Featured Posts

[Travel][feat1]

সাপ্তাহিক রাশিফল ১১ই এপ্রিল থেকে ১৭ ই এপ্রিল ২০২১

এপ্রিল ১১, ২০২১

                  


এই সপ্তাহের সব রাশির রাশিফল 

মায়াপুর ঘুরতে যেতে চান ? এই ভিডিওটা অবশ্যই দেখবেন - YouTube

মেষঃ এই সপ্তাহের শুরুতে এই রাশির জাতক/জাতিকা নতুন উদ্দ্যম , উদ্দীপনা অনুভব করবেন। সপ্তাহের প্রথম দিনেই মানসিক প্রফুল্লতা বৃদ্ধি পাবে। ধীরে ধীরে কাজেকর্মে অগ্রগতির সূচনা হবে। সপ্তাহের মধ্যভাগে মানসিক সংশয় , উৎকণ্ঠার সাময়িক অবসান। দাম্পত্য শান্তি। শরীর-স্বাস্থ্যের উন্নতি, মানসিক বল বৃদ্ধি ৷ সপ্তাহের অন্তভাগে ব্যাবসায়িক ঋণ শোধ । আত্মীয়-পরিজন-গুরুজন স্থানীয় ব্যক্তির স্বাস্থ্যোন্নতি । প্রেম-পরিণয়ে অতিরিক্ত সংবেদনশীলতা পরিতাজ্য। আয়-ব্যয়ের মধ্যে সমতা বিধান জরুরি ।

হকার থেকে হলেন পৃথিবীর সেরা বিজ্ঞানী । পড়ে নিন আলভা এডিসন এর আশ্চর্য জীবনী । 

বৃষঃ সপ্তাহের শুরুতে আধ্যাত্মিক বিকাশে মানসিক বলবৃদ্ধি।  ঈশ্বরের কৃপায় দীর্ঘদিনের  শারীরিক ব্যথা-বেদনার আংশিক উপশম। সপ্তাহের মধ্যভাগে ঋণশোধ। অর্থিক অবস্থার কিছুটা উন্নতি। বিদ্যার্থীদের পক্ষে সপ্তাহের চতুর্থ দিন অত্যন্ত ফলপ্রসূ। ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে উৎকণ্ঠা বৃদ্ধি পেলেও অতিরিক্ত দুশ্চিন্তার কোনও প্রয়ােজন নাই। সপ্তাহের অন্তভাগে সাংসারিক শান্তি । প্রচেষ্টায় সাফল্য। শরীর-স্বাস্থ্যের বিষয়ে সততা আবশ্যিক। শত্রুদমন। 

 মিথুনঃ  এত দুশ্চিন্তা কেন, ঐশ্বরিক কৃপায় এই সপ্তাহেই আপনার যাবতীয় উৎকণ্ঠা, উদ্বেগ থেকে অনেকটাই মুক্তি লাভ করবেন। সপ্তাহের শুরুতে আয়-উন্নতির যােগ পরিষ্কার। তবে ব্যায়ভাবও রয়েছে। আয়-ব্যয়ের মধ্যে সামঞ্জস্য বিধান অত্যন্ত জরুরি। সপ্তাহের মধ্যভাগেই শারীরিক অবস্থার অনেকটাই উন্নতি । ধর্মাচরণ, আধ্যাত্মিক শক্তির বিকাশে মনােবল বৃদ্ধি। সপ্তাহের অন্তভাগে দাম্পত্য সমস্যা কিছুটা মাথাচাড়া দিতে পারে। দ্রুত সামঞ্জস্য বিধান প্রয়ােজন। কর্মস্থানে নতুন উৎসাহে মানসিক প্রফুল্লতা বৃদ্ধি। 

☞ ঘরোয়া কিছু পদ্ধতি ব্যবহার করেই আটকানো যায় চুলপড়া , খুশকি ও পাকা চুল । জেনে নিন 

কর্কটঃ এই সপ্তাহটা কর্কট রাশির জাতক-জাতিকার পক্ষে শুভাশুভ ফল দেবে। সপ্তাহের শুরুতে প্রতিকূলতা বৃদ্ধি পাবে। অর্থচিন্তায় মানসিক উদ্বেগ বৃদ্ধি। সাংসারিক অশান্তিতে চিত্ত চাঞ্চল্য। সপ্তাহের মধ্যভাগ সন্তানের পক্ষে শুভ। ব্য-বৃদ্ধি যােগ থাকলেও অর্থের সংস্থান হয়ে যাবে। শারীরিক অবস্থার উল্লেখযােগ্য উন্নতি। সপ্তাহের শেষদিক তুলনামূলকভাবে শুভ। ঐশ্বরিক কৃপায় মানসিক পীড়া,উৎকণ্ঠার সাময়িক অবসান । 


কোলকাতার কাছাকাছি ৯ টি অসাধারন পিকনিক স্পটের সন্ধান জেনে নিন 

সিংহঃ  সপ্তাহের শুরুতে আর্থিক অবস্থার দীনতায় মানসিক অস্থিরতা বৃদ্ধি। তবে খুব একটা চিন্তার কারণ নেই। শুভাকাঙ্খী আত্মীয়, বন্ধুবর্গের  সহায়তায় যাবতীয় প্রতিকুলতায় জয়লাভ অবশ্যম্ভাবী। সপ্তাহের মধ্যভাগে গৃহশান্তি বৃদ্ধি। মানসিক প্রফুল্লতা বৃদ্ধি। যােগাচর্চা, সমস্যায় প্রাণায়ামে শারীরিক সুস্থতা বজায় থাকবে।  ঋণশােধ হবে | শক্রদমন হবে। সপ্তাহের অন্তভাগে আর্থিক সমস্যায় সাময়িক সুরাহা। মানসিক সন্তোষ বৃদ্ধি।

☞ বাজারে এসেছে ভেসপা কোম্পানীর ইলেক্ট্রিক স্কুটার , ১ বার চার্জ দিলে চলবে ১০০ কিমি দেখে নিন

কন্যাঃ ব্যবসায়িক মন্দায় সপ্তাহটা শুরু হলেও শারীরিক সুস্থতায় মনােবল বৃদ্ধি। কর্মে নতুন উদ্দীপনা শুভ যােগাযােগ। দাম্পত্য শান্তি। সপ্তাহের মধ্যভাগে ব্যবসায় কিছুটা অগ্রাতি। আর্থিক অবস্থা স্থিতিশীল। চাকুরিক্ষেত্রে অটকে থাকা বেতনে ছাড়পত্র। বিদ্যার্থীদের মনসংযােগে বাধা-বিপত্তি। সপ্তাহের অন্তভাগে উচ্চশিক্ষায় শুভ সংবাদ ও নতুন কর্মোদ্দীপনায় মানসিক বলবৃদ্ধি। সাংসারিক ক্ষেত্রে মনমালিন্যের অবসানে মানসিক সন্তোষ বৃদ্ধি।


তুলাঃ তুলা রাশির জাতক/ জাতিকাদের ক্ষেত্রে এই সপ্তাহটা বিশেষ অর্থবহ। সপ্তাহের প্রথম দিকে সম্পত্তিজনিত বিবাদ পুনরায় মাথাচাড়া দিতে পারে। পুরানাে মামলা-মােকদ্দমা, পুলিসি ঝামেলায় মানসিক অস্থিরতা বন্ধি। সপ্তাহের মধ্যভাগে স্থির সিদ্ধান্তে জটিল সমস্যার আপাত সমাধান। বন্ধুস্থানীয় ব্যক্তির সহযােগিতায় আইনি সমস্যায় আপাত স্বস্তি। সপ্তাহের অন্তভগ তুলনামূলকভাবে বেশ শুভ। অর্থচিন্তার অবসান। শরীর-স্বাস্থ্যের আশ্চর্যজনক উন্নতি। ঈশ্বরের কৃপায় মানসিক অস্থির অবসান। 


☞ জানেন কি দাঁতের পোকা বলে কিছু হয়না ? আর দাঁত ভালো রাখার সিক্রেট জেনে নিন 

বৃশ্চিকঃ সপ্তাহের শুরুতেই  কর্মক্ষেত্রের অস্থিরতায় মানসিক উদ্বেগ বৃদ্ধি । প্রিয়জন/ শুভাকাক্ষী ব্যক্তিবর্গের সহযােগিতায় নতুন কর্মোদ্যোগ শুরু করা অভিপ্রেয়। ঈশ্বরের কৃপায়, সপ্তাহের মধ্যভাগে কর্মস্থানে নতুন আশার আলাে। অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে স্থিতাবস্থা। নতুন ব্যবসার সন্ধানে আশার আলাে। শারীরিক অবস্থার তাৎপর্যমণ্ডিত অগ্রগতি। সপ্তাহের অন্তভাগে গুরুজন স্থানীয় ব্যক্তির স্বাস্থ্যোন্নতি। দাম্পত্য সমস্যায় ভুল বােঝাবুঝির অবসান। সন্তানের বিদ্যার্জনে একাগ্রতা বৃদ্ধিতে মানসিক সন্তোষ।




ধনুঃ অর্থোপার্জনে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতিতে সপ্তাহের শুরুতে কর্মোদ্দীপনা বৃদ্ধি। প্রেম-পরিণয়ে ভুল বােঝাবুঝির অবসান। ব্যবসাক্ষেত্রে শুভ যােগাযোগ। সপ্তাহের মধ্যভাগে সম্পত্তিজনিত সমস্যায় মানসিক পীড়া। আত্মীয়-বন্ধুর আচরণে মতানৈক্য ৷ আধ্যাত্মিক শক্তির বিকাশে শারীরিক অবস্থার উল্লেখযােগ্য উন্নতি। সপ্তাহের অন্তভাগে সাংসারিক সমস্যায় মানসিক অস্থিরতা বৃদ্ধি। গুরুজন স্থানীয় ব্যক্তির শারীরিক অবস্থার সন্তোষজনক উন্নতি। মানসিক প্রফুল্লতা বৃদ্ধি। 



মকরঃ সপ্তাহের শুরুর দিকে শুভচিন্তার উদ্রেক। অর্থনৈতিক ক্ষেত্র মােটামুটি স্থিতিশীল। দাম্পত্য সন্তোষ বৃদ্ধি। বিদ্যার্জনে বাধা-বিপত্তির অবসান। সপ্তাহের মধ্যভাগে প্রেম-পরিণয়ে। মানসিক প্রফুল্লতা বৃদ্ধি। যাবতীয় মতানৈক্যের অবসান। ঋণশোধ । সপ্তাহের অন্তভাগে কর্মক্ষেত্রে কর্মপ্রতিভার স্বীকৃতি। উর্ধতন কর্তৃপক্ষের অনুগ্রহে কর্মক্ষেত্রে উৎকণ্ঠার অবসান। স্বাস্থ্যের ব্যাপারে সতর্কতা পালন অত্যন্ত জরুরি। ব্যবসায়িক অগ্রগতি।

☞ লোকনাথ বাবার কিছু বানী আপনার জীবনে আশার আলো আনতে পারে । একটু সময় দিয়ে পড়ে নিন । 


কুম্ভঃ  ব্যবসায়িক চিন্তায় নতুন সমাধানে আশার আলাে। সপ্তাহের প্রথমদিকে নতুন কর্ম উদ্দীপনা । বিদ্যাস্থানে বাধা-বিপত্তি। প্রেমজ ব্যথা-বেদনা। |  সপ্তাহের মধ্যভাগে গুপ্ত শত্রুতার যথােপযুক্ত জবাব। গৃহশান্তি বজায় রাথা অত্যন্ত জরুরি। শারীরিক সতর্কতা আবশ্যক। সপ্তাহের অন্তভাগে আর্থিক সমস্যায় কিছুটা সুরাহা। শরীর-স্বাস্থ্যের উন্নতিতে মানসিক উদ্বেগের আপাত অবসান। প্রেম-পরিণয়ে মানসিক উৎফুল্লতা বৃদ্ধি। 

☞ বাজার থেকে পচা টম্যাটোর সস কিনে খাওয়ার থেকে বাড়িতে সস বানানোর এই পদ্ধতি জেনে নিন 

মীনঃ সপ্তাহের শুরুতে শারীরিক অবস্থার উল্লেখযােগ্য অগ্রগতি। অর্থনৈতিক স্থিতাবস্থা জারি। দাম্পত্য-শান্তি বিধান। সপ্তাহের মধ্যভাগে বিকল্প কর্মচিন্তায় নতুন পথের সন্ধান। সংসারে মানসিক দূরত্বের অবসান। বিদ্যাস্থানে উল্লেখযােগ্য উন্নতি।  ব্যয়বৃদ্ধি। সপ্তাহের অন্তভাগে গৃহজ সমস্যা বৃদ্ধি। আত্মীয়-পরিজনের উদাসীন আচরণে মানসিক পীড়া। 


☞ জানেন কি দু'বেলা খাবার জুটতো না হোমিওপ্যাথির জনক হ্যানিম্যানের ? পড়ুন জীবনী 


সাপ্তাহিক রাশিফল ১১ই এপ্রিল থেকে ১৭ ই এপ্রিল ২০২১ সাপ্তাহিক রাশিফল ১১ই এপ্রিল থেকে ১৭ ই এপ্রিল ২০২১ Reviewed by WisdomApps on এপ্রিল ১১, ২০২১ Rating: 5

অনুপ্রেরণাদায়ক অসাধারণ ৮ টি বানী - whatsapp status

এপ্রিল ০৬, ২০২১

 

inspirational_quotes_1


inspirational_quotes_3


inspirational_quotes_8


inspirational_quotes_4





inspirational_quotes_2



inspirational_quotes_5


inspirational_quotes_7

অনুপ্রেরণাদায়ক অসাধারণ ৮ টি বানী - whatsapp status অনুপ্রেরণাদায়ক অসাধারণ ৮ টি বানী - whatsapp status Reviewed by WisdomApps on এপ্রিল ০৬, ২০২১ Rating: 5

সাপ্তাহিক রাশিফল ০৪ই এপ্রিল থেকে ১০ই এপ্রিল ২০২১

এপ্রিল ০৪, ২০২১

                 


এই সপ্তাহের সব রাশির রাশিফল 

মায়াপুর ঘুরতে যেতে চান ? এই ভিডিওটা অবশ্যই দেখবেন - YouTube

মেষঃ সপ্তাহের প্রথমদিকেই হাতে বেশ কিছু অর্থপ্রাপ্তির যােগাযােগ রয়েছে। আধ্যাত্মিক কৃপায় শরীর স্বাস্থ্যের উন্নতি, মানসিক বলবৃদ্ধি। সপ্তাহের মধ্যভাগে পারিবারিক সমস্যার আপাত সমাধানে মানসিক ভার লাঘব। সন্তানের বিদ্যাশিক্ষায় ক্রমিক অমনােযোগিতা দুশ্চিন্তার কারণ হতে পারে। শেয়ার, ফাটকায় অত্যধিক বিনিয়ােগ না করাই শ্রেয়। সপ্তাহের অন্তভাগে ব্যবসায়িক যােগাযােগ বৃদ্ধি। চাকুরিজীবিদের দয়িত্ব বৃদ্ধি ও কর্মসূত্রে দূরযাত্রার যোগাযােগ। প্রেম-পরিনয়ে নৈরাশ্য।

হকার থেকে হলেন পৃথিবীর সেরা বিজ্ঞানী । পড়ে নিন আলভা এডিসন এর আশ্চর্য জীবনী । 

বৃষঃ  সপ্তাহের প্রথম ভাগে অত্যাবশ্যকীয় কাজগুলি করে নেওয়া দরকার। বলবান শত্রুর সঙ্গে আপস-মীমাংসা করে নেওয়াই সমীচিন। চাকুরিক্ষেত্রে অস্থিরতা বৃদ্ধি। সপ্তাহের মধ্যভাগে ব্যাবসায়িক মন্দা। পাওনাদারের তাগাদায় বিব্রত হওয়ার যােগাযােগ। শিল্পী, কলাকুশলীদের পক্ষে সপ্তাহের শেষটা বেশ আশাপ্রদ। দাম্পত্য জীবনে যাবতীয় ভুল বােঝাবুঝির অবসান। প্রেম-পরিণয়ে আশার আলাে। প্রিয়জনের শরীর-স্বাস্থ্য নিয়ে দুশ্চিন্তা বৃদ্ধি। বিবাহযােগ্য সন্তানের বিবাহ বিষয়ক যােগাযােগ। 

 মিথুনঃ  আলোচ্য সপ্তাহের প্রথমভাগে জাতক/জাতিকার বাতজ দেদনা , শিরঃপীড়া, অ্যাসিডিটির সমস্যা। জীবাণু সাগর আশঙ্কা দেখা গেলেও তা নিয়ে খুব বেশি উতলা হওয়ার সেরকম কোনও কারণ নেই। সুচিকিৎসা, যোগ, প্রাণায়াম ও ঐশ্বরিক কৃপায় সপ্তাহের মধ্যভাগেই শারীরিক আরােগের সম্ভাবনা প্রবল। বৈষয়িক সম্পত্তি নিয়ে পারিবারিক মতবিরােধের সম্ভাবনা থাকছে। প্রেম-পরিণয়ে নৈরাশ্য মুক্তি। সপ্তাহের অন্তভাগে স্বামী স্ত্রীর সম্পর্কের অবনতি। চাকুরিক্ষেত্রে অস্থিরতা বহাল থাকায় হতাশা বৃদ্ধি। বিকল্প জীবিকা/অর্থোপাজনে মনােনিবেশ করা প্রয়োজন ।

☞ ঘরোয়া কিছু পদ্ধতি ব্যবহার করেই আটকানো যায় চুলপড়া , খুশকি ও পাকা চুল । জেনে নিন 

কর্কটঃ এই সপ্তাহের গোড়ার দিকে কর্মক্ষেত্রে দায়িত্ব বৃদ্ধি হলেও আশানুরূপ অর্থকারী যােগাযােগ দেখা যাচ্ছে না। তবে ব্যবসা ক্ষেত্রে ক্রমিক অগ্রগতির যোগ বেশ স্পস্ট । সপ্তাহের মধ্যভাগে উচ্চতর বিদ্যার্জন ও গবেষণামূলক কাজে সফলতা প্রাপ্তি । পারিবারিক ক্ষেত্রে গৃহ সংস্কার , ক্রয় বিক্রয় নিয়ে মতবিরোধ । সপ্তাহের অন্তভাগে দাম্পত্য জীবনে মতানৈক্য , বাক বিতন্ডায় পারিবারিক শান্তি ব্যাহত হতে পারে । স্বনিযুক্তি প্রকল্পে যুক্ত ব্যাক্তিদের আয়-উন্নতি বৃদ্ধি ।  

কোলকাতার কাছাকাছি ৯ টি অসাধারন পিকনিক স্পটের সন্ধান জেনে নিন 

সিংহঃ এই সপ্তাহের প্রথমদিকে ব্যবসায়িক যোগাযোগ আয়-উন্নতি বৃদ্ধির শুভ যােগ রয়েছে। সুপরিকল্পিত পথে কর্মক্ষেত্রে দায়িত্ব ও সুনাম বৃদ্ধি। সপ্তাহের মধ্যভাগে উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত সম্পতি নিয়ে স্বজন বিবােধ। শিল্পী কলাকুশলী ব্যক্তিদের যোগাযােগ/আয় -উন্নতি বৃদ্ধি। সপ্তাহের অন্তভাগে সন্তানের বিদ্যাশিক্ষায় ক্রমিক অবনতি দুশ্চিন্তা বৃদ্ধির প্রধান কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে ।  শেয়ার, ফাটকা, লটারিতে অধিক বিনিয়োগ না করাই সমীচীন। 

☞ বাজারে এসেছে ভেসপা কোম্পানীর ইলেক্ট্রিক স্কুটার , ১ বার চার্জ দিলে চলবে ১০০ কিমি দেখে নিন

কন্যাঃ সপ্তাহের গােড়ার দিকে কর্মক্ষেত্রে অস্থিরতা বৃদ্ধি সত্ত্বেও উপস্থিত বুদ্ধিমত্তার জোরে উর্ধতন কর্তৃপক্ষের সুনজরে আসতে পারেন। বাবসায়িক ক্ষেত্র মােটামুটিভাবে শুভই বলা চলে। সপ্তাহের মধ্যভায়ে কোন নিকট আত্মীয়ের বিরূপতায় সম্পত্তি ক্রয় / বিক্রয়ে স্থির সিদ্ধান্তে আসা যাবে না। সপ্তাহের অন্তভাগে উচ্চশিক্ষা ও গবেষণামূলক কার্যে সফলতা প্রাপ্তি। স্বামী- স্ত্রীর সম্পর্কের উন্নতি।


তুলাঃ এই সপ্তাহের প্রথমভাগে বিকল্প কর্মানুসন্ধানে শুভ ফল পাওয়া যেতে পারে। ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে আর বেশি ঋণ না করাই সমীচীন। সপ্তাহের মধ্য ভাগে পারিবারিক সম্পত্তি ক্রয় বিক্রয়ে স্বজনবিরােধ। প্রেম পরিণয়ে বিতর্ক-বিবাদ এড়িয়ে চলা প্রয়ােজন। সপ্তাহের অন্তভাগে বিবাহযােগ্য সন্তানের বিবাহ বিষয়ে আরও উদ্যোগী হওয়া প্রয়ােজন। বলবান শক্রর সঙ্গে আপাতত আপস-মীমাংসা করে নেওয়াই শ্রেয় । 

☞ জানেন কি দাঁতের পোকা বলে কিছু হয়না ? আর দাঁত ভালো রাখার সিক্রেট জেনে নিন 

বৃশ্চিকঃ এই রাশির জাতক/ জাতিকাদের পক্ষে সপ্তাহের প্রথম ভাগটা বেশ আশাপ্রদ। কর্মক্ষেত্রে পদোন্নতি ও দায়িত্ববৃদ্ধি। ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে আয়-উন্নতি বৃদ্ধির যােগ সুস্পষ্ট। সপ্তাহের মধ্যভাগে বিকল্প কর্মানুসন্ধানে সফলতা প্রাপ্তি। দাম্পত্য জীবনে বাকবিতণ্ডা ও মতবিরােধ এড়িয়ে চলা প্রয়ােজন। সপ্তাহের অন্তভাগে প্রিয়জনের শরীর স্বাস্থ্যের বিষয়ে সতর্কতা প্রয়ােজন।  সন্তানের বিদ্যাশিক্ষায় সফলতা প্রাপ্তি । মানসিক ভার লাঘব । প্রেম পরিনয়ে অত্যাধিক আবেগ বর্জনীয় । 



ধনুঃ সপ্তাহের প্রথম ভাগে কর্মকুশলতার স্বীকৃতি প্রাপ্তিতে কর্মক্ষেত্রে প্রভাব প্রতিপত্তি বৃদ্ধি। সুচিকিৎসা ও ঐশ্বরিক কৃপায় প্রিয়জনের শরীর স্বাস্থ্যের উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি । সপ্তাহের মধ্যভাগে প্রেম পরিনয়ে ভুল বোঝাবুঝির অবসান , মানসিক প্রফুল্লতা বৃদ্ধি । সপ্তাহের অন্তভাগে পারিবারিক সম্পত্তি নিয়ে স্বজনবিরােধ তিক্ততার পর্যায়ে যেতে পারে । প্রয়োজনে আইনি পরামর্শ নিয়ে রাখা দরকার হতে পারে । সন্তানের বিদ্যাশিক্ষায় উল্লেখযোগ্য কৃতিত্ব । 

মকরঃ শুভ সংকল্পের মাধ্যমে সপ্তাহটা শুরু করুন। অনেক দিনের আটকে থাকা জরুরি কাজগুলি সপ্তাহের প্রথমদিকেই হয়ে যেতে পারে। সপ্তাহের মধ্যভাগে গুরুজনস্থানীয় ব্যক্তির শরীর-স্বাস্থ্য বিষয়ে সতর্কতা প্রয়ােজন। সন্তানের বিদ্যাশিক্ষায় ক্রমিক অমনােযােগিতায় দুশ্চিন্তা বৃদ্ধি। সপ্তাহের অন্তভাগে প্রেম -পরিণয়ে নৈরাশ্য বৃদ্ধি। দাম্পত্য জীবনে তৃতীয় পক্ষের প্রভাব পরিহার করে চলা প্রয়ােজন। শেয়ার, ফাটকায় বেশ কিছু লাভের সন্ধান পেতে পারেন।

☞ লোকনাথ বাবার কিছু বানী আপনার জীবনে আশার আলো আনতে পারে । একটু সময় দিয়ে পড়ে নিন । 


কুম্ভঃ সপ্তাহের প্রথমদিকে প্রিয়জনের শরীর-স্বাস্থ্যের উলেখযোগ্য অগ্রগতি। ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে বেশ খানিকটা লাভের সন্ধান পেতে পারেন। সপ্তাহের মধ্যভাগে বিবাহযােগ্য সন্তানের বিবাহ বিষয়ক শুভ যোগাযােগ। পাওনাদারের তাগাদায় সামাজিক সম্মানহানি। সপ্তাহের অন্তভাগে কর্মক্ষেত্রে কর্মকুশলতার স্বীকৃতি পেলেও আর্থিক প্রাপ্তি আশাপ্রদ নয়। দাম্পত্য জীবনে অহেতুক আবেগ, আশা-প্রত্যাশা এড়িয়ে চলাই শ্রেয়। 

☞ বাজার থেকে পচা টম্যাটোর সস কিনে খাওয়ার থেকে বাড়িতে সস বানানোর এই পদ্ধতি জেনে নিন 

মীনঃ আলােচ্য সপ্তাহের গােড়ার দিকটা এই রাশির জাতক/জাতিকাদের পক্ষে বেশ শুভ। আধ্যাত্মিক কৃপায় শরীর-স্বাস্থ্যের উল্লেখযােগ্য উন্নতি। সপ্তাহের মধ্যভাগে ব্যবসায়িক আয়-উপার্জন বৃদ্ধি।  পারিবারিক বিবাদের আপাত সমাধান। পারিবারিক বিবাদের আপাত সমাধান ।  সপ্তাহের অন্তভাগে উচ্চশিক্ষা ও গবেষণামূলক কাজে সফলতা প্রাপ্তি । কর্মসূত্রে দূরযাত্রা আপাতত এড়িয়ে যেতে পারলে ভালো হয় । 

☞ জানেন কি দু'বেলা খাবার জুটতো না হোমিওপ্যাথির জনক হ্যানিম্যানের ? পড়ুন জীবনী 


সাপ্তাহিক রাশিফল ০৪ই এপ্রিল থেকে ১০ই এপ্রিল ২০২১ সাপ্তাহিক রাশিফল ০৪ই এপ্রিল থেকে ১০ই এপ্রিল ২০২১ Reviewed by WisdomApps on এপ্রিল ০৪, ২০২১ Rating: 5

মায়াপুর ইসকন ও আশেপাশের সব মন্দির ট্রাভেল গাইড - Complete Mayapur ISKCON temple travel guide

মার্চ ২৬, ২০২১

এখানে আপনি বিস্তারিত ভাবে জানতে পারবেন কিভাবে মায়াপুর যাবেন । কি কি দেখবেন ? কোথায় থাকবেন এবং আরো অন্যান্য খুঁটিনাটি ব্যাপার ।

মায়াপুর ভ্রমণের উপর আমাদের বিস্তারিত ভিডিও দেখতে পারেন এখানে ক্লিক করে । 

এবার স্টেপ বাই স্টেপ জেনে নিন - 

মায়াপুর আসবেন কিভাবে ? 

ট্রেনে পথে এলে শিয়ালদহ থেকে কৃষ্ণনগর স্টেশন  , সেখান থেকে অটো বা ম্যাজিক গাড়ি ধরে স্বরুপগঞ্জের ঘাট । এই ঘাট থেকে নৌকায় নদী পার  করলে প্রবেশ করবেন মায়াপুরে । এটাই সবথেকে প্রচলিত পথ । অটোর ভাড়া পরবে  মাথাপিছু ২৫টাকা , নৌকা ভাড়া ২ টাকা ।  

হাওড়া থেকে ট্রেনে এলে বিষ্ণুপ্রিয়া বা নবদ্বীপ ধাম স্টেশনে নেমে নবদ্বীপ থেকে নৌকায় চড়ে মায়াপুরে আসা যায় । 

আর, বাসে বা প্রাইভেট গাড়িতে সহজেই মায়াপুর আসা যায় । কোলকাতার ধর্মতলা থেকে বাসে করে সরাসরি মায়াপুরে আসা যায় । নিজস্ব গাড়িতে এলে ৩৪ নং জাতীয় সড়ক ধরে বহরমপুর যাওয়ার রাস্তায় বাহাদুরপুর পার করার পর এই মোড়টি দেখতে পারবেন । এখান থেকে কয়েক কিমি জার্নি করলেই মায়াপুর ইস্কন মন্দিরের সামনে পৌঁছে যাবেন । যারা নদী পার করতে চান না তাদের জন্য এই পথটিই সঠিক । 


এবার জেনে নিন মায়াপুরে কি কি দেখবেন ? 

শ্রী চৈতন্য মহাপ্রভুর পদধূলিতে ধন্য এই মায়াপুর ।  নদীয়া জেলার মায়াপুরের প্রাচীন নাম ছিল মিয়াপুর , এখানে এখনো হাজারো হিন্দু মুসলমান একই বৃন্তে দুটি কুসুমের মতো একসাথে বসবাস করেন ।  তাই পথ চলতে চলতে রাস্তার আসেপাশে  অজস্র মন্দির ও আশ্রমের সাথে বেশ কিছু মসজিদও দেখতে পাবেন ।  তবে মায়াপুরের প্রধান আকর্ষণ ইসকন মন্দির । বাসে বা নিজস্ব গাড়িতে এলে ইস্কনের সামনেই গাড়ি থেকে নামতে পারবেন । আমরা স্কুটারে গেছিলাম । ইস্কনের ভিতরেই দু'চাকা ও চার চাকা পার্ক করার জায়গা আছে । সামান্য ১০ টাকার বিনিময়ে এখানে বাইক রেখে প্রবেশ করলাম ইস্কন মন্দির প্রাঙ্গনে । ইস্কনের ৬ লক্ষ স্কয়ার ফুটের এই বিশাল এলাকার মধ্যে তৈরি হচ্ছে পৃথিবীর সবথেকে বড় বিষ্ণু মন্দির , আছে চন্দ্রোদয় মন্দির আর শ্রীল প্রভুপাদের সমাধি মন্দির । 


আপনি ইস্কনের মেইন গেট দিয়ে প্রবেশ করলে সবার আগে এই মন্দিরটি দেখতে পাবেন । এটি হল শ্রীল প্রভুপাদের সমাধী মন্দির । এখানে প্রবেশ করার জন্য উলটো দিকের জুতো রাখার কাউন্টারে আগে যেতে হবে । এই কাউন্টার থেকে বস্তা নিয়ে তার ভিতরে জুতো রেখে জমা দিলে আপনাকে একটি কুপন নাম্বার দেবে , সেই কুপনটিতে কত নাম্বার লেখা আছে ভালো করে দেখে নেবেন , তারপর সেটিকে জত্ন করে রেখে দেবেন । কুপন হারিয়ে ফেললে এবং কুপনের নাম্বার ভুলে গেলে জুতো নেওয়ার সময় অনেক ঝামেলা হয়ে যায় তাই অবশ্যই এখানে সাবধানতা অবলম্বন করবেন , মনে রাখবেন জুতো রাখার বা নেওয়ার জন্য কোনো টাকা লাগে না । জুতো রাখার কাউন্টারের পাশেই আছে মোবাইল রাখার কাউন্টার । এখানে মোবাইল , ক্যামেরা সব জমা রাখতে হবে । এখানে ১০টাকা লাগবে । এখানেও একটা কুপন দেবে , কুপন দেওয়ার সময় আপনার নাম লিখে নেবে । এই কুপোনটাকেও খুব সাবধানে রাখবেন । 

সব কিছু জমা দিয়ে রেলিং ধরে লাইন দিয়ে মন্দিরে প্রবেশ করতে হবে । মন্দিরে প্রবেশের আগে আপনার সিকিউরিটি চেকাপ হবে । 



 ভিতরে অনেক কিছু দেখার আছে । মন্দিরের গ্রাউন্ড ফ্লোরে প্রভুপাদের একটি পিতলের মুরতি আছে , আর সম্পূর্ণ ছাদে কাঁচের কারুকাজের মধ্যে দিয়ে মহাপ্রভুর জীবনের অনেক ঘটনা বর্ণনা করা আছে । এই সুত্রে জানিয়ে রাখি শ্রীল প্রভুপাদের প্রকৃত নাম শ্রী অভয়চরন দে , এবং ওনার জন্ম কোলকাতার এক কৃষ্ণ ভক্ত পরিবারে । ওনার ৬৯ বছর বয়সে প্রথম আমেরিকা গিয়ে কৃষ্ণ কনশাশ্নেশ প্রচার করা শুরু করেন এবং পরবর্তী মাত্র ১২ বছরের সময়কালে সারা পৃথিবীজুড়ে ভগবান কৃষ্ণের মাহাত্ম্য প্রচারে সমর্থ হন । তাঁর মৃত্যুর পর শিশ্যদের অপার পরিশ্রম এবং লক্ষ লক্ষ কৃষ্ণভক্তদের সাহায্যে আজ সারা বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দেশে  একাধিক কৃষ্ণ মন্দির প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ।  এই মন্দিরটি বিশ্বজয়ী ভক্তিবেদান্ত স্বামী শ্রীল প্রভুপাদের সমাধি মন্দির । এর দ্বিতলে প্রভুপাদের জীবন ও কাজের উপর একটি গ্যালারী বানানো আছে , অবশ্যই সময় নিয়ে দেখবেন । সিড়ি বেয়ে মন্দিরের ছাদে চড়া যায় । সেখান থেকে দৃশ্য অসম্ভব সুন্দর । এর ভিতরে ফটো তোলা বা ভিডিও করা খুব কঠোর ভাবে নিশিদ্ধ ।

সমাধি মন্দির থেকে বেরিয়ে এসে পাশেই  ইসকনের অন্যান্য সাধু সন্তদের সমাধি ক্ষেত্র দেখতে পাবেন । দয়া করে চটি জুতো পড়ে এখানে প্রবেশ করবেন না । 

এটি দেখে নিয়ে তারপর আপনি জুতোর কাউন্টারে কুপন জমা দিয়ে জুতো এবং মোবাইল কাউন্টার থেকে মোবাইল সংগ্রহ করে মেইন মন্দির অর্থাৎ চন্দ্রোদয় মন্দিরের দিকে যেতে পারেন । 


এই হলো চন্দ্রোদয় মন্দির । এর পাশেই আরেকটি জুতো ও মোবাইল কাউন্টার দেখতে পাবেন , আগের মতোই জুতো ও মোবাইল জমা দিয়ে মেইন মন্দিরে প্রবেশ করুন । আগের মন্দিরের মতোই এখানেও সিকিউরিটি চেকাপ হবে । মন্দিরে প্রবেশ করে একপাশে অসাধারন রাধাকৃষ্ণ বিগ্রহ ও  অন্যপাশে গৌর নিতাই বিগ্রহ দেখতে পাবেন । এছাড়াও নৃসিংহ দেবের মূর্তি ও প্রভুপাদ শ্রীলের একটি ভব্য মূর্তি দেখতে পারবেন । মন্দিরের ভিতরের শীতলতা আপনার প্রান জুড়িয়ে দেবে নিশ্চিত । মন্দির সংলগ্ন কাউন্টার থেকে ভোগ নিবেদনের জাবতীয় সামগ্রী পেয়ে যাবেন । আমরা ইসকন গেলেই এখান থেকে তিন চার রকমের কেক কিনি , সম্পূর্ণ নিরামিশ এমন সুস্বাদু কেক আর কোথাও পাবেন না । অবশ্যই কিনবেন ।  

Timing of ISKCON Main mandir: 

এই মন্দির ভোর ৪-৩০ থেকে ৫টা৩০ পর্যন্ত খোলা হয়  । এই সময় মঙ্গল আরতি হয় , এরপর সকাল ৫-৩০ থেকে ৭ টা পর্যন্ত বন্ধ থাকে । সকাল ৭টায় আবার খোলা হয় , তখন দর্শন আরতী হয় , সকাল ৮টায় ভাগবত পাঠ হয় , ৮টা ৩০সে ধুপ আরতি হয় । এই সময় মন্দির খোলা থাকে । ঠিক ১১টা ৪৫সে ভোগ নিবেদন হয় আর ১২টায় ভোগ আরতি হয় ।  তারপর দুপুর ১ টার সময় মন্দির বন্ধ করে দেওয়া হয় ।   দুপুর ১টা থেকে বিকাল ৪ টে পর্যন্ত মন্দির বন্ধ থাকে । ৪টের সময় আবার মন্দির খোলা হয় , এই সময় প্রথমে ধুপ আরতি হয় , তারপর ৬টার সময় সন্ধ্যা আরতী ও ৭টা ৩০শে  ভাগবতগীতা পাঠ ও ৮টা ১৫ তে শয়ন আরতী হয় । সন্ধ্যে ৮ঃ৩০ শে মন্দির সেদিনের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয় । 

আপনি যদি সব আরতী দেখতে চান তাহলে আপনাকে অন্তত ১ দিন ইস্কন মন্দিরে ঘর ভাড়া করে থাকতে হবে । কোথায় কিভাবে থাকবেন তার বিস্তারিত ভিডিওর শেষে পাবেন । 



ইস্কনের সবথেকে বড় আকর্ষণ হতে চলেছে বৈদিক মন্দির ।এই মন্দিরের ভিতরে ১০ হাজার ভক্ত একসাথে দাঁড়িয়ে নাম সঙ্কীর্তন করতে পারবেন । ভিতরে হবে বিশালাকার গ্যালারী ।     মন্দিরটি ৬০ একর জায়গা নিয়ে তৈরি হচ্ছে , এর বিশালতা ভিডিওতে বোঝানো সম্ভব নয় । মন্দিরের চুড়ায় যে চক্র গুলি দেখতে পাচ্ছেন সেগুলো সম্পূর্ণ সোনার তৈরি । এটা পৃথিবীর সবথেকে বড় বিষ্ণু মন্দির হতে চলেছে ।  এর  বাইরের দিকে যে নীল রঙ দেখতে পারছেন সেটা আসলে  নিল মার্বেল । মন্দিরের ভিতরে ও বাইরে যে সব সাদা মার্বেলের কাজ হচ্ছে সেগুলোর অনেকটাই ভিয়েতনাম থেকে আনা । এই মন্দির তৈরির মোট খরচের অনেকটাই দিচ্ছেন ফোরড কোম্পানীর মালিক মিস্টার আলফ্রেড ফোরড ।এর কারণ জানেন ?


আসলে ফোরড কোম্পানীর মালিকের স্ত্রী একজন  হিন্দু বাঙালি মেয়ে । তাঁর নাম মিসেস শরমিলা ভট্টাচার্য । ইনি নৈহাটির মেয়ে । এবং স্বামী স্ত্রী দুজনেই ইস্কনে দিক্ষিত । মন্দিরটি  এখনও তৈরি হচ্ছে  , আশা করা যায় ২০২২ সালের মধ্যে কাজ সম্পূর্ণ হয়ে যাবে , তখন এর উপর আলাদা একটা লেখা দেওয়া হবে । এখন এর ভিতরে প্রবেশ করার বা ভিডিও করার কোনো অনুমতি নেই । 





যাইহোক , চন্দ্রোদয় মন্দির যে সময় বন্ধ থাকে সেই সময় আপনি অন্যান্য জায়গা ঘুরে দেখতে পারেন ।  ইস্কনের ভিতরে আছে গোসালা  । পায়ে হেটে , টোটোয় চড়ে  বা বলদে টানা গাড়িতে চেপে আপনি গোসালায় যেতে পারেন । আমরা এই গাড়িতে চড়ে হেলতে দুলতে গোসালায় গেছিলাম ,মাথাপিছু ভাড়া মাত্র ১০টাকা ।  চলে আসুন গোসালায় ।দেখতে পাবেন কয়েক শত গরু , কিছু ষাঁড় নিয়ে বিশালাকার এক গোয়ালঘর । এখানে আপনি ১০১ টাকার বিনিময়ে ১ টি গরুকে ১ দিনের জন্য খাওয়াতে পারেন । আর বিনেপয়সায় তাদের আদর করতে পারেন । 

তবে গোসালায় এলে অবশ্যই এখান থেকে ক্ষীর দই খাবেন । এক ভাড় ক্ষীর দইয়ের দাম মাত্র ৩০ টাকা , খেয়ে মনে হবে অমৃত খাচ্ছেন । বাড়ি নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থাও আছে । 

এছাড়াও , ঘী , মাখন , দুধ , মধু অনেক কিছু এখানে বিক্রি হয় । ভেজাল হীন হওয়া সত্বেও দাম কম । নিসচিন্তে কিনে নিয়ে যেতে পারেন । 

গোসালা ছাড়াও ইস্কনের ভিতরেই অনেক ছোট খাটো জিনিস দেখার আছে । চন্দ্রোদয় মন্দিরের পিছনের দিকে মনোরম ফুলের বাগান , সুন্দর জলের ফোয়ারা দেখতে পাবেন । একটু এগিয়ে গেলে  নামচক্র দেখতে পাবেন , এখানে ১০৮ টি পাদানি আছে , প্রত্যেকটির উপর দাঁড়িয়ে মনে মনে একবার করে মহামন্ত্র জপ করে পরের পাদানীতে যেতে হয় । এভাবে চক্রটি সম্পূর্ণ করলে আপনি ১০৮ বার জপ সম্পূর্ণ করবেন । সময় থাকলে এটা অবশ্যই ট্রাই করবেন । 


মন্দিরের কাছেই মায়াপুর ডিজিটাল তারামন্ডলে শো দেখে নিতে পারেন , সকাল ১০-১০ থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত শো চলে । ২০ মিনিটের শো । টিকিটের দাম মাথাপিছু ৫০ টাকা । 


এবার ঘুরতে হবে ইস্কনের বাইরের মন্দির গুলো । ইস্কনের বাইরে অনেক মন্দির আছে , রাস্তার ধারে ধারেই বেশি । অল্প সময়ে বেশীরভাগ মন্দির দেখার জন্য টোটো রিজার্ভ করে নেওয়াই ভালো । তবে জেনে নি কাকা কি কি ঘুরে দেখাবেন , কাকা বলুন - 

মন্দির থেকে বেড়িয়ে প্রথমে দেখতে পাবেন শ্রীকৃষ্ণ চৈতন্য মিশন , ভিতরে ঢুকে বিগ্রহ দর্শন করতে পারেন । 

এরপর দেখবেন সন্ত গোস্বামী গৌড়ীয় মঠ ও মন্দির । জগন্নাথ মন্দিরের অনুকরনে তৈরি মন্দিরটির কারুকার্য আপনাকে মুগ্ধ করবেই । 

এরপর যাবেন শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুর জন্মস্থান দেখতে । সঠিক সময়ে গেলে এখানে  রাধাকৃষ্ণ  বিগ্রহ দর্শন করতে পারবেন , আর এই নিম বৃক্ষের নীচে মাতা সচির কোলে সদ্যজাত শ্রীচৈতন্য মহাপ্রভুকে দেখতে পাবেন । খোলা অবস্থায় এখানে ফটো তোলা নিষেধ । 

এরপর দেখবেন শ্রীবাস অঙ্গন , বাইরের ভগবান শ্রীবিষ্ণুর মূর্তি দুটি অসাধারন ,  ভিতরে প্রবেশ করে বিগ্রহ দর্শন করতে পারেন । 

এর পর পৌছাবেন শ্রীচৈতন্য মঠে , এখানে মন্দির , একটি সংগ্রহশালা ও সুন্দর রাধাকৃষ্ণ বিগ্রহ দেখতে পাবেন । এছাড়াও একটি নাট্যমন্দিরের দেওয়ালের গায়ে সুন্দর কারুকার্য করা মহাপ্রভুর জীবনী দেখতে পাবেন । এখানে একটি সুন্দর গোলাপ বাগানও দেখতে পাবেন । এখানে আপনি সাধুসঙ্গ করতে ও ভোগ নিবেদন করতে পারেন , উপযুক্ত ব্যবস্থা আছে । 

এই আশ্রমের পাশেই আছে সতসঙ্গ বিহার ,  ঠাকুর অনুকুল চন্দ্রের আশ্রম । ইচ্ছা হলে দেখতে পারেন । 

এরপর যাবেন চাঁদ কাজীর সমাধী । বলা হয় সমাধীর উপরের ঐ নিম গাছটি স্বয়ং চৈতন্যদেবের হাতে রোপন করা । 

চাঁদ কাজীর সমাধীর পাশ দিয়েই যাওয়া যায় বল্লাল সেনের ঢিপি দেখতে । এই ঢিপির ইতিহাস নিয়ে আমাদের একটি বিস্তারিত ভিডিও আছে এখানে ক্লিক করে দেখে নিতে পারেন । 

বল্লাল ঢিপি দেখার পর আবার উলটো পথে ফেরত গিয়ে ইস্কন ছাড়িয়ে স্বরুপগঞ্জের ঘাটের দিকে যাওয়ার পথে  আরো কিছু মন্দির দেখে আসতে পারেন । 

এর মধ্যে দেখবেন - পুলিন বিহারী তোরন অর্থাৎ আরেকটি শ্রী কৃষ্ণ চৈতন্য মঠ । ভিতরে সুন্দর বিগ্রহ দর্শন করতে পারেন । 

সুন্দর কারুকার্যে ভরা শ্রী চৈতন্য গৌড়ীয় মঠ ও বিগ্রহ দর্শন পারেন । 

এছাড়াও শ্রী গৌর নিত্যানন্দ মন্দির , শ্রী গোপিনাথ গৌড়ীয় মঠ  ও আরো কয়েকটি ছোট বড় মঠ ঘুরে দেখতে পারেন । 

মনে রাখবেন কোনোভাবেই একদিনে মায়াপুর ও নবদ্বিপ ঘোরা যায় না । তাড়াহুড়ো করে দুটো দেখতে গেলে কোনোটাই দেখা হবে । 

সব কিছু দেখে আবার ইসকন মন্দিরে ফেরত যেতে পারেন । সন্ধ্যেবেলা মন্দিরের পাশে মাহুত হাতি নিয়ে আসেন , হাতিকে কলা , আইস্ক্রিম খাইয়ে খুব মজা পাবেন । এছাড়াও এই সময় বিনেপয়সায় ভোগ বিতরন করা হয় । হাতে হাতে ধরে অনেকে মিলে কৃষ্ণ নামে নাচ করতেও পারবেন । আর  সন্ধ্যে ৬টায় অসাধারন সন্ধ্যে আরতী দেখতে পারেন। 


এবার খাওয়ার ব্যাপারটা জেনে নিন - 

ইস্কনে গিয়ে খাওয়া মানেই আমাদের কাছে প্রসাদ খাওয়া । ইস্কনে দুই রকমের খাওয়ার ব্যবস্থা আছে , একটা ৩০টাকার অন্যটা ৭০ টাকার । দুটই পেট ভরে খাওয়া হলেও ৩০টাকার খাবারে বেশী ভ্যারাইটি থাকে না , ভাত, ডাল, তরকারী , পটল ভাজা , খিচুরি । কিন্ত ৭০ টাকার খাওয়ারে অনেক কিছু থাকে - ভাত , ডাল , দু রকমের তরকারী , বিভিন্ন ভাজা , খিচুরী  সাথে রুটি , চাটনী , মিস্টি অনেকসময় পায়েস । এই ৭০ টাকার খাওয়ারের কুপন কিনতে হয় এই গদা ভবনের কাছ থেকে । আর ৩০ টাকার কুপোন পাওয়া যায় গেটের কাছে । আপনি জেখানেই খান , মেঝেয় বসে সবার সাথে আনন্দ করে খেতে পারবেন । 

তবে যারা ডিম মাছ মাংস না খেয়ে  একদিনও থাকতে পারেন না তাদের জন্য মন্দিরের বাইরে অনেক হোটেলের ব্যবস্থা আছে । এই হোটেল গুলোর বেশীরভাগেই থাকা ও খাওয়ার ভালো ব্যবস্থা আছে । 

ইস্কনের ভিতরে ভোগ বা প্রসাদ ছাড়া স্পেশাল কিছু ফুড পাবেন । গোবিন্দাম নামের এই রেস্টুরেন্টে বিভিন্ন ধরনের মিস্টি , স্ন্যক্স , ইডলি ধোসা ছাড়াও লাঞ্চ ও ডিনারের যাবতীয় ব্যবস্থা আছে , তবে দাম একটু বেশী । এই রেস্টুরেন্টের পাশেই পাবেন ঝালমুড়ি স্টল । একটু এগিয়ে গেলেই  ইডলি , ধোসা , ঘুগনি , ফুচকা , আখের রস ,ডাব এত  কিছুর দোকান পাবেন , তবে আমাদের ফেভারিট এই মোমোর দোকানটি , এখানকার চকোলেট মোমো খেলে মনে হবে আর কদিন ইস্কনেই থেকে যাই । রেট চার্টটা দেখে নিন । মন্দিরের বাইরে অনেক রকমের স্ট্রিট ফুড খুঁজে পাবেন , ফুচকা , ঘুগনি , রোল , চাউমিন - কোনো কিছুরই অভাব নেই  ।


এবার জেনে নিন থাকবেন কোথায় ? 

ইসকনের ভিতরে রাত কাটানোর অনেক সুন্দর ব্যবস্থা আছে । ঘর গুলো খুব পরিস্কার পরিচ্ছন্ন । ভিতরে থাকাই ভালো । যারা ইসকনের লাইফটাইম সদস্য হবেন তাদের জন্য আলাদা ব্যবস্থা থাকে এবং অনেক ভবনে রাতে থাকতে কোনো টাকা লাগে না । 

ইসকনের বাইরে অনেক ছোট বড় হোটেল আছে । বিভিন্ন রকমের ভাড়া । বেশীরভাগ হোটেলেই থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা পাবেন । 


কি কি কিনবেন ? 

ইস্কনের ভিতরে অনেক রকমের দোকান পাবেন । জামাকাপড় , বিভিন্ন মূর্তি , ছবি , মালা , পেন , খেলনা এমন বহু রকমের জিনিস পাবেন । দেখবেন দেশী বিদেশী অনেক মানুষ এখানে দোকান দিয়েছেন । একটু দাম বেশী হলেও ভালো কোয়ালিটির জিনিস পাবেন । ইস্কনের বাইরে রাস্তার দু'ধার দিয়ে অনেক রকমের দোকান দেখতে পারবেন । এখানে দাম একটু কম পাবেন কিন্ত দর কশাকশি করে নিতে হবে । 


সাবধানতাঃ 

ইস্কনে গেলে কিছু জিনিস অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে নাহলে বিপদে পড়তে পারেন । প্রথমত , ভোটার কার্ড বা আধার কার্ড সাথে রাখবেন । ব্যাগে কোনোরকমের আমিষ খাবার আনবেন না । আমরা দেখেছিলাম এক ব্যাক্তি তাঁর পরিবারের সাথে ইস্কন ঘুরতে এসেছিলেন অনেকটা পিকনিক করার মানসিকতা নিয়ে , ব্যাগে রুটি আর মাংস নিয়ে এসছিলেন । তাঁকে গেটের বাইরে দাঁড়িয়ে থাকতে হয় । সব খাওয়ার দূরে ফেলে আসার পরেই ঢোকার অনুমতি পান ।

আরেকটি ব্যাপার , ইসকনের ভিতরে চন্দ্রোদয় মন্দিরের পিছনে আর সমাধি মন্দিরের পাশে দুটি ফ্রী শৌচালয় আছে । এখানে স্নান, পায়খানা , বাথরুম করতে কোনো টাকা লাগে না । খুব পরিস্কার পরিচ্ছন্ন । প্রয়জনে ব্যবহার করবেন । ফাঁকা মাঠে দাড়িয়ে পরবেন না । 

আরেকটি ব্যাপার , একজন পুরুষ ও নারী একসাথে রিক্সা বা টোটোয় উঠলে তাদের সম্পর্ক কি সেটা না ভেবেই রিক্সাচালক বন্ধুরা আপনাকে বারংবার হোটেলে নিয়ে যাওয়ার চেস্টা করবে । দিদি , ভাই , বোনকে সাথে নিয়ে গেলে খুব লজ্জার সম্মুখীন হতে হয় । 


এবার জেনে নিন ফেরত আসবেন কিভাবে ? 

এক - স্বরুপগঞ্জের ঘাটে ফেরত গিয়ে ঘাট পার হয়ে অটোয় চেপে কৃষ্ণ নগর স্টেশনে চলে যেতে পারেন । 

দুই - ইস্কন মন্দিরের সামনে থেকে কৃষ্ণনগর যাওয়ার বাস পাবেন , ধুবুলিয়া ঘুরে এই বাস কৃষ্ণনগর স্টেশনে যাবে । 

তিন - মায়াপুর পেট্রোল পাম্পের পাশের রাস্তা ধরে তারিনিপুর ঘাটে চলে যান । এই হল তারিনিপুরের ঘাট । এই ঘাট পার হয়ে কৃষ্ণনগর যাওয়ার অটো পেয়ে যাবেন । 


মায়াপুর ভ্রমণের উপর আমাদের বিস্তারিত ভিডিও দেখতে পারেন এখানে ক্লিক করে । 



মায়াপুর ইসকন ও আশেপাশের সব মন্দির ট্রাভেল গাইড - Complete Mayapur ISKCON temple travel guide মায়াপুর ইসকন ও আশেপাশের সব মন্দির ট্রাভেল গাইড -  Complete Mayapur ISKCON temple travel guide Reviewed by WisdomApps on মার্চ ২৬, ২০২১ Rating: 5

"নিজের সমকক্ষ নয় এমন কাউকে বন্ধু কোরাে না" - কনফুসিয়াস এর ৫৪ টি বানী - quotations by Confucius

মার্চ ২৫, ২০২১

 কনফুসিয়াস এর বানী  

quotes-by-confucious


• নিখুঁত নুড়ির চেয়ে ত্রুটিযুক্ত হিরে বেশি ভালাে।

• অত্যাচারী শাসক বাঘের থেকেও ভয়ানক।

• প্রতিশােধ নেবার উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরুর আগে, অন্তত দুটি কবর খুঁড়ে রেখ।

• তিন উপায়ে আমরা জ্ঞান অর্জন করতে পারি; প্রথমত প্রতিফলন দ্বারা, যা সর্বোত্তম; দ্বিতীয়ত, নকল করে, যা সব থেকে সহজ; তৃতীয়ত, অভিজ্ঞতা দ্বারা, যা কিনা সব থেকে তেতাে।

• মৃত্যু ও জীবনের নিজস্ব নির্দিষ্ট মুহূর্ত স্থির করা আছে; ধন এবং সম্মান নির্ভর করে ভগবানের ওপর।

• যে কাজ ভালাে লাগে সেটাই বেছে নাও, জীবনে কখনও তােমাকে সারা দিন ধরে কাজ করতে হবে না।

• যা নিজে পছন্দ করাে তা অন্যের ওপর চাপিয়ে দিও না।

• সঠিক কাজ জেনেও তা মাঝপথে ছেড়ে গেলে সাহসের অভাব বােঝায়।

• Everything has beauty, but not everyone sees it.

• আঘাত ভুলে যাও, করুণা ভুলাে না।

• যিনি তার নিজের গুণে সরকার চালান তাকে উত্তর মেরুর নক্ষত্রের সঙ্গে তুলনা করা যায় যে নিজস্থানে থাকে এবং সকল নক্ষত্রেরা তার দিকে ফেরে।

• যে শেখে কিন্তু ভাবে না, সে গােল্লায় যায়। যে ভাবে কিন্তু কিছুই শেখে না সে বিপদে পড়ে।

• নিজের সমকক্ষ নয় এমন কাউকে বন্ধু কোরাে না।

• যে অমিতব্যয়ী তাকে অনুশােচনা করতে হয়।

• যে শালীনতা ব্যতিরেকে কথা বলে তার পক্ষে নিজের বক্তব্যকে সুন্দর করে তােলা কঠিন।

• স্বর্গ মানে ঈশ্বরের সঙ্গে এক হওয়া।

• বিশ্বস্ততা এবং আন্তরিকতা প্রথম নীতি হিসাবে গ্রহণ করা উচিত। 

• এমন কোনাে মানুষ আমি দেখিনি যে পুণ্য ভালােবেসেছিল, অথবা এমন কোনাে মানুষ যে ঘৃণা করেছিল যা কিছু পুণ্য নয়। যে পুণ্য ভালােবেসেছিল তার ওপরে আর কিছুকে শ্রদ্ধা জানায়নি।

• I hear and I forget. I see and I remember. I do and I understand

• আমি চাই তােমার সত্তার গভীরে যে প্রকৃত তুমি বর্তমান তার পরিপূর্ণ বিকাশ।

• আমি এমন কেউ নই যে জ্ঞানের ভাণ্ডারে, জন্মগ্রহণ করেছে; আমি এমন একজন যে প্রাচীনত্ব ভালােবাসে, এবং তা খুঁজে পেতে আগ্রহী। কোনাে ব্যক্তির সম্পর্কে কুৎসা যা কিনা ক্রমে ক্রমে মনে শােষিত হয় কিংবা কটু মন্তব্য যা কিনা মাংসের মধ্যে ক্ষতের মতন চমকিত হয়, যদি সফল না হয় তাকে প্রকৃতই বুদ্ধিমান বলা যেতে পারে।

• If a man takes no thought what is distant, he will find sorrow near at hand.

• যদি আমি দুজন মানুষের সঙ্গে পথ হাঁটি, তাদের প্রত্যেকেই আমাকে শিক্ষক হিসাবে সেবা করবেন। ভালাে বিষয়গুলি আমি বেছে নেব এবং নকল করব তাদের। আর তাদের খারাপ বিষয়গুলি সংশােধন করে রেখে দেব নিজের মধ্যে।

• নিজের হৃদয়ে উকি মেরে দ্যাখ, যদি সেখানে খারাপ কিছু না পাও, তাহলে দুশ্চিন্তার কী আছে? কী নিয়ে এত ভয়? 

• যদি আমরা জীবন না চিনি, মৃত্যুকে চিনব কী করে?

• অজ্ঞতা হল মনের রাত, সেই রাত যখন আকাশে চাঁদ কিংবা নক্ষত্রেরা অনুপস্থিত।

• যদি এক বছরের কথা ভাব, একটা বীজ পেতাে; দশ বছরের কথা। ভাবলে লাগাও গাছ; আর যদি একশাে বছরের কথা চিন্তা করাে, মানুষকে শিক্ষা দাও।

• যে-কোনাে সুশাসিত দেশে দারিদ্র্য এমন একটা বিষয় যা লজ্জার। যে দেশে সুশাসন অনুপস্থিত সেখানে সম্পদ এমন একটা বিষয় যা লজ্জার ।

• It does not matter how. slowly you go as long as you do not stop.

• পুণ্য কি খুব দূরের জিনিস? আমি পুণ্যবান হতে চাই, আরে দ্যাখ! পুণ্য হাতের মুঠোয়।

• It is better to play than do nothing.

• ঘৃণা করা সহজ, ভালােবাসা কঠিন। এভাবেই জগতের যাবতীয় পরিকল্পনা চলে। যা কিছু ভালাে জিনিস অর্জন করা কঠিন, যা কিছু খারাপ খুব সহজেই পাওয়া যায়।

• বন্ধুদের দ্বারা প্রতারিত হবার থেকে তাদের অবিশ্বাস করা বেশি লজ্জার।

• Life is really simple, but we insist on making it complicated.

• প্রকৃতিগতভাবে সব মানুষ একই ধরনের। তাদের যে অভ্যাস তার দ্বারাই তারা একে অপরের থেকে আলাদা আলাদা হয়ে যায়।

• Look at the means which a man employs, consider his motives, observe his pleasures, A man simply cannot conceal himself!

• তােমার থেকে কোনাে অংশে বড় নয় এমন কোনাে মানুষের সঙ্গে বন্ধুত্বের চুক্তি কোরাে না।

• কেবল প্রকৃত জ্ঞানী এবং প্রকৃত মুর্খরাই নিজেদের বদলায় না।

• Real Knowledge is to know the extent of one's ignorance.

• যে নাচতে পারে না তার হাতে তরবারি দিও না।

• নীরবতা হল সেই বিশ্বস্ত বন্ধু যে কখনও বিশ্বাসঘাতকতা করে না।

• Our greatest glory is not in never falling, but in rising every time we fall 

• Respect yourself and others will respect you.

• সত্য কথা বলবে; ক্রোধের কাছে মাথা নত করবে না; দিও, যদি তােমার শিল্প কেউ চায়; এই তিন পদক্ষেপে তুমি ঈশ্বরের কাছাকাছি পৌঁছাবে।

• অতীতকে অধ্যয়ন করাে, যদি ভবিষ্যৎকে স্বর্গীয় বানাতে চাও।

• সাবধানীরা কদাচিৎ ভুল করে।

• Success depends upon previous preparation, and without such preparation there is sure to be failure.

• দৃঢ়সংকল্পের পণ্ডিত এবং পুণ্যাত্মা ব্যক্তি তাদের পুণ্যের বিনিময়ে

• কিছুই পেতে চাইবেন না। তারা প্রয়ােজনে তাদের পুণ্য রক্ষার্থে নিজেদের প্রাণ উৎসর্গ করবেন, তবু মাথা নত করবেন না।

• যে পিতা তার সন্তানকে কর্তব্য কী তা শেখান না তিনি সেই সন্তানের সমান দোষে দোষী যে কর্তব্যে অবহেলা করে।

• জীবনের প্রত্যাশা নির্ভর করে শ্রমের ওপর; যে কারিগর উৎকৃষ্ট কাজ দেখাতে চান তিনি সর্বপ্রথমে নিজের যন্ত্রপাতিগুলিতে ধার দেন।

• বড় মানুষদের ত্রুটিবিচ্যুতি সূর্য-চন্দ্রের মতন। তাদের তা থাকে, সকলে সেসব দ্যাখেও; তারা পাল্টান, প্রত্যেকে তাদের দিকে মুখ তুলে তাকায়।

• পুণ্যবান ব্যক্তিরা তাদের প্রথম ব্যবসায়ে নানা প্রতিবন্ধকতায় আটকা পড়েন, পরবর্তী বিবেচনায় ব্যবসায়ে সফল হন।

• দৃঢ় প্রত্যয়ী, সহনশীল, সরল এবং বিনয়ী ব্যক্তিরা পুণ্যের কাছাকাছি থাকেন।


Here 54 famous quotes by Confucius . 

"নিজের সমকক্ষ নয় এমন কাউকে বন্ধু কোরাে না" - কনফুসিয়াস এর ৫৪ টি বানী - quotations by Confucius "নিজের সমকক্ষ নয় এমন কাউকে বন্ধু কোরাে না" - কনফুসিয়াস এর ৫৪ টি বানী - quotations by Confucius Reviewed by WisdomApps on মার্চ ২৫, ২০২১ Rating: 5

কাহলিল জিব্রানের বানী সংকলন - qoutes by Kahlil Gibran in Bengali

মার্চ ২২, ২০২১

khalil gibran quotes

•  যখন দুজন মহিলা কথা বলেন তারা কিছুই বলেন না; যখন একজন মহিলা কথা বলেন তিনি তার সমগ্র জীবনের কথা বলে ফেলেন।

• আমি যা বলি তার অর্ধেক অর্থহীন ঃ কিন্তু তবুও আমি তা বলি কারণ যাতে বাকি অর্ধেক তােমাদের কাছে পৌছায়।

• প্রত্যেক ড্রাগন একজন করে সেন্ট জর্জের জন্ম দেয়, যে তাকে হত্যা করে।

• আমরা প্রায়ই আমাদের আগামীকাল থেকে ধার করি আমাদের গতকালের ঋণ শােধ করার জন্য।

• গাছেরা হল সেই কবিতা যা পৃথিবী আকাশের বুকে লিখে দেয়। 

• আমরা তাদের কেটে মাটিতে ফেলি কাগজ বানাই আর তাতে নথিভুক্ত করি আমাদের সমূহ শূন্যতা।

• হ্যা, নির্বাণ আছে; এবং তা আছে তােমার ভেড়ার দলকে সবুজ চারণভূমির দিকে নিয়ে যাওয়ায়, তােমার শিশুকে ঘুম পাড়ানােয়, আর তােমার কবিতার শেষ লাইনটি লিখে ফেলার মধ্যে।

• তুমি কি একজন রাজনীতিবিদ যে নিজেকে বলে ? ‘আমি নিজের স্বার্থে আমার দেশকে ব্যবহার করব?’ কি একজন উৎসর্গপ্রাণ দেশপ্রেমী যে ফিসফিসিয়ে নিজের সত্তাকে বলে ঃ ‘একজন বিশ্বস্ত ভৃত্যের মতন আমি আমার দেশের সেবা করতে ভালােবাসি।

• সহস্র শতাব্দী পূর্বে যেসব নক্ষত্র জ্বলে শেষ হয়ে গেছে তারা আজও আলাে দেয়। মহান ব্যক্তিরাও সেরকমই, যারা বহু বছর আগে মারা গেলেও তাদের ব্যক্তিত্বের আলােকচ্ছটা আজও আমাদের কাছে এসে পৌঁছায়।

• যে কাজ আমরা নিজেদের ভুলে আজ দুর্বলতা বলে ভাবছি কাল তা এক সম্পূর্ণ মানব শৃঙ্খলের এক অপরিহার্য যােগসূত্র বলে বিবেচিত হবে।

• জ্ঞান সামান্য হলেও যদি তা কাজে লাগে তার মূল্য অসীম। অপর দিকে অসীম জ্ঞান যদি অলস হয় তা মূল্যহীন।

• পরামর্শের জন্য যখন আমরা একে অপরের দিকে ফিরি আমরা শত্রুর সংখ্যা কমাই।

• জ্ঞানের শুরুই হল হতভম্বতা।

• আত্মার গভীরে এক তীব্র ইচ্ছা থাকে যা মানুষকে চালিত করে দেখা থেকে অ-দেখায়, দর্শনে এবং স্বর্গীয়তায়।

• ভালােবাসার সেই ক্ষমতা আছে যা মৃত্যুকে রদ করে, আছে সেই মুগ্ধতা যা শত্রুকে জয় করে। যখন ভালােবাসা হাতছানি দিয়ে ডাকছে তাকে অনুসরণ করাে, পথ যতই কঠিন ও খাড়া হােক।

• নিজেকে পরিপূর্ণ করা ছাড়া প্রেমের আর কোনাে কামনা নেই।

• নির্যাতন তার বেশি ক্ষতি করতে পারে না যে সত্যের জন্য রুখে দাঁড়ায়। সক্রেটিস কি গর্বের সঙ্গে পড়ে যাননি? সত্যের জন্য পলকে কি পাথর ছুঁড়ে মারা হয়নি? আমাদের অন্তর্নিহিত সত্তাই আমাদের সব থেকে বেশি আঘাত করে যখন আমরা তাকে অমান্য করি, আমাদের হত্যা করে যখন তার সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করি।

• তােমাদের সন্তানেরা তােমাদের নয়, জীবনের স্বীয় আকাঙ্ক্ষার সন্তান তারা। তারা তােমাদের মধ্য দিয়ে এসেছে, তােমাদের থেকে নয়, তােমরা তাদের তােমাদের ভালােবাসা দিতে পার, ভাবনা নয় কারণ তাদের নিজের নিজের ভাবনা আছে তােমরা তাদের দেহগুলিকে বাড়িতে রাখতে পারো , তাদের আত্মাদের নয় , কারন তাদের আত্মারা বাস করে আগামীকালের বাড়িতে , যেখানে তোমরা যেতে পারবে না , এমনকি তোমাদের স্বপ্নেও না । 

কাহলিল জিব্রানের বানী সংকলন - qoutes by Kahlil Gibran in Bengali কাহলিল জিব্রানের বানী সংকলন - qoutes by Kahlil Gibran in Bengali Reviewed by WisdomApps on মার্চ ২২, ২০২১ Rating: 5

সাপ্তাহিক রাশিফল ২১ থেকে ২৭ শে মার্চ ২০২১

মার্চ ২১, ২০২১

                


এই সপ্তাহের সব রাশির রাশিফল 


মেষঃ সপ্তাহের শুরুটা মােটের এর বেশ ভালো। ব্যবসাবাণিজ্যে অনেকদিনের পরিশ্রমের সুফল পেতে শুরু করবেন। চাকুরিজীবীদের পক্ষে সপ্তাহের মধ্যবর্তী সময়টা অপেক্ষাকৃত শুভ। কর্মক্ষেত্রে দায়িত্ব বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে প্রত্যাশিত অর্থনৈতিক প্রাপ্তি সেভাবে হচ্ছে না। সম্পত্তি ক্রয়-বিক্রয় আত্মীয়-পরিজনের সঙ্গে মতবিরোধ ।  সপ্তাহের অন্তভাগে প্রেম-পরিণয়ে বাদানুবাদ  পরিতাজ্য। স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কের উন্নতি। সস্তানের বিদ্যাশিক্ষায় প্রত্যাশিত ফল না হওয়ায় হতাশা বৃদ্ধি।


বৃষঃ এই সপ্তাহের প্রথমভাগে শরীর-স্বাস্থের উল্লেখযােগ্য উন্নতি। ব্যবসা-বাণিজ্যে অনাবশ্যক ঋণ বৃদ্ধিতে সতর্কতা আবশ্যক। বলবান শত্রুর সঙ্গে আপস- মীমাংসা। সপ্তাহের মাঝামাঝি সময়টা সম্পত্তি ক্রয়-বিক্রয় বিষয়ে বেশ শুভ। অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে 'আয়-ব্যয়ের মধ্যে ব্যালেন্স রাখ প্রয়ােজন। ন্যূনতম সঞ্চয়ে উদ্যোগী হওয়ার আবশ্যকতা দেখা যাচ্ছে। সপ্তাহের শেষের দিকে দূরযাত্রায় বাধা-বিপত্তির সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে। ঝুঁকি রয়েছে এইরকম ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে অত্যধিক লগ্নি এখন করাই সমীচীন।

 মিথুনঃ  আলােচ্য সপ্তাহের প্রথমদিকে বিবাহযােগ্য সন্তানের বিবাহ বিষয়ক উদ্যোগে সফলতা আশা করা যায়। দাম্পত্য জীবনে স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কে তৃতীয় পক্ষের হস্তক্ষেপ বিষয়ে সাবধানতা প্রয়ােজন। সপ্তাহের মধ্যবর্তী সময়ে কর্মক্ষেত্রে অস্থিরতার অবসান। বিকল্প কর্মানুসন্ধানে সাফল্য। সন্তানের বিদ্যাশিক্ষায় উন্নতি। সপ্তাহের অন্তভাগে ব্যবসায়িক উদ্যোগ সফল হতে পারে। বলৰান শক্রর বিষয়ে সতর্কতা আবশ্যক। উচ্চবিদ্যার্জন ও গবেষণামূলক কার্যে আশানুরূপ সফলতা না মেলায় হতাশাবৃদ্ধি।

☞ লোকনাথ বাবার কিছু বানী আপনার জীবনে আশার আলো আনতে পারে । একটু সময় দিয়ে পড়ে নিন । 

কর্কটঃ  এই সপ্তাহের গােড়ার দিকটা এই রাশির জাতক/জাতিকাদের পক্ষে অত্যন্ত শুভ। ব্যবসায়িক উদ্যোগে সাফল্য। ঋণবৃদ্ধির রাশ টানা প্রয়ােজন। সপ্তাহের মাঝামাঝি সময়ে স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কে মতবিরােধ বৃদ্ধি পাওয়ার যােগ। বিতর্কিত বিষয় এড়িয়ে যাওয়াই সমীচীন। সপ্তাহের অন্তভাগে দূরযাত্রার যােগ। জীবাণু সংক্রমণ,কীট-পতঙ্গ দংশন, বাতজবেদনায় শারীরিক পীড়া। প্রেম-পরিণয়ে হতাশা বৃদ্ধি ও মতবিরােধের আশঙ্কা। 

কোলকাতার কাছাকাছি ৯ টি অসাধারন পিকনিক স্পটের সন্ধান জেনে নিন 

সিংহঃ সপ্তাহের প্রথমদিকে কর্মক্ষেত্রে পরিশ্রমের স্বীকৃতি। আয়-উন্নতির যােগ বেশ প্রবল। ব্যবসাক্ষেত্রে অত্যধিক উচ্চাকাঙ্ক্ষায় আশা ভঙ্গ। সপ্তাহের মধ্যবর্তী সময়টা সম্পত্তি সংস্কার, ক্রয়-বিক্রয়ের ব্যাপারে অপেক্ষাকৃত শুভ। শিল্পী, কলাকুশলী ব্যক্তিদের নতুন যােগাযােগ ও অর্থনৈতিক শুভ ফল প্রাপ্তি। সপ্তাহের অন্তভাগে আকস্মিক পতনে শরীরের নিম্নভাগে আঘাতের সম্ভাবনা। সন্তানের বিদ্যাশিক্ষায় ক্রমিক অমনােযােগিতায় আশাভঙ্গ।

☞ বাজারে এসেছে ভেসপা কোম্পানীর ইলেক্ট্রিক স্কুটার , ১ বার চার্জ দিলে চলবে ১০০ কিমি দেখে নিন

কন্যাঃ আলােচ্য সপ্তাহের প্রথমভাগে শারীরিক দিক থেকে উন্নতি। পুরাতন রােগব্যাধি  মুক্তির সম্ভাবনা প্রবল। সপ্তাহের মধ্যবর্তী সময়ে বিবাহযােগ্য সন্তানের বিবাহ বিষয়ক কার্যকলাপে সফলতা। ব্যবসাক্ষেত্রে আশাতিরিক্ত লাভ। সপ্তাহের অন্তভাগে স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কে বিতর্ক-বিবাদ পরিত্যাজ্য। প্রেম-পরিণয়ে অতিরিক্ত আশা-প্রত্যাশায় স্বপ্নভঙ্গ। সন্তানের বিদ্যাশিক্ষায় আশানুরূপ সফলতা না মেলায় হতাশাবৃদ্ধি। 



তুলাঃ সপ্তাহের প্রথমদিকে কর্মক্ষেত্রে মৌলিক চিন্তা ও  উদ্যোগে সাফল্য। ব্যবসাক্ষেত্রে ঋণবৃদ্ধিতে সতর্কতা আবশ্যক। সপ্তাহের মাঝামাঝি সময়টা বিদ্যার্জনের বিষয়ে অপেক্ষাকৃত শুভ। স্বনিযুক্তি প্রকল্পে যুক্ত ব্যক্তিবর্গদের আয়-উন্নতি লাভ।  সপ্তাহের শেষের দিকে সুচিকিৎসা, যােগ, প্রাণায়ামে পুরাতন রোগ-ব্যাধির ক্ষম। দাম্পত্য জীবনে বাদানুবাদ ও মনোমালিনের অবসান। প্রেম-পরিণয়ে বিতর্ক-বিবাদের সাময়িক অবসান।

☞ জানেন কি দাঁতের পোকা বলে কিছু হয়না ? আর দাঁত ভালো রাখার সিক্রেট জেনে নিন 

বৃশ্চিকঃ আলােচ্য সপ্তাহের প্রথম দিকটা শিল্পী, কলাকুশলী ব্যক্তিদের পক্ষে বেশ শুভ। গুরুজন স্থানীয় ব্যক্তির শরীরস্বাস্থ্যের বিষয়ে সতর্কতা আবশ্যক। সপ্তাহের মধ্যবর্তী সময়ে সম্পত্তি ক্রয়বিক্রয়ে জ্ঞাতি বিরােধের আশঙ্কা প্রবল। বিবাহযােগ্য। সন্তানের বিবাহ বিষয়ে তৎপরতা বৃদ্ধি। সপ্তাহের শেষের দিকে কর্মক্ষেত্রে নতুন যােগাযোগ! দায়িত্ব বৃদ্ধি। উচ্চবিদ্যার্জন ও গবেষণামূলক কার্যে প্রিয়জনের সাফল্য। প্রেম-পরিণয়ে অহেতুক ক্রোধ-আবেগ বর্জনীয় । 



ধনুঃ এই রাশির জাতক জাতিকাদের পক্ষে সপ্তাহের প্রথমদিকটা খুবই আশাপ্রদ। | বিশেষ করে নতুন ব্যবসায়িক উদ্যোগ, শেয়ার, ফটিকায় আশাতীত লাভ। সপ্তাহের মধ্যবর্তী সময়ে শরীর-স্বাস্থ্যের অবনতি বিষয়ে সতর্কতা প্রয়ােজন। গলা, লিভার, ফুসফুসে জীবাণু সংক্রমণের আশঙ্কা। সপ্তাহের অন্তভাগে সন্তানের উচ্চ বিদ্যার্জনে কৃতিত্বে পরিবারের গৌরব বৃদ্ধি। দাম্পত্য জীবনে মাত্রাতিরিক্ত আশা-প্রত্যাশায় স্বপ্নভঙ্গ। 

মকরঃ আলােচ্য সপ্তাহের প্রথমদিকে ব্যবসায়িক কর্মোদ্যোগে সাফল্য। কর্মক্ষেত্রে দায়িত্ব বৃদ্ধি হলে অর্থনৈতিক মুনাফা সেভাবে হচ্ছে না। সপ্তাহের মধ্যবর্তী সময়ে বিকল্প জীবিকা কর্মানুসন্ধানে সফলতা। বলবান শত্রুর কার্যকলাপের বিষয়ে সতর্কতা আবশ্যক। সপ্তাহের অন্তিম পর্যায়ে সম্পত্তি ক্রয়-বিক্রয়-সংস্কারে উদ্যোগ শুভ হতে পারে। প্রেম-পরিণয়ে মান-অভিমান বৃদ্ধি।


কুম্ভঃ এই সপ্তাহের শুরুর দিকে পুরাতন। সুচিকিৎসায় সফলতা মিলতে পারে। গুপ্তশত্রুতা মাথাচাড়া। দিলেও কোনও ক্ষতি করতে পারবে না। সপ্তাহের মধ্যবর্তী সময়ে সন্তানের বিবাহবিষয়ক শুভ উদ্যোগ। শেয়ার, ফাটকা, লটারিতে মুনাফা বৃদ্ধি। সপ্তাহের শেষের দিকটায় দাম্পত্য-কলহের অবসান। উচ্চশিক্ষা ও বিদ্যার্জনে সফলতা প্রাপ্তি। প্রবাসী প্রিয়জনের বিষয়ে অহেতুক দুশ্চিন্তা বৃদ্ধির কোনও প্রয়ােজন দেখা যাচ্ছে না। 

☞ বাজার থেকে পচা টম্যাটোর সস কিনে খাওয়ার থেকে বাড়িতে সস বানানোর এই পদ্ধতি জেনে নিন 

মীনঃ সপ্তাহের শুরুতেই কর্মজীবনে অস্থিরতায় দুশ্চিন্তা বৃদ্ধি। তবে বিকল্প জীবিকা/ কর্মানুসন্ধানে সফলতার যােগও রয়েছে। সপ্তাহের  মাঝামাঝি সময়টায় বিতর্ক-বিবাদ থেকে সাবধান। প্রেম-পরিণয়ে মানঅভিমান বৃদ্ধি। দাম্পত্য তীব্র মনােমালিন্যে হতাশা বৃদ্ধি। সপ্তাহের অন্তিম পর্যায়ে উচ্চবিদ্যার্জন গবেষণামুলক কার্যে কৃতিত্ব ও সুনাম বৃদ্ধি। বিবাহযােগ্য সন্তানের বিবাহ বিষয়ে আরও উদ্যোগ প্রয়ােজন। 

সাপ্তাহিক রাশিফল ২১ থেকে ২৭ শে মার্চ ২০২১ সাপ্তাহিক রাশিফল ২১ থেকে ২৭ শে মার্চ ২০২১ Reviewed by WisdomApps on মার্চ ২১, ২০২১ Rating: 5
Blogger দ্বারা পরিচালিত.