সবজীর খোসা ও শাকপাতা দিয়ে দুর্দান্ত ১৫ টি রেসিপি

সাধারণত রান্না করার সময় খোসা ও শাকপাতা ফেলে দেওয়া হয়। কিন্তু এই সব খোসা ও শাকপাতা দিয়েও নানা রকম মুখরোচক পদ রান্না করা যায়। বিশেষত কাঁচকলার খোসা, আলুর খোসা ও লাউয়ের খোসা তো বেশ কাজে লাগে। এই সব খোসা রান্নায় ব্যবহার করতে হলে একটা কথা মনে রাখা দরকার- এই সব খোসা পাতলা করে না ছাড়িয়ে একটু মোটাভাবে ছাড়াতে হবে। 


1. মুলোর শাক ভাজা

সাধারণত মুলো রান্না করে মুলোর শাকটা ফেলে দেওয়া হয়। কিন্তু এই শাক ফেলে না দিয়ে ভাজলে ভাত দিয়ে মেখে এমন কি রুটির সঙ্গে খেতেও খুব রুচিকর মনে হবে।
উপকরণ: কুচোনো ও সেদ্ধ করা মুলোর শাক ২ কাপ, আস্ত সর্ষে ১/২ চা চামচ, শুকনো লঙ্কা ২টি, চিনি ১ চা চামচ, নুন, হলুদ ও তেল আন্দাজ মতো।
প্রস্তুত প্রণালী :
তেলে সর্ষে ও শুকনো লঙ্কা ফোড়ন দিতে হবে।শাক নুন হলুদ দিয়ে ভাজা ভাজা করে নিতে হবে।
চিনি দিয়ে নামিয়ে নিতে হবে।

2. কাঁচকলার খোসার শুক্তো

উপকরণ : মোটা করে ছাড়ানো ও সেদ্ধ করা কাঁচকলার খোসা ১ কাপ, পাতলা করে কাটা আলু ( বড় সাইজের ) ১টি, পাতলা করে কুচোনো করলা ১টি, কলাইডালের বড়ি ৪টি, পাঁচফোড়ন ১/৪ চা চামচ, পোস্ত বাটা ২ চা চামচ, আদা বাটা ১ চা চামচ, সর্ষে বাটা ১ চা চামচ, মৌরি বাটা ১ চা চামচ, চিনি ১/২ চা চামচ, নুন হলুদ ও তেল আন্দাজ মতো, সজনে ডাঁটা ২টি, মুলো ১টি (লম্বা করে কুটে নিতে হবে) ৷
প্রস্তুত প্রণালী :
কাঁচকলার খোসা লম্বা লম্বা করে কুটে নিতে হবে। সজনে ডাঁটা লম্বা করে কুটে নিতে হবে।
বড়ি ভেজে তুলে রাখতে হবে।করলা ভেজে তুলে রাখতে হবে।এবারে তেলে পাঁচফোড়ন দিয়ে ও নুন হলুদ দিয়ে আলু কাঁচকলার খোসা, মুলো ও সজনে ডাঁটা সাঁতলে নিতে হবে। নুন হলুদ জল ও পোস্তবাটা দিতে হবে। আলু সেদ্ধ হলে চিনি করলা ভাজা ও বড়ি দিতে হবে। সমস্তটা নামিয়ে নিয়ে আদা মৌরি ও সর্ষে বাটা দিতে হবে।


3. কাঁচকলার খোসার ঘন্ট

উপকরণ : মোটা করে ছাড়ানো ও সেদ্ধ করা কাঁচকলার খোসা ২ কাপ, আগের রাতে ভেজানো ও সকালে সেদ্ধ করা ছোলা ১/২ কাপ, চৌকো করে কুচোনো আলু ১/২ কাপ, গুঁড়োনো বড়ি ভাজা ২ টেবিল চামচ, পাঁচফোড়ন ১/৪ চা চামচ, তেজপাতা ২টি, আদা বাটা ২ চা চামচ, জিরে বাটা ২ চা চামচ, গরম মশলার গুঁড়ো ১/২ চা চামচ, ঘি ২ চা চামচ, তেল আন্দাজ মতো, লঙ্কার গুঁড়ো ২ চা চামচ, চিনি ১ চা চামচ, নুন ও হলুদ আন্দাজ মতো।
প্রস্তুত প্রণালী : 
কাঁচকলার খোসা ছোট ছোট টুকরো করে কেটে নিতে হবে।আলু তেলে ভেজে তুলে রাখতে হবে।
এবারে তেলে পাঁচফোড়ন দিয়ে সেদ্ধ করা কাঁচকলার খোসা নেড়েচেড়ে নিতে হবে।আদা ও জিরে বাটা লঙ্কার গুঁড়ো ও নুন হলুদ এবং ভাজা আলু দিতে হবে।অল্প জল দিয়ে মশলা কষে নিতে হবে। সেদ্ধ ছোলা দিতে হবে। আরও একটু জল দিয়ে সমস্তটা ফুটিয়ে নিতে হবে ও চিনি দিতে হবে।
নামিয়ে নিতে হবে।এবারে ২ চা চামচ ঘি গরম করে তাতে তেজপাতা ও গরম মশলার গুঁড়ো দিতে হবে। ঘন্ট এই গরম মশলা দিয়ে সাঁতলে নিতে হবে।থামায় ঢেলে ওপর থেকে গুঁড়োনো বড়ি ভাজা ছড়িয়ে দিতে হবে। 


4. কাঁচকলার খোসার মাদ্রাজি কারি

উপকরণ : কুচোনো কাঁচকলার খোসা ২ কাপ, নুন ও হলুদ আন্দাজ মতো, কারিপাতা কয়েকটি, লঙ্কার গুঁড়ো ১ চা চামচ, জিরে (আস্ত) ১/২ চা চামচ, মিহি করে কুচোনো বড় সাইজের পেঁয়াজ ১টি, আদা বাটা ১/২ চা চামচ, রসুন বাটা ১/২ চা চামচ, ছোট ছোট টুকরো করে কাটা বড় সাইজের আলু ১টি, বাদাম/রেপসিড তেল ২/৩ টেবিল চামচ।
প্রস্তুত প্রণালী :
ফুটন্ত জলে আন্দাজ মতো নুন ও হলুদ দিয়ে কলার খোসা সেদ্ধ করে নিতে হবে। সেদ্ধ হওয়ার পর জল ঝরিয়ে নিতে হবে। তেল গরম করে জিরে ও কারিপাতা ফোড়ন দিতে হবে। কুচোনো পেঁয়াজ, আদা রসুন বাটা লঙ্কার গুঁড়ো দিয়ে একটু ভেজে নিতে হবে। আলুর টুকরো নুন হলুদ দিয়ে ভাজতে হবে। কাঁচকলার খোসা ও অল্প একটু গরম জল দিতে হবে। পাঁচ/সাত মিনিট পরে নামিয়ে নিতে হবে।


5. কাঁচকলার খোসার বড়া

উপকরণ : সেদ্ধ করা ও থেঁতো করা কাঁচকলার খোসা ১ কাপ, আতপ চাল বাটা ১/২ কাপ, লঙ্কার গুঁড়ো ২ চা চামচ, নুন ও হলুদ আন্দাজ মতো, আস্ত পোস্ত ৪ চা চামচ, ভাজবার জন্যে তেল।
প্রস্তুত প্রণালী : 
থেঁতো করা কাঁচকলার খোসায় নুন হলুদ লঙ্কার গুঁড়ো ও চাল বাটা মিশিয়ে নিয়ে ছোট ছোট বড়ার আকারে গড়ে নিতে হবে।একটা কাগজে পোস্ত ছড়িয়ে রেখে তার ওপর বড়া রোল করে বড়ার গায়ে পোস্ত মাখিয়ে নিতে হবে।ফ্রাই প্যানে তেল গরম করে অল্প অল্প তেল দিয়ে বড়া মচমচে করে ভেজে নিতে হবে।

6. কচুর খোসার বড়া

উপকরণ : মোটা করে ছাড়ানো কচুর খোসা ১ কাপ, আতপ চাল বাটা ১/২ কাপ কাঁচা লঙ্কা বাটা ২ চা চামচ, নুন হলুদ ও তেল আন্দাজ মতো।
প্রস্তুত প্রণালী : 
কচুর খোসা থেঁতো করে নিয়ে তাতে নুন হলুদ লঙ্কা ও চাল বাটা মেশাতে হবে।
বড়ার আকারে গড়ে নিয়ে ফ্রাই প্যানে বা তাওয়ায় অল্প অল্প তেল দিয়ে ভাজতে হবে।


7. মুলোর শাক ও নটে শাকের ঘন্ট

উপকরণ : সেদ্ধ করা ও বেটে নেওয়া মুলোর পাতা ১ কাপ, সেদ্ধ করা ও বেটে নেওয়া কচি নটে শাক ১ কাপ, কুচোনো বেগুন ভাজা ১/২ কাপ, কুচোনো মুলো ভাজা ১/২ কাপ, কলাইডালের বড়ি ভেজে গুঁড়িয়ে নেওয়া ২ টেবিল চামচ, আদা বাটা ২ চা চামচ, মৌরি বাটা ২ চা চামচ, তেজপাতা ২ টি, পাঁচফোড়ন ১/৪ চা চামচ, চিনি ১ চা চামচ, লঙ্কার গুঁড়ো ১ চা চামচ, নুন হলুদ ও তেল আন্দাজ মতো।
প্রস্তুত প্রণালী : 
তেলে পাঁচফোড়ন ও তেজপাতা দিতে হবে।
সুঘ্রাণ বেরোলে মুলো ও নটে শাক বাটা, নুন, হলুদ, চিনি ও লঙ্কার গুঁড়ো দিয়ে নেড়ে চেড়ে ভেজে নিতে হবে।অল্প জল দিতে হবে।জল ফুটতে থাকলে এবং গা মাখা হয়ে এলে বেগুন ও মুলো ভাজা দিতে হবে। নামিয়ে নেওয়ার আগে আদা মৌরি বাটা দিতে হবে।একটা থালায় সমান করে রেখে ওপর থেকে বড়ি ভাজার গুঁড়ো ছড়িয়ে দিতে হবে। ইচ্ছে করলে মুলো ও বেগুন ভাজার সঙ্গে এই ঘন্টতে ছোট ছোট টুকরো করে কাটা ১/২ কাপ আলু ভাজাও দেওয়া যেতে পারে।


8. লাউয়ের খোসা ভাজা

উপকরণ : মোটা ছাড়ানো লাউয়ের খোসা ২ কাপ, সর্ষে ১/২ চা চামচ, শুকনো লঙ্কা ২ টি, নুন ও হলুদ আন্দাজ মতো, সর্ষে বা রেপসিড তেল ২ টেবিল চামচ, চিনি ১/২ চা চামচ।
প্রস্তুত প্রণালী : 
লাউয়ের খোসা কুচিয়ে নিয়ে ভাল করে সেদ্ধ করে নিতে হবে।
সেদ্ধ হয়ে গেলে জল ঝরিয়ে নিতে হবে। এবারে তেল গরম করে শুকনো লঙ্কা ও সর্ষে ফোড়ন দিতে হবে। লঙ্কা খুন্তি দিয়ে ফাটিয়ে নিতে হবে। সর্ষে ফুটে উঠলে লাউয়ের খোসা নুন ও হলুদ দিয়ে ভাজা ভাজা করতে হবে। চিনি দিতে হবে ও নামিয়ে নিতে হবে। ভাতের সঙ্গে শুকনো মেখে খেতে চমৎকার।


9. পোস্ত দিয়ে লাউয়ের খোসা

উপকরণ : কুচিয়ে কেটে সেদ্ধ করা লাউয়ের খোসা ২ কাপ, পোস্ত বাটা ৪ টেবিল চামচ, কাঁচা লঙ্কা বাটা ১ চা চামচ, নুন ও হলুদ আন্দাজ মতো, চিনি ১/২ চা চামচ, পাঁচফোড়ন ১/৪ চা চামচ, সর্ষে বা রেপসিড তেল ২ টেবিল চামচ, সর্ষের তেল ১ চা চামচ, শুকনো লঙ্কা ২টি।
প্রস্তুত প্রণালী : 
২ টেবিল চামচ তেলে পাঁচফোড়ন ও শুকনো লঙ্কা দিতে হবে।ফোড়নের সুঘ্রাণ বেরোলে লাউয়ের খোসা নুন ও হলুদ দিয়ে নেড়েচেড়ে নিতে হবে। এবারে পোস্তবাটা অল্প জলে গুলে ঢেলে দিতে হবে।
সমস্তটা ভাল করে ফুটে জল শুকিয়ে এলে চিনি ও কাঁচা লঙ্কা বাটা দিতে হবে। নামিয়ে নিয়ে ১ চা চামচ সর্ষের তেল ছড়িয়ে দিতে হবে। ভাতের সঙ্গে মেখে খেতে অতি মুখরোচক।

10. লাউ-খোসার পাতুরি

উপকরণ : মোটা করে খোসা ছাড়ানো ও চৌকো চৌকো করে কেটে সেদ্ধ করা লাউয়ের খোসা ১ কাপ, পাতলা ও লম্বা করে কোটা বড় সাইজের আলু ১টি, কলাই ডালের বড়ি ৪টি, সর্ষে বাটা ২ টেবিল চামচ, কাঁচা লঙ্কা বাটা ২ চা চামচ, নুন ও হলুদ আন্দাজ মতো, পাঁচফোড়ন ১/৪ চা চামচ, চেরা কাঁচা লঙ্কা ২টি, তেল আন্দাজ মতো, সর্ষের তেল ১ চা চামচ।
প্রস্তুত প্রণালী :
প্রথমে বড়ি ভেজে তুলে রাখতে হবে।তারপরে তেলে পাঁচফোড়ন ও কাঁচা লঙ্কা ফোড়ন দিয়ে আলু নুন ও হলুদ দিয়ে ভাজা ভাজা করে নিতে হবে। আন্দাজ মতো জল দিতে হবে। জল ফুটে উঠলে লাউখোসা, সর্ষে বাটা দিতে হবে। সমস্তটা ফুটতে থাকলে বড়ি দিতে হবে ও কাঁচা লঙ্কা বাটা দিতে হবে।
ঝোল ঘন হয়ে এলে নামিয়ে নিয়ে কাঁচা সর্ষের তেল ছড়িয়ে দিতে হবে।



11. আলুর খোসা ভাজা

উপকরণ : মোটা করে ছাড়ানো আলুর খোসা ১ কাপ, নুন ও হলুদ আন্দাজ মতো, ভাজবার জন্যে তেল।
প্রস্তুত প্রণালী : 
আলুর খোসা যেমনভাবে ছাড়ানো হয় তেমন লম্বালম্বি থাকলে কুচিয়ে কাটতে হবে না তবে ভাল করে ধুয়ে নিতে হবে যাতে কাদা মাটি না থাকে আলুর খোসার নুন ও হলুদ মাখিয়ে নিতে হবে।
ছাঁকা তেলে খোসাগুলো মচমচে করে ভাজতে হবে। ডাল ভাতের সঙ্গে গরম গরম খোসা ভাজা খেতে ভাল লাগবে। আর কোন তরকারি দরকারই হবে না কিংবা শুকনো ভাতের সঙ্গে ঘি দিয়ে মেখে খেলেও থালার অর্ধেকটা ভাত উঠে যাবে।


12. পোস্ত দিয়ে আলুর খোসা

উপকরণ : মিহি করে কুচোনো আলুর খোসা ২ কাপ, পোস্ত বাটা ৪ টেবিল চামচ, পাঁচফোড়ন ১/৪ চা চামচ, শুকনো লঙ্কা ২টি, কাঁচা লঙ্কা বাটা ১ চা চামচ, নুন ও হলুদ আন্দাজ মতো, চিনি ১/২ চা চামচ, তেল ২ টেবিল চামচ।
প্রস্তুত প্রণালী : 
তেলে পাঁচফোড়ন ও শুকনো লঙ্কা ফোড়ন দিতে হবে।ফোড়নের সুঘ্রাণ বেরোলে কুচোনো আলুর খোসা নুন ও হলুদ দিয়ে ভাল করে নড়েচড়ে নিতে হবে।অল্প জল দিয়ে সমস্তটা ঢেকে দিতে হবে।
খোসা সেদ্ধ হলে পোস্ত বাটা ও চিনি দিতে হবে। মাখা মাখা হয়ে এলে কাঁচা লঙ্কা বাটা দিয়ে নামিয়ে নিতে হবে।


13. আলুর খোসার পকৌড়া

উপকরণ : মিহি করে কুচোনো ও সেদ্ধ করে জল ঝরানো আলুর খোসা ১ কাপ, বেসন ২ কাপ, শুকনো পোস্ত ১ চা চামচ, কালজিরে ১/২ চা চামচ, লঙ্কার গুঁড়ো ১ চা চামচ, ময়ানের জন্যে তেল ১ টেবিল চামচ, নুন ও হলুদ আন্দাজ মতো, ভাজবার জন্যে তেল।
প্রস্তুত প্রণালী :
বেসনে ১ টেবিল চামচ তেলে ময়ান দিতে হবে। নুন, হলুদ, লঙ্কার গুঁড়ো, পোস্ত ও কালজিরে মিশিয়ে ঘন করে গুলে নিতে হবে।এবারে সেদ্ধ করা আলুর খোসা মিশিয়ে ভাল করে ফেটিয়ে নিতে হবে।
গরম ছাঁকা তেলে ছোট ছোট পকৌড়া বা বড়া ভেজে নিতে হবে।ডাল ভাতের সঙ্গে গরম গরম খেতে উপাদেয় । চায়ের সঙ্গে ও খাওয়া চলে।

14. কুমড়োর বা চালকুমড়োর খোসার মশলা কারি


উপকরণ : কুচিয়ে কাটা কুমড়ো বা চালকুমড়োর খোসা ২ কাপ, আমচুর ১ চা চামচ, ধনেগুঁড়ো ১ চা চামচ, গরম মশলা ১/৪ চা চামচ, আস্ত জিরে ১/৪ চা চামচ, লঙ্কার গুঁড়ো ১/২ চা চামচ, নুন ও হলুদ আন্দাজ মতো, সর্ষে/রেপসিড তেল ২ টেবিল চামচ।

প্রস্তুত প্রণালী :

তেল গরম করে জিরে ফোড়ন দিতে হবে। খোসা আগে থেকেই সেদ্ধ করে রাখতে হবে।
ওই তেলে খোসা নুন ও হলুদ দিয়ে ভাজতে হবে।  ধনে গুঁড়ো, লঙ্কার গুঁড়ো ও আমচুর দিয়ে ভাজা ভাজা করে নামিয়ে নিতে হবে।


15. ফুলকপির ডাঁটার ছেঁচকি


উপকরণ : ছোট ছোট টুকরো করে কাটা ও সেদ্ধ করা ফুলকপির ডাঁটা ২ কাপ, পেঁয়াজ বাটা ২ টেবিল চামচ, কুচোনো টোম্যাটো ১টি, রসুন বাটা ১ চা চামচ, আদা বাটা ১ চা চামচ, লঙ্কার গুঁড়ো ১/২ চা চামচ, নুন ও হলুদ আন্দাজ মতো, চিনি ১/২ চা চামচ, সর্ষে/রেপসিড তেল ২ টেবিল চামচ।

প্রস্তুত প্রণালী :

তেলে পেঁয়াজ রসুন আদা বাটা ও টোম্যাটো কষে নিতে হবে। নুন, হলুদ লঙ্কার গুঁড়ো ও চিনি এবং সেদ্ধ করা ডাঁটার টুকরো দিতে হবে। সমস্তটা ভাজা ভাজা হলে নামিয়ে নিতে হবে। রুটি পরোটা দিয়ে খেতে চমৎকার।



ভালো লাগলে নীচের Whatsapp  বাটনে ক্লিক করে শেয়ার করুন । 

সবজীর খোসা ও শাকপাতা দিয়ে দুর্দান্ত ১৫ টি রেসিপি সবজীর খোসা ও শাকপাতা দিয়ে দুর্দান্ত ১৫ টি রেসিপি Reviewed by Kona Dey Chakraborty on August 28, 2018 Rating: 5

No comments:

Powered by Blogger.