয়ে সন্তোষজনক মীমাংসায় মানসিক প্রফুল্লতা বৃদ্ধি।
এই সপ্তাহের রাশিফল ০৫ই জুলাই থেকে ১১ই জুলাই এই সপ্তাহের রাশিফল ০৫ই জুলাই থেকে ১১ই জুলাই Reviewed by WisdomApps on July 05, 2020 Rating: 5

এই সপ্তাহের রাশিফল - ২৮শে জুন থেকে ০৪ই জুলাই

June 28, 2020


মেষঃ সপ্তাহটা এই রাশির জাতক/জাতিকার পক্ষে বেশ চ্যালেঞ্জিং। সপ্তাহের প্রথম দিকেই অনেক জমে থাকা কাজ করে নেওয়ার প্রয়োজন। সহৃদয় শুভাকাঙ্খীর মধ্যস্থতায় বিতর্ক বিবাদের নিষ্পত্তি হয়ে যেতে পারে। সম্পত্তিজনিত বিষয়ে দৃঢ় অবস্থানে প্রতিপক্ষ পরাভুত। সপ্তাহের মধ্যভাগে আয়-উপার্জনের ক্রমিক অগ্রগতি। পারিবারিক সমস্যায় বহুকাঙ্খিত আপস-মিমাংসা। দূরবর্তী স্থলে কর্মরত প্রিয়জনের বিষয়ে অত্যাধিক দুশ্চিন্তা করা অর্থহীন। সপ্তাহের অন্তভাগে শরীর-স্বাস্থ্যের প্রভূত উন্নতি। উচ্চতর বিদ্যায় সন্তোষজনক অগ্রগতি।

বৃষঃ এই রাশির জাতক/জাতিকাদের পক্ষে সপ্তাহটা খুব একটা আশাপ্রদ নয়। কর্মক্ষেত্রে অস্থিরতা বৃদ্ধি মানসিক চাপের প্রধান কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। সপ্তাহের প্রথম দিকে ব্যায়ভাবও যথেষ্ট বেশি। ব্যাবসা ক্ষেত্রে এই সময় বেশি ঝুঁকি না নেওয়াই শ্রেয়। সপ্তাহের মধ্যভাগে দৈব কৃপায় কর্মক্ষেত্রে জটিলতার সাময়িক আবসান। বিকল্প উপার্জনের নতুন দিশায় যাবতীয় হতাশার অবসান। সপ্তাহের অন্তভাগে প্রেম-পরিণয়ে অহেতুক বিতর্ক-বিবাদ এড়িয়ে চলাই শ্রেয়। যোগ/প্রানায়াম/মানসিক দৃঢ়তায় বেশ কিছুদিন ধরে চলতে থাকা শারীরিক সমস্যার আশাতীত সমাধান।

মিথুনঃ সপ্তাহের প্রথম দিকেই কর্মক্ষেত্রে দায়-দায়িত্ব বৃদ্ধি হতে পারে। আশানুরুপ আয়-উপার্জন না হওয়ায় ব্যাবসায়ীদের হতাশা বৃদ্ধি। সপ্তাহের মধ্যভাগে সন্তানের শরীর-স্বাস্থ্য, বিদ্যার্জনের সন্তোষজনক অগ্রগতিতে অনেকদিন ধরে পুঞ্জিভুত মানসিক ভার লাঘব। সম্পত্তি রক্ষায় আইনি পরামর্শ নেওয়া জরুরি। শক্তিশালী, প্রতিপক্ষের সঙ্গে সম্মানজনক আপসে মানসিক বল বৃদ্ধি। সপ্তাহের অন্তভাগে দাম্পত্য জীবনে জটিলতা বৃদ্ধি। শিল্পী, কলাকুশলীদের কাজকর্মের ক্রমিক অগ্রগতিতে নতুন আশা-আকাঙ্খার সঞ্চার।

কর্কটঃ এই রাশির জাতক/জাতিকার সপ্তাহের গোড়ার দিকে বেশ কিছুটা অপ্রাত্যশিতভাবেই বিকল্প কর্মানুসন্ধানে সাফল্য পেতে পারেন। সন্তানের বিদ্যা শিক্ষায় আমনোযোগিতা দুশ্চিন্তার কারণ হতে পারে। সপ্তাহের মধ্যভাগে ব্যাবসা-বাণিজ্যের ক্রমিক অগ্রগতিতে আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধি। স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কের উন্নতি। সপ্তাহের অন্তভাগে পুরানো মামলা-মোকদ্দমায় আইনি জটিলতা বৃদ্ধি হতে পারে। প্রেম-পরিণয়ে অত্যাধিক আবেগ প্রবণতায় লাগাম দেওয়াই সমীচীন।

সিংহঃ সপ্তাহের শুরুর দিকটা অত্যন্ত সাবধানতার মাধ্যমে অতিবাহিত করে নেওয়াই দূরদর্শিতার পরিচায়ক। সপ্তাহের মধ্যবর্তী সময় থেকেই ব্যাবসা-বাণিজ্যের সন্তোষজনক অগ্রগতি। আয় উপার্জন বৃদ্ধি। বাস্তুজনিত জটিলতার সমস্যাগুলির দিকে এবার নজর দেওয়া আবশ্যক। সপ্তাহের অন্তভাগে ঘনিষ্ঠ বন্ধু, আত্মীয় পরিজনের উদাসীন আচরণে হতাশা বৃদ্ধি। ঋন বৃদ্ধিতে মানসিক চাপ। কর্মক্ষেত্রে সন্তানের অগ্রগতিতে মানসিক প্রফুল্লতা বৃদ্ধি।

কন্যাঃ কর্মক্ষেত্রে নতুন করে জটিলতা বৃদ্ধিতে মানসিক অবসাদ। সপ্তাহের প্রথম দিকে পাওনাদারের তাগাদায় বিড়ম্বনা বাড়তে পারে। দু'চাকার বাহন ক্রয়ের উদ্যোগ। সপ্তাহের মধ্যভাগে গুরুজন স্থানীয় ব্যাক্তির শরীর-স্বাস্থ্যের সন্তোষজনক অগ্রগতিতে মানসিক ভার লাঘব। প্রেম-পরিণয়ে প্রিয়জনের উন্নাসিক আচরণে হতাশা বৃদ্ধি। সপ্তাহের  অন্তভাগে বিদ্যাশিক্ষায় সন্তানের ক্রমিক আবনতিতে দুশ্চিন্তা বৃদ্ধি। সুম্পত্তি সুরক্ষায় আইনি পদক্ষেপ নির্ণয়। 

তুলাঃ সপ্তাহের প্রথম দিকে ব্যাবসা-বাণিজ্যের অগ্রগতি সম্পর্কে বিচার-বিশ্লেষণ। সম্পত্তিজনিত বিষয়ে সুচিন্তিত আইনি পরামর্শ করে নেওয়া অত্যন্ত আবশ্যক। সপ্তাহের মধ্যভাগে হাঁটু, অস্থি, বাতজ বেদনায় ক্লেশ। আত্মীয়-স্বজনের বিরূপ আচরণে গৃহ পরিবেশের শান্তি-শৃঙ্খলায় বিঘ্ন। সপ্তাহের অন্তভাগে আয়-উপার্জন বৃদ্ধিতে মানসিক প্রফুল্লতা। কর্মক্ষেত্রে গুপ্তশত্রুতায় মদত দেওয়া ব্যাক্তির স্বরুপ উদ্ঘাটন। সন্তানের বিদ্যা শিক্ষায় মনোযোগহীন্তায় দুশ্চিন্তা বৃদ্ধি। 

বৃশ্চিকঃ এই রাশির জাতক/জাতিকাদের কীটপতঙ্গ, জীবাণুঘটিত রোগ সংক্রমণের ব্যাপারে যথেষ্ট সজাগ থাকা প্রয়োজন। জ্ঞাতি-শত্রুর চক্রান্তের যথোপযুক্ত জবাবে মনোবল বৃদ্ধি। সপ্তাহের মধ্যভাগে কর্মক্ষেত্রে শ্রম, অধ্যাবসায়ের স্বীকৃতিহীনতায় হতাশা বৃদ্ধি। ব্যাবসায়িদের অত্যাধিক পরিশ্রমে শারীরিক ক্লান্তি। সপ্তাহের অন্তভাগে বিষয় সম্পত্তি ক্রয়-বিক্রয়ে জ্ঞাতি-পরিজনের সঙ্গে মতান্তর। দাম্পত্য জীবনে স্বামী-স্ত্রি'র যৌথ বোঝাপড়ায় জ্ঞাতি শত্রুর চক্রান্ত দমনে সাফল্য।

ধনুঃ সপ্তাহের প্রথম দিকে সহৃদয় ব্যাক্তির সহযোগিতায় বিকল্প কর্মানুসন্ধানে সফলতা। পুরানো কর্মক্ষেত্রে যদিও অস্থিরতা বজায় থাকবে। সপ্তাহের মধ্যভাগে ঘনিষ্ঠ জনের প্রতারণায় অর্থ ক্ষতির আশঙ্কা। সম্পত্তি সংস্কার বা গৃহ নির্মাণ/ক্রয়ের পরিকল্পনা আপাতত স্থগিত রাখাই শ্রেয়। সপ্তাহের অন্তভাগে আয়-উপার্জনের ক্রমিক অগ্রগতিতে মানসিক ভার লাঘব। গুরুজন স্থানীয় ব্যাক্তির শরীর-স্বাস্থ্যের সন্তোষজনক অগ্রগতি। 

মকরঃ সপ্তাহের প্রথম দিকে বলবান প্রতিপক্ষের ক্রিয়া-কলাপের প্রতি সজাগ দৃষ্টি দেওয়া দরকার। প্রয়োজনে আইনি ব্যাবস্থা নেওয়া জরুরি হয়ে পড়তে পারে। সপ্তাহের মধ্যভাগে ব্যাবসা-বাণিজ্যের সন্তোষজনক অগ্রগতিতে মানসিক প্রফুল্লতা বৃদ্ধি। শেয়ার, ফটকা, লটারিতে অপ্রত্যাশিত আয়। সপ্তাহের অন্তভাগে সুচিকিৎসায় শরীর-স্বাস্থ্যের সন্তোষজনক অগ্রগতি। সন্তানের বিদ্যাশিক্ষায় মনঃসংযোগ হ্রাসে দুশ্চিন্তা বৃদ্ধি। 

কুম্ভঃ স্বনিযুক্তি প্রকল্প/বিকল্প অর্থোপার্জনের অন্তরিক অধ্যাবসায়ের শুভ ফল এই সপ্তাহের প্রথম দিকেই মিলতে পারে। তবে অধিক উৎসাহে অতিরিক্ত লগ্নি না করাই শ্রেয়। সপ্তাহের মধ্যভাগে গুরুজন স্থানীয় ব্যাক্তির শরীর-স্বাস্থ্যের ক্রমিক অবনতি দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। সপ্তাহের অন্তভাগে জ্ঞাতি-পরিজনের বিরূপ আচরণে পারিবারিক শান্তি বিঘ্নিত হতে পারে। প্রেম-পরিণয়ে ভুল বোঝাবুঝির অবসানে মানসিক ভার লাঘব।

মীনঃ সপ্তাহের প্রথম দিকে কর্মক্ষেত্রে অতিরিক্ত দায়িত্ব বৃদ্ধিতে আত্মবিশ্বাস টালমাটাল হতে পারে। উচ্চতর বিদ্যার্জনে যৎপরনস্তি সাফল্য লাভ। সপ্তাহের মধ্যভাগে ব্যায়ভাব বেশি। ন্যুনতম সঞ্চয়ে এখনই উদ্যোগী হওয়া প্রয়োজন। দাম্পত্য জীবনে অতিরিক্ত আশা-প্রত্যাশাতে হতাশা বৃদ্ধির যোগ। সপ্তাহের অন্তভাগে ব্যাবসা-বাণিজ্যে অপ্রত্যাশিত অগ্রগতি। শরীর-স্বাস্থ্যের বিষয়ে সতর্কতা অত্যন্ত প্রয়োজন। নতুবা আকস্মিক স্বাস্থ্যহানির যোগ। প্রেম পরিণয়ে নৈরাশ্য বৃদ্ধি। বলবান শত্রুর সঙ্গে সন্তোষজনক সন্ধি। 
এই সপ্তাহের রাশিফল - ২৮শে জুন থেকে ০৪ই জুলাই এই সপ্তাহের রাশিফল - ২৮শে জুন থেকে ০৪ই জুলাই Reviewed by WisdomApps on June 28, 2020 Rating: 5

এই সপ্তাহের রাশিফল- ২১শে জুন থেকে ২৭শে জুন

June 21, 2020





মেষঃ সপ্তাহের শুরুটা সুসংবাদ দিয়েই হতে পারে। পুরনো জটিল রোগের থেকে অনেকটা সুরাহা মিলতে পারে। স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কের উন্নতি। সপ্তাহের মধ্যভাগে ব্যাবসায়িক ক্ষেত্রে ধীরে ধীরে আয়-উপার্জন বৃদ্ধির যোগ। প্রেম-পরিণয়ে অহেতুক বিতর্ক-বিবাদ এড়িয়ে চলাই শ্রেয়। সন্তানের পড়াশুনায় মনোযোগ বৃদ্ধি। সপ্তাহের অন্তভাগে উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত সম্পত্তি থেকে আয়-উপার্জন। শক্তিশালী প্রতিপক্ষের সঙ্গে সন্তোষজনক বোঝাপড়া।

বৃষঃ এই রাশির জাতক/জাতিকাদের সপ্তাহের প্রথমদিকটা খুব সাবধানতার মাধ্যমে চলতে হবে। শরীর-স্বাস্থ্যের দিকটা আর বেশি অবহেলা না করাই সমীচীন। সপ্তাহের মধ্যভাগে আয়-উপার্জন বৃদ্ধি হলেও ব্যায়ভাবও ততোধিক থাকছে। উচ্চতর বিদ্যায় অগ্রগতি বেশ আশাপ্রদ। প্রেম-পরিণয়ে বিতর্ক-বিবাদের আবসানে মানসিক ভার লাঘব। সন্তানের অন্তভাগে দূরে বসবাসকারী প্রিয়জন, নিকট আত্মীয় সম্পর্কে দুশ্চিন্তা বৃদ্ধি। কর্মসংস্থান কর্তৃপক্ষের উদাসীনতায় হতাশা বৃদ্ধি। 

মিথুনঃ কর্মক্ষেত্রে জটিলতা বৃদ্ধির মধ্যমে সপ্তাহটা শুরু হতে পারে। তবে বিকল্প কর্মসংস্থান/ উপার্জনের সম্ভাবনাও বেশ প্রবল। দাঁতের যন্ত্রণা, বাতজবেদনা, পুরনো জটিল রোগে কাহিল হতে পারেন। সপ্তাহের অন্তভাগে পারিবারিক সমস্যা- সংকটের সন্তোষজনক বোঝাপড়ায় মানসিক ভার লাঘব। কর্মক্ষেত্রে জটিল সমস্যার কিছুটা সুরাহায় মানসিক বল বৃদ্ধি। 

কর্কটঃ এই সপ্তাহের প্রথম দিকটা মিশ্র। তাই সবদিক থেকে সতর্ক, সজাগ থাকা প্রয়োজন। বলবান প্রতিপক্ষের সঙ্গে প্রয়োজনীয় সমঝোতা করে নেওয়াই শ্রেয়। সপ্তাহের মধ্যভাগে ব্যাবসা ক্ষেত্রে ক্রমিক অগ্রগতিতে অনেকদিনের জমে থাকা মানসিক চাপ লাঘব। শরীর-স্বাস্থ্যের প্রতি যত্নবান হওয়া প্রয়োজন। সপ্তাহের অন্তভাগে ব্যায়ভাব বেশি হওয়ার যোগ। অত্যধিক ঋনে রাশ টেনে নেওয়া এখনই প্রয়োজন।

সিংহঃ এই রাশির জাতক/জাতিকার সপ্তাহের প্রথমদিকে বেশ কয়েকটা ক্ষেত্রে শুভ ফলের আশা করতে পারেন। বিশেষ করে আয়-উপার্জন বৃদ্ধির শুভ যোগ তো বেশ সুস্পষ্ট। সপ্তাহের মধ্যভাগে পাওনাদারের তাগদা বেশ বিড়ম্বনার সৃষ্টি করতে পারে। প্রিয়জনের আচর-আচারণ উদসীনতায় হতাশা বৃদ্ধি। সপ্তাহের অন্তভাগে গুরুজনস্থানীয় ব্যাক্তির শরীর-স্বাস্থ্যের প্রভূত উন্নতি কর্মক্ষেত্রে বহুদিন ধরে চলে আসা অচলাবস্থার অবসানে মানসিক ভার লাঘব। 

কন্যাঃ সপ্তাহের প্রথমদিকটা যথেষ্ট চাপের। আয়-ব্যায়ের সমতা বিধানের জন্য সচেষ্ট হওয়া এখনই প্রয়োজন। সপ্তাহের মধ্যভাগে কায়িক শ্রম বৃদ্ধি। পড়াশুনা, উচ্চতর গবেষণামূলক কার্যে বহুদিনের প্রচেষ্টা, প্রয়াসের স্বীকৃতিতে মানসিক প্রফুল্লতা বৃদ্ধি। পারিবারিক ক্ষেত্রে মতবিরোধ, মনোমালিন্য, এড়িয়ে যাওয়াই শ্রেয়। সপ্তাহের অন্তভাগে ব্যাবসা-বাণিজ্যের সন্তোষজনক অগ্রগতিতে মানসিক অবসাদ থেকে কিছুটা মুক্তি। 

তুলাঃ এই রাশি জাতক/জাতিকার আলোচ্য সপ্তাহের প্রথম দিকে বেশকিছু ক্ষেত্রে দূরদর্শী, চিন্তাভাবনার সুফল পেতে শুরু করবেন। বিশেষত শত্রুদমন, ব্যাবসায়িক উদ্যোগ, সুম্পত্তিজনিত বিষয়ে বেশ আশা-আকাঙ্খার সঞ্চার হতে পারে। সপ্তাহের মধ্যভাগে পারিবারিক বিতর্ক বিবাদের নিস্পত্তিতে মানসিক ভার লাঘব। প্রিয়জনের জন্য দুশ্চিন্তা বৃদ্ধি। সপ্তাহের অন্তভাগে বাস্তুজনিত বিষয়ে অস্বস্তি বাড়তে পারে। ত্বকের সমস্যা, চক্ষু-পীড়া, হজমের গোলমাল বৃদ্ধির যোগ রয়েছে। সতর্কতা আবশ্যক।

বৃশ্চিকঃ এই সপ্তাহের গোড়ার দিকে পাওনাদারের তাগাদা যথেষ্ট অস্বস্তির কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। শরীর-স্বাস্থ্যের দিকে নজর দেওয়া এখনই প্রয়োজন। ভগবানের কৃপায় কর্মক্ষেত্রে অনেকদিন ধরে চলে আসা অচলাবস্থার অবসানে মানসিক ভার লাঘব। সপ্তাহের মধ্যভাগে আয়-উপার্জন বৃদ্ধিতে মানসিক বল বৃদ্ধি। স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কের উল্লেখযোগ্য উন্নতি। সপ্তাহের অন্তভাগে শেয়ার-ফটকা-লটারিতে লোকসানের সম্ভাবনা। সম্পত্তিজনিত বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়ার আবশ্যকতা। 

ধনুঃ তুলানমূলকভাবে এই সপ্তাহটা বেশ শুভ। সপ্তাহের প্রথমদিকেই পারিবারিক ক্ষেত্রে ভুল বোঝাবুঝির অবসানে মানসিকভার লাঘব। আধ্যাত্মিক কৃপায়-শরীর-স্বাস্থ্যের উল্লেখযোগ্য উন্নতি। সপ্তাহের মধ্যভাগে ব্যাবসাক্ষেত্রে ঋন বৃদ্ধি। বিদ্যা- শিক্ষায় মনঃসংযোগ বৃদ্ধি। প্রেম-পরিণয়ে নৈরাশ্য বৃদ্ধি। সপ্তাহের অন্তভাগে কর্মক্ষেত্রে অতিরিক্ত দায়িত্ব বৃদ্ধি। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের উদাসীন আচরণে হতাশা বাড়তে পারে। বিকল্প রোজগারে নতুন দিগন্তের উন্মোচনে মানসিক বল বৃদ্ধি।

মকরঃ এই রাশির জাতক/জাতিকাদের পক্ষে সপ্তাহের প্রথমদিকটা মিশ্র ফল দেবে। কর্মক্ষেত্রে নতুন দায়িত্ব বৃদ্ধি। পারিবারিক ক্ষেত্রে মনোমালিন্য অবসানে মানসিক ভার লাঘব। সপ্তাহের মধ্যভাগে ব্যাবসা-বাণিজ্যে ক্রমিক অগ্রগতিতে মানসিক বল বৃদ্ধি। প্রেম-পরিণয়ে বিতর্ক-বিবাদের অবসান। সপ্তাহের অন্তভাগে উচ্চশিক্ষায় সন্তোষজনক অগ্রগতি। মামলা-মোকদ্দমা-পুলিশি ঝামেলায় উপযুক্ত আইনি পরামর্শ নেওয়ার ক্ষেত্রে আর বিলম্ব ঠিক হবে না।

কুম্ভঃ সপ্তাহের প্রথমদিকেই আধ্যাত্মিক কৃপায় শরীর-স্বাস্থ্যের উল্লেখযোগ্য উন্নতিতে মানসিক বল বৃদ্ধি। বাস্তুজনিত পুরনো সমস্যায় অস্থিরতার বৃদ্ধির যোগ রয়েছে। সপ্তাহের মধ্যভাগে ব্যাবসা-বাণিজ্য আশাতীত অগ্রগতি। সন্তানের বিদ্যাশিক্ষায় মনঃসংযোগ হ্রাসে হতাশা বৃদ্ধি। সপ্তাহের অন্তভাগে কর্মক্ষেত্রে গোলোযোগ বাড়তে পারে। আত্মবিশ্বাস বজায় রেখে সিদ্ধান্ত নেওয়া প্রয়োজন। পুরানো বন্ধু, সহকর্মীর কর্কশ/উদাসীন আচরণে হতাশা বৃদ্ধি।

মীনঃ এই সপ্তাহের প্রথম দু'দিন অত্যাধিক গুরুত্বপূর্ণ। বিবেচনার সঙ্গে সিদ্ধান্ত নেওয়া প্রয়োজন। কর্মক্ষেত্রে মতান্তর এড়িয়ে চলাই সমীচীন। সপ্তাহের মধ্যভাগে ব্যাবসা-বাণিজ্যে অগ্রগতি হলেও পাওনাদারের তাগাদা বিব্রত রাখতে পারে। গৃহজ সমস্যায় মধ্যস্থতাকারীর সহযোগিতায় বিতর্ক-বিবাদের সাময়িক আবসান। সপ্তাহের অন্তভাগে শরীর-স্বাস্থ্যের উন্নতি। ব্যাবসা-বাণিজ্যে আয় উপার্জন বৃদ্ধি। বিকল্প রোজগার/ উপার্জনের নতুন ক্ষেত্র উন্মোচনে প্রফুল্লতা বৃদ্ধি। 

 
এই সপ্তাহের রাশিফল- ২১শে জুন থেকে ২৭শে জুন এই সপ্তাহের রাশিফল- ২১শে জুন থেকে ২৭শে জুন Reviewed by WisdomApps on June 21, 2020 Rating: 5

মারণ ভাইরাস কোরোনা আমাদের কি কি শিক্ষা দিল ? - এই শিক্ষা ভুলবার নয় ।

June 16, 2020



☞ পৃথিবী ফেরত চেয়েছেন ঈশ্বর।

☞ কি হলো এত পরমাণু বোমা, হাইড্রোজেন বোমা বানিয়ে আমেরিকার বি-স্টেলথ ( B-2 Spirit ) বোমারু বিমান নাকি আলপিনের ডগায় বোমা ফেলতে পারে কয়েক কিলোমিটার উঁচু থেকে, রাশিয়ান S-400 Triumph মিসাইল ডিফেন্স সিস্টেম, নাকি পৃথিবীকে কয়েক চক্কর কেটে ফেলার ক্ষমতা ধরে। AK107 ( Russian 5.45 ✘39mm. assault rifle) রাইফেল নাকি আস্ত ট্যাংক উড়িয়ে দেয় এক নিমেষে। 

☞ মানুষ মারার কত আয়োজন। 

☞ মনে আছে, সিরিয়ার সেই ৩ বছরের ছেলেটির কথা ? বোমায় ক্ষতবিক্ষত শরীর নিয়ে মরে যাবার আগে যে বলেছিল, "আমি ঈশ্বরকে সব বলে দেব।"

☞ সে হয়তো ঈশ্বরকে সব ব'লে দিয়েছে।

☞ হয়তো বলে দিয়েছে,
আমাদের পৈশাচিকতার কথা, লোভের কথা, অসভ্যতার কথা, নির্যাতনের কথা।

☞ আমরা মানুষ মেরেছি হাজারে হাজারে, একে অপরকে ধ্বংস করার জন্য মারণাস্ত্র বানিয়েছি লক্ষ - কোটি। প্রকৃতিকে ধ্বংস করে গড়ে তুলেছি গগনচুম্বী অট্টালিকা।  মানুষে মানুষে বিভেদ বাড়ানোর জন্য তৈরি করেছি নানান গোপন অস্ত্র।

☞ সুইডেনের ইন্টারন্যাশনাল পীস রিসার্চ ইনস্টিটিউটের গবেষণা বলছে ২০১৮ সালে পৃথিবীতে কেবলমাত্র যুদ্ধের প্রস্তুতির জন্য খরচ হয়েছে ১.৮২২ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার।

☞ সে হয়তো ঈশ্বরকে সব বলে দিয়েছে।

☞ বলেছে সেই পাখিটির কথা, যে আর আকাশে ওড়ে না। বলেছে সেই আকাশের কথা, যা একদিন নীল ছিল। বলেছে সেই বাতাসের কথা, যা একদিন নির্মল ছিল। বলেছে সেই পৃথিবীর কথা, যা একদিন সবার ছিল।

☞ এই সবার পৃথিবীকে আমরা ভাগ করেছি ইচ্ছেমতো।

☞ ধর্মের নামে, দেশের নামে, ভাষার নামে মানুষকে দূরে সরিয়েছি।

☞ চামড়ার রং দিয়ে, গণতন্ত্রের নাম দিয়ে, রাজনৈতিক স্বার্থে স্বৈরতান্ত্রিক ক্ষমতা প্রয়োগ করে, কেটে টুকরো টুকরো করেছি নিজেদের।

☞ সাগর পাড়ে পরে থাকা আ্যালান কুর্দি, কাঁটাতারে ঝুলতে থাকা ফেলানি হয়তো সব বলে দিয়েছে ঈশ্বরকে।

☞ ঈশ্বর তার পৃথিবী ফেরত চেয়েছেন এবার।

☞ তিনি হয়তো শুনেছেন সব অভিযোগ। হয়তো শুনেছেন প্রকৃতির করুণ আর্তনাদ। শুনেছেন সেই পাখিটির কান্না।

☞ এটাই হয়তো ঈশ্বরের মার, কিংবা প্রকৃতির প্রতিশোধ। বৈভবে মোড়া দুবাই - এর ৮২৮ মিটার উঁচু বুর্জ খলিফা নাকি খাঁ খাঁ করছে। সোনা আর পেট্রো ডলারে মুড়ে রাখা অহংকার থরথর করে মৃত্যুভয়ে কাঁপছে। 

☞ ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র একটা ভাইরাসের ভয়ে প্রবল পরাক্রমশালীরা অসহায়ের মত ফ্যালফ্যাল করে তাকিয়ে আছেন কোটের কলার ফাটা বিজ্ঞানীর দিকে, অথবা রাতজাগা ক্লান্ত অবসন্ন, কিন্তু হার না মানা জেদি ডাক্তার আর নার্সের দিকে।

☞ চরম উন্নাসিকতায় যাদের দিকে কেউ ফিরেও তাকাত না, আজ সেই সাফাইকর্মীদের পুষ্পবৃষ্টি আর শঙ্খধ্বনিতে হচ্ছে আবাহন। 

☞ তবে এ যুদ্ধ কি কেবল অদৃশ্য ভাইরাসের বিরুদ্ধে ? বোধহয় নয়। লকডাউনে খাবারের অভাবে গঙ্গায় পাঁচ সন্তানকে মায়ের বিসর্জন। এক পেট ক্ষিদে নিয়ে, এক বুক কষ্ট নিয়ে, নিজের এক রাশ না পাওয়ার সাম্রাজ্যে ফিরতে চাওয়া, একাধিক শ্রমিকের মৃত্যু। কোমল রক্তাক্ত পা'য়ে ১১ বছরের জামলোর মৃত্যু। সন্তানের মুখে সামান্য খাবার তুলে দিতে না পারার অব্যক্ত যন্ত্রনায় কর্মহীন পিতার আত্মহত্যা। এইসব কিছুর বিরুদ্ধে আমরা কি প্রতিদিন নিজেদের মনের ভিতরে এক অদৃশ্য লড়াই করছি না ?  

☞ একদিন হয়তো সব ঠিক হবে, কিন্তু আমরা কি সত্যিই মানুষ হবো ?

☞ এই অন্তহীন প্রশ্ন ভবিষ্যতের জন্য রেখে আজ অন্তত বাঁচার স্বপ্ন দেখি।

☞ আমরা রাষ্ট্রের আহ্বানে সম্মিলিতভাবে থালাবাসন না বাজিয়ে, সম্মিলিতভাবে মোমবাতি না জ্বালিয়ে, আতসবাজি না পুড়িয়ে,  ফানুস না উড়িয়ে। নিজেদের অন্তরের আহ্বানে সম্মিলিতভাবে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হই। 

☞ এ যাত্রায় যদি বেঁচে থাকি, একটি সবুজের বীজ বপন করবো। তাকে সন্তানস্নেহে লালন করে মহীরুহে পরিণত করবো। একটি পাখীর শিকল কেটে উড়তে দেবো। আর নিজের সন্তানকে তথাকথিত শিক্ষিত, ধনী ও স্বার্থপর নাগরিক হওয়ার নয়, দেবো প্রকৃত মানুষ ( মান ও হুঁস ) হয়ে ওঠার শিক্ষা।


সংগৃহীত। লিখেছেন সুব্রত উকিল মহাশয় । 
মারণ ভাইরাস কোরোনা আমাদের কি কি শিক্ষা দিল ? - এই শিক্ষা ভুলবার নয় । মারণ ভাইরাস কোরোনা আমাদের কি কি শিক্ষা দিল ? - এই শিক্ষা ভুলবার নয় ।  Reviewed by WisdomApps on June 16, 2020 Rating: 5

লকডাউনে ঘরে বসে বেতন নিচ্ছেন শিক্ষক - ক্লাস কি চলছে ?

June 14, 2020



আমিএকজনশিক্ষক ।ঘরে বসে দুমাস ধরে যে সরকারের কাছ থেকে বেতন নিচ্ছি।এই বিষয়ে কথা বলার আগে একটা ঘটনা শেয়ার করি আপনাদের সঙ্গে।

একবার হাওড়া থেকে লোকাল ট্রেনে ফেরার সময় বাধ্য হয়ে জেনারেল কামরায় উঠি।ওঠা থেকেই পিছনের দিকে কোনা থেকে কিছু অল্পবয়সী ছেলেদের উল্লাসময় চিৎকার এবং নিজেদের মধ্যে মাত্রাতিরিক্ত ইয়ার্কি ঠাট্টায় সবাই বিরক্ত হই। কিছুক্ষন পর ফিরে তাকাতেই তাদের একজনের দিকে চোখ পড়ে এবং চিনতে পারি সে আমারই স্কুলের প্রাক্তন ছাত্র। সেও চিনতে পারে এবং হাসিমুখে জিজ্ঞাসা করে কেমন আছি।আমি আবার আমার মত থাকি।খানিক পর খেয়াল করি পুরো গ্রূপটাই চুপচাপ। অল্প কিছু কথা ভেসে আসছে তবে বেশ নিচু গলায়।তারকেশ্বর অবধি এটাই চলে।বুঝতে পারি ছাত্রটি বাকিদের নিয়ন্ত্রণ করেছে আমার প্রতি সম্মান প্রদর্শন বশত।
এটা একটিমাত্র নয়।এমন অনেক ঘটনার সাক্ষী আমরা শিক্ষকরা সকলেই কমবেশি।আর যারা শিক্ষক নন তারাও।শিক্ষকদের সুকর্মের সুফলটা কিন্তু সকলেই ভোগ করেন।নিশ্চিন্ত সুষ্ঠ সামাজিক জীবন যাপন করেন।

এবার বলি কেন এই ঘটনার অবতরণ
আপনারা যারা বলছেন আমরা বিনা শ্রমে বেতন নিচ্ছি তারা একটিবারও ভেবে দেখেছেন 'শিক্ষা' কি?ঘন্টা ধরে সময় মেপে পাঠ্যপুস্তক আউড়ে দেয়াটাই কি শিক্ষা? না।সেটা আপনারাও জানেন। কিন্তু স্মৃতি বিচ্যুতির কারনে আজ রে রে করে উঠছেন শিক্ষকের বিরুদ্ধে।ভেবে দেখেছেন আপনার ছাত্রাবস্থায় আপনি শিক্ষককে কি দিয়ে বিচার করতেন?তাদের মাসমাইনে কত খোঁজ রাখতেন? না।বরং বলব তাদের প্রত্যেকের নিজ নিজ অভ্যাসগুলো খুঁটিয়ে দেখতেন।তাদের অনুকরণ অনুসরণ করবার কথা ভাবতেন।ভালোবাসে দুষ্টুমি করে তাদের নানান নামকরণ করতেন।তাদের দেওয়া শিক্ষা কাজে লাগিয়েই আজ আপনারা সমাজে সভ্য বলে পরিচিত।যেমন করে ওই ছেলেগুলি সেদিন তার অর্জিত শিক্ষার পরিচয় দিয়েছিল। অর্থাৎ ভাঙিয়ে খাওয়া। শিক্ষকের কাছে থেকে আমরা যা পাই তা আসলে সময়ের মাপদন্ড দিয়ে বিচারযোগ্য নয়। ক্লাস শেষ হয়ে যায় ।স্কুল ছাড়তে হয়।কিন্তু শিক্ষাটা বহন করে নিয়ে যায় ছাত্ররা।ভবিষ্যৎ জীবনে একজন সুনাগরিক হয়ে ওঠে।
তাই আজ যে ছেলেটা রাস্তায় থুথু ফেলছেনা,জল অপচয় করতে গিয়ে একবার থমকাচ্ছে,পরিবেশ নিয়ে ভাবছে,মানুষের পাশে ত্রাণ নিয়ে দাঁড়াচ্ছে,কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে স্বাস্থ্যকর পরিবেশ বজায় রাখছে তাদের প্রত্যেকের সঙ্গে রয়েছি আমরা। কোথাও না কোথাও কোনো না কোনো শিক্ষক রয়েছেন একজন ভালো নাগরিক গঠনে। শিক্ষকের ব্যক্তিত্ব অনুসরণ করতে চাওয়া ছাত্রাবস্থায় খুব স্বাভাবিক একটি ঘটনা যা আপনিও চেয়েছেন।কিন্তু আজ ভুলে গিয়ে বেতন নেওয়াটা দেখছেন।অলক্ষ্যে আমাদের শিক্ষার প্রবাহই যে আপনার সন্তানকে সুসন্তান করে রেখেছে,আপনার প্রতিবেশীকে সুপ্রতিবেশী করে রেখেছে আপনাকে প্রতিবাদমুখর সচেতন করে রেখেছে সেটা দেখতে পাচ্ছেননা।
#সিলেবাস শেষ হবেই।স্কুলও খুলবেই। কিন্তু বই পড়ে কি শিক্ষা সম্পুর্ন হয়?হয়না। হয় শিক্ষকের সান্নিধ্য থেকে। একটা সান্নিধ্য হাজারটা সুশিক্ষার বাহক।
গাছের মূল কোনোদিনই দেখা যায়না। পিতামাতা আর শিক্ষক এই ত্রয়ী আসলে শিকড়ের মত আড়ালে থাকে।কিন্তু এদের পুষ্টি সরবরাহ কখনো বন্ধ থাকতে পারেনা।এ নিরন্তর প্রবাহ। ছাত্রের অন্তরে প্রবাহিত হতে থাকে ।আর সমাজে তার ছাপ পড়তে থাকে।
আমি নিজে সেই কবে ছাত্রাবস্থায় আমার শিক্ষকদের বেতন দিয়েছি ।বিনিময়ে ক্লাস নিয়েছি। কিন্তু ক্লাসের বাইরে তাদের থেকে যা নিয়েছি সেই তাদের শিক্ষাকে ভাঙিয়ে তাদের ব্যক্তিত্বকে অনুসরণ করেই আজও আমার শিক্ষকজীবনকে সমৃদ্ধ করে যাচ্ছি।মেপে তো দেখিনি কতটা দিয়েছি আর কতটা পেয়েছি।
মালির মত গোড়ায় সার জল দিয়ে যে শক্তি সঞ্চয় করে দেন শিক্ষকরা তাই আজীবনের পুঁজি হয় ছাত্রদের। কিছুদিন পর তার প্রয়োজন ফুরোয় ঠিকই কিন্তু তার অবদান ফুরোয়না।

তাই কতটা দিলাম কতক্ষন দিলাম না দেখে সিলেবাসের বাইরে বেরিয়ে ভাবুন কি দিলাম আমরা। আর একটিবার আপনার ছাত্রাবস্থায় ফিরে যান।দেখবেন শিক্ষক আসলে শিক্ষা থেকে বিরত থাকেননি কখনো। প্রতিটা ক্ষেত্রে সফল মানুষের পিছনে একজন না একজন শিক্ষক অবধারিতভাবে আছেন। একবার নির্মল হোন। হিংসামুক্ত হোন আপনার জীবনের সেই সব শিক্ষকদের সম্মানার্থে।
স্কুল মানে একটা বিল্ডিং শুধু নয়। একটা সম্পর্ক।এ অবিচ্ছেদ্য। দুমাস তিনমাস বিরতি থাকতে পারে ঘন্টা বেঁধে ক্লাসরুমে।কিন্তু ঘন্টার বাইরে ক্লাসের বাইরে জানবেন ক্লাস সবসময় চলছে। আর যেটাকে আপনারা বেতন বলছেন সেটা আসলে আমরা জানি সাম্মানিক হিসাবে।যারা কথায় কথায় চাণক্য আওড়ান তারা ভুলে গেছেন তার অমোঘ বাণী।'একটি অক্ষর ও যদি শিক্ষক ছাত্রকে দেন তা কোনো পার্থিব বস্তু দিয়ে পরিশোধযোগ্য নয়'।
শুধু শিক্ষক হিসেবে নিজের কৈফিয়ত দিতে নয় যে লেখা লিখতে বাধ্য হলাম আমার জীবনে যাদের অবদান সেই সকল শিক্ষকদের সম্মান জানাতে। আর সেই সব ছাত্রদের ভালোবাসা জানাতে যারা আমাদের মাথা উঁচু করে দেয় গর্বে।যাদের জন্য চিৎকার করে বিনা দ্বিধায় বলতে পারি আমি একজন শিক্ষক। বলতে পারি ক্লাস চলছে।



- লেখাটি সংগৃহীত 
লকডাউনে ঘরে বসে বেতন নিচ্ছেন শিক্ষক - ক্লাস কি চলছে ? লকডাউনে ঘরে বসে বেতন নিচ্ছেন শিক্ষক -  ক্লাস কি চলছে ? Reviewed by WisdomApps on June 14, 2020 Rating: 5

এই সপ্তাহের রাশিফল - ১৪ই জুন থেকে ২০শে জুন

June 14, 2020

মেষ রাশি: শরীর ও স্বাস্থ্যের প্রভূত উন্নতির মাধ্যমে সপ্তাহের শুভ সূচনা। ধীরে ধীরে ব্যবসা বাণিজ্যের অগ্রগতির কারণে মানসিক বলবৃদ্ধি। সন্তানের পড়াশোনায় মনোনিবেশ। সপ্তাহের মধ্যভাগে আয় উপার্জন বৃদ্ধি। শত্রুদমনে সফলতা। সম্পত্তিজনিত ঝামেলায় সুষ্ঠ নিষ্পত্তি। প্রেম পরিণয়ে বিরহ ব্যাথা। সপ্তাহের অন্তভাগে শেয়ার, ফাটকা, লটারিতে অর্থক্ষতি। পারিবারিক ক্ষেত্রে সমস্যা বৃদ্ধি। মতানৈক্য বৃদ্ধি পেতে পারে এইরকম বিতর্কিত বিষয় এড়িয়ে যাওয়ার সমীচীন।

বৃষ রাশি: সপ্তাহের শুরুর দিকে অর্থনৈতিক সমস্যা সংকটের আপাত সুরাহা। ব্যবসা ক্ষেত্রে আশার আলো থাকলেও পাওনাদারের চাপ থাকবে। সপ্তাহের মধ্যভাগে বিদ্যা গবেষণামূলক কাজে সাফল্য। আধ্যাত্মিক কৃপায় বহুদিনের জটিল পারিবারিক সমস্যার সন্তোষজনক বোঝাপড়া। দাম্পত্য সমস্যায় কিছুটা আশার আলো। সপ্তাহের অন্তভাগে অত্যাধিক উচ্চাকাঙ্ক্ষায় ব্যবসায় লোকসানের ইঙ্গিত। কর্মক্ষেত্রে অনেকদিন ধরে চলে আসা সমস্যা সংকটের আপাত সুরাহা।

মিথুন রাশি: সপ্তাহের শুরুর দিকে বিকল্প রোজগারের রাস্তা উন্মোচন হবে। অত্যাধিক দুশ্চিন্তা, মানসিক অবসাদে শরীর স্বাস্থ্যের অবনতি হওয়ার সম্ভাবনা। সুতরাং উক্ত বিষয়ে সতর্কতা প্রয়োজন। সপ্তাহের মধ্যভাগে ব্যবসা বাণিজ্য কিছুটা শ্লথটা দেখা যাবে। সন্তানের পড়াশোনায় মনোসংযোগ বৃদ্ধিতে মানসিক প্রফুল্লতা। সপ্তাহের অন্তভাগে প্রেম পরিণয়ে শুভ খবর। দাম্পত্য জীবনে ভুল বোঝাবুঝির অবসানে মানসিক স্বস্তি।

কর্কট রাশি: ব্যবসা বাণিজ্যের উল্লেখযোগ্য অগ্রগতিতে সপ্তাহের শুভ শুভ সুচনা। আকস্মিক স্বাস্থ্যহানি, চোট আঘাত প্রাপ্তির যোগ থাকলেও খুব দুশ্চিন্তার কিছু নেই। সপ্তাহের মধ্যভাগে কর্মক্ষেত্রে দায়িত্ব বৃদ্ধি। পারিবারিক মনোমালিন্যের অবসান। গুপ্ত শত্রু দমনে উল্লেখযোগ্য সাফল্য। শিল্পী, কলাকুশলীদের নব উদ্যমে আশার আলো। সপ্তাহের অন্তভাগে ব্যায়ভাব বেশি। ঈশ্বরের কৃপায় শরীর স্বাস্থ্যের উল্লেখযোগ্য উন্নতি। গুরুজন স্থানীয় ব্যক্তির আরোগ্য।

সিংহ রাশি: সপ্তাহের শুরুটা যথেষ্ট চাপের। অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে ঋণ বৃদ্ধি। পাওনাদারের তাগদায় বিড়ম্বনা বৃদ্ধি। সপ্তাহের মধ্যভাগে গুরুজন স্থানীয় ব্যক্তির শরীর স্বাস্থ্যের সতর্কতা প্রয়োজন। মামলা মোকদ্দমায় প্রয়োজনীয় বোঝাপড়ায় সফলতা বৃদ্ধি। সপ্তাহের অন্তভাগে ঋণ শোধে মানসিক ভার লাঘব। ব্যবসা বাণিজ্যের অগ্রগতিতে মানসিক প্রফুল্লতা। সন্তানের বিদ্যাশিক্ষায় উৎসাহ বৃদ্ধি, কর্মক্ষেত্রে অগ্রগতি।

কন্যা রাশি: যথেষ্ট উৎসাহ উদ্যোগের মধ্য দিয়ে সপ্তাহটি শুরু হবে। ব্যবসা বাণিজ্য অত্যাধিক লগ্নি বিষয়ে প্রয়োজনীয় সতর্কতা আবশ্যক। সপ্তাহের মধ্যভাগে বিকল্প উপার্জনে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি। বাতজ বেদনা বিষয়ে যথেষ্ট সতর্কতা প্রয়োজন। সপ্তাহের অন্তভাগে চাকুরিজীবীদের দায়িত্ব বৃদ্ধি হলেও সেই অনুযায়ী উপার্জন বৃদ্ধি নাও হতে পারে। তবে আশাহত হওয়ার কারণ নেই। বিদেশে অধ্যয়ন/কর্মরত সন্তানের কুশল সমাচারে মানসিক ভার লাঘব।

তুলা রাশি: সপ্তাহের শুরুটা যথেষ্ট আশাব্যঞ্জক। অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে অনেকদিনের আটকে থাকা অর্থ উদ্ধার। দাম্পত্য সমস্যার ভুলবোঝাবুঝির অবসান। সপ্তাহের মধ্যভাগে শারীরিক সমস্যার অগ্রগতি। সন্তানের বিদ্যাশিক্ষায় মনোসংযোগ অভাবে দুশ্চিন্তা বৃদ্ধি। শেয়ার ফাটকা অপ্রত্যাশিত লাভ। সপ্তাহের অন্তভাগে সম্পত্তিজনিত সমস্যায় জটিলতা বৃদ্ধি। দূরবর্তীস্থলে থাকায় প্রিয়জনের বিষয়ে মানসিক উদ্বেগ।

বৃশ্চিক রাশি: কর্মক্ষেত্রে নতুন আশা আশঙ্কায় সূচনার মাধ্যমে সপ্তাহের শুরু হওয়ার যোগ। প্রিয়জনের শরীর স্বাস্থ্য বিষয়ে অত্যাধিক দুশ্চিন্তার কারণ দেখা যাচ্ছে না। সপ্তাহের মধ্যভাগে বিদ্যা শিক্ষায় সাফল্য। প্রেম পরিণয়ে বিতর্কিত বিষয়ে মৌনব্রত নেওয়ায় বুদ্ধিমানের কাজ। সপ্তাহের অন্তভাগে ব্যবসা বাণিজ্যের উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি। গুরুজনের শারীরিক আরোগ্য। রাজনৈতিক পদাধিকারীদের পদ ও দায়িত্ব বৃদ্ধি।

ধনু রাশি: সপ্তাহের শুরুতেই ঋণ পরিশোধে মানসিক ভার লাঘব। শিল্পী, কলাকুশলীদের নতুন কর্মদ্যমে আশা আকাঙ্খার সঞ্চার। সপ্তাহের মধ্যভাগে ব্যবসা বাণিজ্যের অগ্রগতি। মামলা মোকদ্দমায় সন্তোষজনক ফল প্রাপ্তি। সপ্তাহের অন্তভাগে অত্যাধিক পরিশ্রমে শারীরিক ও মানসিক ক্লান্তি। স্বামী-স্ত্রী পরিবারের প্রয়োজনীয় কর্তব্য সম্পাদনে মানসিক প্রফুল্লতা বজায়। গুরুজন স্থানীয় ব্যক্তির শরীর স্বাস্থ্যের উল্লেখযোগ্য অগ্রগতিতে মানসিক ভার লাঘব।

মকর রাশি: সপ্তাহটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। অনেকদিনের জমে থাকা কর্মসম্পাদনের সুযোগে সদব্যবহার করা প্রয়োজন। উপস্থিত বুদ্ধিমত্তার মাধ্যমে উর্ধতন কতৃপক্ষের সুনজরে পরার সম্ভাবনা। সপ্তাহের মধ্যভাগে ব্যবসাক্ষেত্রে ঋণ বৃদ্ধি। পাওনাদারদের তাগদায় সমস্যা সংকট। সপ্তাহের অন্তভাগে সন্তানের বিদ্যাশিক্ষায় মনোসংযোগ বৃদ্ধিতে নতুন আশা আকাঙ্খার সূচনা। ঝুঁকি রয়েছে এইরকম দূর যাত্রা এখন না করায় শ্রেয়।

কুম্ভ রাশি: নতুন কর্মদ্যমের মাধ্যমে সপ্তাহের শুভ সূচনা। ব্যবসাক্ষেত্রে আয় উপার্জন বৃদ্ধি। সপ্তাহের মধ্যভাগে কায়িক পরিশ্রমে অত্যাধিক ক্লান্তি। প্রিয়জনের শরীর স্বাস্থ্যের বিষয়ে দুশ্চিন্তা বৃদ্ধি। প্রেম পরিণয়ে অহেতুক জটিলতা বৃদ্ধি। সপ্তাহের অন্তভাগে কর্মক্ষেত্রে জটিলতার সাময়িক সুরাহা। দাম্পত্য সমস্যায় খুব একটা উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি দেখা যাচ্ছে না। উচ্চশিক্ষায় গবেষণামূলক কাজে স্বীকৃতির অভাবে হতাশা বৃদ্ধি।

মীন রাশি: সপ্তাহের প্রথম দিকেই যাবতীয় গুরুত্বপূর্ন সিদ্ধান্ত নিয়ে নেওয়াই দূরদর্শিতার পরিচায়ক হতে পারে। অত্যধিক ঝুঁকি রয়েছে এইরকম ব্যবসায় লগ্নি না করায় শ্রেয়। সপ্তাহের মধ্যভাগে পুরোনো রোগ ব্যাধির কিছুটা উপশম। পরিবারের প্রতি দায়বদ্ধতা পালনে আরও দায়িত্ববান হওয়া প্রয়োজন। সপ্তাহের অন্তভাগে বিদ্যাশিক্ষা গবেষণামূলক কাজে সাফল্য বৃদ্ধি। যোগ, প্রাণায়মের মাধ্যমে শরীর স্বাস্থ্যের প্রভূত উন্নতিতে মানসিক বল বৃদ্ধি।


This is complete bengali rashifal. Plesae Share with everyone. 
এই সপ্তাহের রাশিফল - ১৪ই জুন থেকে ২০শে জুন এই সপ্তাহের রাশিফল - ১৪ই জুন থেকে ২০শে জুন  Reviewed by WisdomApps on June 14, 2020 Rating: 5
Powered by Blogger.