Featured Posts

[Travel][feat1]

সাপ্তাহিক রাশিফল ০৮/০৯/১৯ থেকে ১৪/০৯/১৯ পর্যন্ত

September 09, 2019


মেষ রাশি: কারোর উপদেশ উপেক্ষা করে নিজে সিদ্ধান্ত নিতে যাবেন না। রবিবার বাধার ভেতরে কাটবে। সোমবার দুপুরে নতুন যোগাযোগ। মঙ্গলে আপনার বক্তব্য গ্রহণযোগ্য হবে। বুধে অনুকূল প্রভাব। বৃহস্পতিবার সন্তানের সঙ্গে কথা বলে নিশ্চিত। শুক্রে রাতে সতর্ক ভাবে কত্ব বলুন। শনিতে আশানুরূপ কিছু পাবেন না।
বৃষ রাশি: একটু অসহায় বোধ করবেন। রোববার শুভ নয়। সোমবার  বিশ্বাসভাজন কাউকে পাওয়া মুশকিল। মঙ্গলবার মনের সঙ্গে পরিবেশের খাপ খাবে না। বুধে কাউকে দিয়ে কার্যোদ্ধার করতে রাত হয়ে যাবে। বৃহস্পতিবার শুভ পরিবর্তন। শুক্রে কর্ম, অর্থ ও পরিবারযোগ অত্যন্ত শুভ। শনিতে কেউ পরামর্শ দিলে ভাগ্যপ্রদই হবে।
মিথুন রাশি: দাম্পত্য জীবনে নানা কারণে মনটা তত ভালো হবে না। রবিবার শুরুটা তত শুভ নয়। সোমবার দুপুরের পর শত্রুপক্ষ  সক্রিয় হবে। মঙ্গলবার নিয়মের বাইরে গিয়ে কিছু করা যাবে না। বুধে সমস্যা বাড়তে পারে। বৃহস্পতিবার তৎপরতার সাথে এগিয়ে যান। শুক্রে জটিলতা অব্যাহত। শনিতে ঝামেলা অব্যাহত। 

কর্কট রাশি: ন্যায্য আদায় হবে, পুরোপুরি সন্তুষ্টি আসবে না। রোববার নিজের উদ্যোগে বিরোধিপক্ষকে মতামত জানিয়ে দেবেন। সোমবার অনুকূল যোগাযোগ। মঙ্গলে প্রয়োজনীয় কাজ সহজেই এগিয়ে নেবেন। বুধে পারিবারিক দিকে নজর দেওয়া লাগতে পারে। বৃহস্পতিবার বিরূপ মন্তব্য করলে সমস্যা বাড়তে পারে। শুক্রে কার্যোদ্ধার করতে সময় লাগবে। শনিতে কোনো প্রতিবাদ করলে ফল বিপরীত হবে।

সিংহ রাশি: নিকটজন কাউকে বঞ্চিত করে পরিস্থিতি সামাল দেবেন। রোববার প্রিয়জনের জন্য মন খারাপ থাকবে। সোমবার সব মিলয়ে হয়রানিতে কষ্ট। মঙ্গলবার ছোট কারো সিদ্ধান্ত লাভ। বুধে কর্মদক্ষতার দ্বারা প্রতিকূলতা জয় করবেন। বৃহস্পতিবার দরকারি আলোচনা সার্থক। শুক্রে দিনটি ভালোই কাটবে। শনিতে অশুভযোগ, অর্থনাশ।

কন্যা রাশি: নতুন যোগাযোগে প্রতিপত্তি বাড়বে। রবিবার প্রিয়জনের জন্য মন খারাপ। সোমবার অশুভযোগ। মঙ্গলবার ছোট কারো সিদ্ধান্ত লাভ। বুধে কর্মদক্ষতার দ্বারা প্রতিকূলতা জয় করবেন। বৃহস্পতিবার সুযোগ আসতে পারে। শুক্রে সুখদায়ক যোগাযোগ। শনিতে বিচক্ষণতার দ্বারা জয়ী।

তুলা রাশি: ছোট সমস্যাগুলি কমবে। রবিবার সন্ধ্যা নাগাদ ন্যায্য পাওনা পেতে পারেন। সোমবার তুচ্ছ কারণে ভুল বোঝাবুঝি। মঙ্গলে শত্রুতা নয়। বুধে কর্মকে প্রাধান্য দিন। বৃহস্পতিবার কথা রাখার চেষ্টা করুন। শুক্রে প্রতিকূল প্রভাব। শনিবার বিকেলে কিছু আশা করতে পারেন।

বৃশ্চিক রাশি: গোপন ইচ্ছা জেনে গেলে বিপদ। রোববার পাওনা আদায় করতে তিক্ততা। সোমবার দুপুরের পর বন্ধুর সঙ্গে যোগাযোগ। মঙ্গলে কোথাও গেলে ভালো হবে। বুধে কেনাবেচার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিন। বৃহস্পতিবার ঝামেলা মানিয়ে চলতে হবে। শুক্রে পক্ষে ও বিপক্ষে দুরকম প্রভাবই থাকবে। শনিতে কাউকে সাহায্যের ইচ্ছা থাকলেও পারবেন না।

ধনু রাশি: বয়সে ছোট হয়েও অভিভাবকের মতো দায়িত্ত্ব পালন করবেন। রোববার সাহায্য পেয়ে যাবেন। সোমবার দুপুরের পর খরচ বেশি। মঙ্গলে বেশি কিছু আশা করবেন না। বুধে হিসাব করে চললে ভালোই কাটবে। বৃহস্পতিবার ভাই বোনের সাহায্য পেয়ে যাবেন। শুক্রে দিনের শুরু আশাপ্রদ। শনিতে ঘনিষ্ঠ কাউকে নিয়ে বেলায় অশান্তি।

মকর রাশি: টুকটাক শরীর খারাপ অগ্রগতিতে বাধা। রোববার বাধাবহুল। সোমবার দুপুরের পর উন্নতি। মঙ্গলবার প্রয়োজনীয় কাজ শেষ করুন। বুধে অনুকূল প্রভাব। বৃহস্পতিবার পূর্বের অসুখে কাবু হতে পারেন। শুক্রে ছোট সন্তানের সমস্যা। শনিতে অর্থলাভ।

কুম্ভ রাশি: ব্যক্তিগত কাজ অনেকটা এগিয়ে নিয়ে যাবেন। রবিবার সন্তানের খবর পেতে পেতে সন্ধ্যা হয়ে যাবে। সোমবার প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকে দরকার। মঙ্গলে শারীরিক কারণে ব্যাঘাত। বুধে শত্রুরা সাহায্য করবে। বৃহস্পতিবার গতানুগতিক দিনযাপন। শুক্রে ঘরে বাইরে আনন্দের সঙ্গে কাটাবেন। শনিতে কারোর জন্য সময় নষ্ট হবে।

মীন রাশি: ঘরে স্বাচ্ছন্দ্য থাকবে। রবিবার পিতৃস্থানীয় কেউ আপনার পক্ষে থাকবে। সোমবার কাজ নিয়ে বাধা আসবে না। মঙ্গলে হারিয়ে যাওয়া কিছুর হদিশ মিলবে। বুধে পরিবারের সঙ্গে কাটানো দরকার। বৃহস্পতিবার সন্তানের থেকে বেশি কিছু আশা না করা ভালো। শুক্রে সহকর্মীর সঙ্গে ঐক্যমত্য হন। শনিতে অনুকূল পরিবেশ।
সাপ্তাহিক রাশিফল ০৮/০৯/১৯ থেকে ১৪/০৯/১৯ পর্যন্ত সাপ্তাহিক রাশিফল ০৮/০৯/১৯ থেকে ১৪/০৯/১৯ পর্যন্ত Reviewed by WisdomApps on September 09, 2019 Rating: 5

বালুরঘাট থেকে হিলি - ভারত বাংলাদেশ বর্ডার - ভ্রমণ ও পারাপার গাইড

September 08, 2019
ভারত বাংলাদেশের হিলি বর্ডার কেমন ? এখানে কীভাবে যাবেন ? কীভাবে পার হবেন ? কি কি বিষয় খেয়াল রাখবেন ? 
কিছুদিন আগে আমার স্ত্রী ও শ্বাশুড়ি মা - বাংলাদেশের এক আত্মীয় ঘুরতে যাবেন ঠিক করলেন । তাদের পাসপোর্ট করাই ছিল । ১ মাসের ভিসা বের করে নেওয়া হল ।  হিলি বর্ডার দিয়ে পার করলে  ওদেশে আত্মীয় বাড়ি বেশ কাছে হয় ,তাই ঠিক হল হিলি বর্ডারে গিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করা হবে ।  আমার দায়িত্ব পড়েছিল বর্ডারে পৌছে দেওয়ার । নৈহাটি স্টেশন থেকে রাত ১১টা০৩ এ গৌড় লিঙ্ক এক্সপ্রেস ধরে বালুঘাটের উদ্দেশ্যে যাত্রা করলাম ।  পরের দিন সকাল সাড়ে দশটা নাগাদ বালুরঘাট স্টেশনে পৌছালাম । 

এই হল বালুরঘাট স্টেশন । 



শান্ত , নির্জন স্টেশন । দোকানপাট তেমন কিছুই নেই । 

স্টেশনের মেইন গেট দিয়ে বেরোলে দেখতে পাবেন টুকটুকি , অটো আর বাসের ভিড় । টুকটুকি রিজার্ভ করলে ৩০০ টাকা লাগে , রাস্তা খারাপ হওয়ায় টুকটুকি করে হিলি বর্ডার যেতে অনেক সময় লাগে , তাই আমরা বাসে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিলাম । বাসে ভাড়া জনপ্রতি ২৮ টাকা  । প্রায় ১ ঘন্টা বাস জার্নি করে হিলি বাস স্ট্যান্ডে পৌছালাম । বাস থেকে নামলেই টুকটুকি চালকেরা হাত ধরে টানাটানি করে । আপনি উঠতে না চাইলেও তারা আপনাকে টেনেই যাবে । ভাড়া মাত্র ১০ টাকা । আসলে বাস স্ট্যান্ড থেকে ঠিক ২ মিনিট হাটলেই হিলি বর্ডারে পৌঁছে যাবেন ।টুক্টুকির কোনো দরকার পড়ে না ।  তবে সাথে বেশী লাগেজ থাকলে টুকটুকি করে নেওয়া ভালো ।

বর্ডারের কাছে পৌছানোর ঠিক আগে রাস্তার বা হাতে একটি ভালো হোটেল দেখতে পাবেন , পূজা হোটেল । খিদে পেলে এখানে খাওয়া দাওয়া সেরে নিতে পারবেন ।

হোটেল থেকে একটু এগিয়ে গেলেই বর্ডার । 

বর্ডারে প্রথমেই পাবেন , ইমিগ্রেশান চেক পোষ্ট । 



এই  অফিসের সামনে এলেই  কয়েকজন মানুষ আপনার কাছে এসে জিজ্ঞেস করবে - " আপনি কার লোক ? " , এর অর্থ - আপনার পাসপোর্টেটি নিয়ে কে কাজ করে ? চেনা কেউ থাকলে তাঁর নাম করলেই আপনাকে ছেড়ে দেবে । নতুন হলে অনেকেই আপনাকে " তাঁর লোক " করার চেষ্টা করবেন । ভদ্র সভ্য লোক দেখে বিশ্বাস করে তাঁর হাতে আপনার পাসপোর্টটি দিয়ে দিতে হবে । বাংলাদেশে কোথায় কার কাছে যাবেন তাঁর ঠিকানা , ফোন নাম্বার এবং আপনার বিস্তারিত ঠিকানা ও ফোন নাম্বার শুনে নিয়ে সেই ভদ্রলোক সমস্ত ফর্ম ফিলাপ করে লাইনে দাঁড়িয়ে জমা দিয়ে দেবেন । সিরিয়ালে আপনার নাম এলে তারাই আপনাকে ডাক দিয়ে ভিতরে গিয়ে ছবি তুলতে বলবে । সব হওয়ার পর আপনার হাতে পাসপোর্ট ফেরত দেওয়ার আগে এই কাজগুলি করার পারিশ্রমিক হিসাবে তাঁর প্রাপ্য টাকা তিনি চেয়ে নেবেন । আপনি চাইলে নিজে এই সমস্ত কাজ করতে পারেন তাহলে কোন এক অজানা কারনে আপনাকে কয়েক ঘন্টা অপেক্ষা করতে হতে পারে , বুঝতেই পারছেন ব্যাপারটা । আমি মনে মনে ভাবলাম এনারা একটা সার্ভিস দিচ্ছেন তাই দালাল না বলে সার্ভিস প্রোভাইডার বলাই ভালো । ৫০ / ১০০ টাকা সার্ভিস চার্জ দেওয়া আর কি । প্রয়োজনে এনাদের কাছ থেকে টাকা এক্সচেঞ্জ করে নিতে পারেন । অবশ্যই প্রতি ক্ষেত্রে দরদাম করে নেবেন , এক এক জনের কাছে এনারা এক এক রকম টাকা দাবি করেন  । আমাদের সামনেই দেখলাম এক ভদ্রলোককে ভারতীয় ১০০ টাকার বদলে ১১৩ বাংলাদেশী টাকা দিলেন পাশে অন্যজনকে ১১৭টাকা দিলেন । কাজেই সাবধান হয়ে শান্ত মাথায় দরদাম করতে হবে । ফর্ম টম ফিলাপের পর কাস্টমস ক্লিয়ার করতে হবে । 

এটি হল কাস্টমস অফিস । 


এখানে চেকিং হওয়ার পর এগিয়ে গিয়ে একটা রেজিস্টার খাতায় সই করতে হবে । তারপর আপনার সিকিউরিটি চেক হবে ।  বিএসেফ রক্ষীরা আপনার ব্যাগের জাবতীয় জিনিসপত্র নেড়ে চেড়ে সিকিউরিটি চেকিং করবে । কাস্টমস থেকে সিকিউরিটি চেকিং পর্যন্ত ব্যাগ বয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য একটি ছেলে প্রস্তুত থাকে , আপনি না চাইলেও সে আপনার ব্যাগ বয়ে নিয়ে পৌঁছে দেবে , এবং ১০/ ২০ টাকা চাইবে । 

পায়ে হেঁটে নো ম্যান্স ল্যান্ড পার করলে বাংলাদেশ সিকিউরিটি চেকাপ । বাংলাদেশের বর্ডার সিকিউরিটি ফোরস ঠিক একইভাবে নেড়ে চেড়ে ব্যাগ পরীক্ষা করে , পাসপোর্ট চেক করে আপনাকে বাংলাদেশ প্রবেশের অনুমতি দেবে । ওদেশে ঢুকে প্রথমে কাস্টমস ক্লিয়ার করতে হবে , তারপর ফর্ম ফিলাপ ও অন্যান্য নিয়ম পালন করার পর দেশে ঘোরার অনুমতি পাবেন । 

বড়ই আশ্চর্য লাগবে দেখলে । একটি রেলগেট , গেটের এপারে ভারতবর্ষ আর ওপারে বাংলাদেশ ।
প্রায় সবসময়ই দেখা যাবে কিছু মানুষ গেটের দুইপাশে দাড়িয়ে আছেন । একবাংলার মানুষ অপেক্ষা করছেন আরেক বাংলার মানুষের । 

এই রেলগেটটি কিন্তু সচল গেট । সঠিক সময়ে গেলে এই রেল লাইন দিয়ে বাংলাদেশের ট্রেন চলাচল দেখতে পাবেন ।


যাইহোক , আপনি যদি কাউকে পৌঁছে দিতে যান তবে অবশ্যই নিজের অরিজিনাল ভোটার / আধার কার্ড এবং সাথে একটি জেরক্স কপি সঙ্গে নিয়ে নেবেন । অনেক সময় বর্ডারে জিজ্ঞাসাবাদ করে । প্রয়োজনে পরিচয়পত্র দেখাতে হতে পারে । 

এই ছিল হিলি বর্ডার , রেলগেট পেরোলেই দেশ বদল । 

আর , প্রথমে বললাম যে একটি মজার ঘটনা বলব । সেটা শোনাই । বর্ডারে যাওয়ার দিন নো ম্যান্স ল্যান্ডে দাঁড়িয়ে আমরা আমাদের বাংলদেশের আত্মীয়দের সাথে ছবি তুলছিলাম । সেই সময় দেখি একটি ছেলেকে বি-এস-এফ রা ধরেছে । জানতে পারলাম  ছেলেটি ব্যবসা করে । ভারত থেকে দার্জিলিং-চা কিনে নিয়ে বাংলাদেশে  বিক্রি টিক্রি করে হয়ত । দুটো বড় বড় জারে করে চা পাতা নিয়ে যাচ্ছিল । সিকিউরিটি চেকাপের সময় বাংলাদেশের আর্মি চায়ের জারের সিল কেটে চা বের করে শুঁকতে গিয়ে আবিষ্কার করলেন জারের ভিতর একটি বড় বোতল লোকানো । আমাদের সামনেই দেখলাম দুটি জার থেকে উদ্ধার হল দুটি বোতল । দুটি বোতলেই  বিদেশী ব্র্যান্ডের নিষিদ্ধ পানীয় ভরা । আর যাবে কোথায় ?? কান ধরে নাক ধরে বারবার ক্ষমা চাইতে লাগলো  ছেলেটি । 


ছেলেটি বয়স ২৭ / ২৮ হবে , গায়ে গোল গলা লাল গেঞ্জী , আর জিন্স প্যান্ট , মুখে খোঁচা খোঁচা দাড়ি । ধরা পরেই সে কথা বলা শুরু করে দিল । তাঁর বক্তব্য হল - সে এই চা কিনেছে দোকান থেকে , কে যে এর মধ্যে বোতল ঢুকিয়েছে তাঁর জানা নেই । এই কথা শুনেই বি-এস-এফ থেকে সাধারন পাবলিক সবার হাসি পেয়ে গেছিল । ছেলেটি জেল খাটার ভয়ে নিজে নিজেই কান ধরে উঠবস করছিল । সে সব দৃশ্য ভিডিও করা সম্ভব হয়নি কিন্তু কল্পনা করে নিন , হাসবেন না কাঁদবেন । এইসব দেখে , ফেরত আসার সময় - পথে,পাকা রাস্তার ধারের একটা গ্রামে  একটি কালী মন্দীর দেখেছিলাম । লোকাল লোকেদের কাছ থেকে জানতে পারি এটি  ১০০০ বছরের পুরানো মন্দির । সেই মন্দির নিয়ে পরের পোস্টে লিখবো  । কোনো কিছু জানতে চাইলে নীচে কমেন্ট করতে পারেন । 
ভালো থাকবেন , সুখে থাকবেন । 


" হিলি বর্ডার নিয়ে আমাদের একটি ইউটিউব ভিডিও আছে , দেখতে চাইলে এখানে ক্লিক করুন " 



   
বালুরঘাট থেকে হিলি - ভারত বাংলাদেশ বর্ডার - ভ্রমণ ও পারাপার গাইড বালুরঘাট থেকে হিলি - ভারত বাংলাদেশ বর্ডার - ভ্রমণ ও পারাপার গাইড Reviewed by WisdomApps on September 08, 2019 Rating: 5

সাপ্তাহিক রাশিফল 01/09/19 থেকে 07/09/19

September 02, 2019


মেষ রাশি: যারা চিকিৎসা ক্ষেত্রে রয়েছে তাদের সাফল্য সূচিত করেছে। রবিবার মোটামুটি ভালো। সোমবার অনুকূলে পরিবেশ। মঙ্গলে দক্ষ মহিলার সাহায্যে প্রাপ্তি। বুধে সন্তানের কাজ গুলি হয়ে যাবে। বৃহস্পতিবার অস্বস্তিকর পরিবেশ। শুক্রে কেউ বদনাম দিতে পারে। শনিতে ভাগ্যবলে শত্রুপক্ষের সঙ্গে দেখা হবে না। 


বৃষ রাশি: উপহার স্বরূপ মূল্যবান প্রাপ্তি। রবিবার চঞ্চলতার ভেতরে কাটবে। সোমবার অর্থনৈতিক ব্যাপারে অস্থিরতা। মঙ্গলে দৈনন্দিন দিন যাপন। বুধে কাজের চাপ বাড়বে। বৃহস্পতিবার প্রয়োজনীয় কাজগুলি শেষ হবে। শুক্রে সুখবরে শান্তি। শনিতে অধঃস্তন কর্মীর দ্বারা উদ্দেশ্য সফল। 

মিথুন রাশি: বন্ধুর মাধ্যমে কার্যোদ্ধারের সম্ভাবনা নেই। রোববার পারিবারিক সমস্যা। সোমবার বিকালের পর আলোচনার মাধ্যমে সমাধান সূত্র আসবে। মঙ্গলে প্রতিকূল প্রভাব। বুধে কাউকে বিশ্বাস করার আগে খোঁজ নিন। বৃহস্পতিবার শত্রুপক্ষ নমনীয়। শুক্রে অবসর দিনযাপন। শনিতে শুভ পরিবর্তন। 

সিংহ রাশি: লেনদেন ব্যাপারে কারোর ওপর আস্থা রাখতে পারবেন না। রোববার কাউকে কথা দিলে আপনার যাওয়া উচিত। সোমবার সকালের সিদ্ধান্ত রাতে ফলপ্রসূ হবে। মঙ্গলবার ঘনিষ্ঠ কারোর সঙ্গে যোগাযোগ। বুধবার অনুকূলে পরিবেশ। বৃহস্পতিবার গ্রহগত ঝামেলা। শুক্রে অশুভ প্রভাব। শনিতে  অর্থক্ষতি।

কন্যা রাশি: কর্মের উদ্দেশ্য অন্যত্র প্রশিক্ষণের জন্য যাবেন। রোববার অনুকূলে পরিবেশ। সোমবার প্রয়োজনীয় খরচ করুন। মঙ্গলে হটাৎ সিদ্ধান্ত বদল করবেন না। বুধে ধৈর্য্য ধরে বসুন। বৃহস্পতিবার সহদরস্থানীয়ের সঙ্গে কাজ করে শান্তি। শুক্রে নানা বাধায় জেরবার। শনিতে অশুভ প্রভাব অব্যাহত।

তুলা রাশি: যতটা সম্মান আশা করেছিলেন ততটা পাবেন না। রবিবার শরীর নিয়ে কষ্টযোগ। সোমবার এলোমেলোভাবে কাটবে। মঙ্গলে অনুকূল প্রভাব। বুধে বেশ ভালোই কাটবে। বৃহস্পতিবার ব্যায়বৃদ্ধি। শুক্রে দুপুরে সুখবর। শনিতে বন্ধুর দ্বারা উপকৃত হবেন।

বৃশ্চিক রাশি: কোনো ঘটনা অস্বস্তিতে ফেলবে। রবিবার ভালোই কাটবে। সোমবার পদস্থ ব্যক্তির সান্নিধ্য। মঙ্গলে কর্মযোগ শুভ। বুধে কর্মে অগ্রগতি। বৃহস্পতিবার প্রাপ্য অর্থ পেয়ে যাবেন। শুক্রে দুপুরের পর সুখবর আসবে। শনিতে কাউকে কথা দিয়ে যেতে পারবেন না। 

ধনু রাশি: নিজেই নিজের বন্ধনের কারণ হবেন। রবিবার স্বাচ্ছন্দ্য ভাবে দিনটি কাটবে। সোমবার শুভ যোগাযোগ। মঙ্গলে সাফল্য লাভ। বুধে প্রয়োজনীয় কাজগুলি শেষ করুন। বৃহস্পতিবার  ও শুক্রে অশুভ প্রভাব। শনিতে সবদিক সামলে নেবেন।

মকর রাশি: অপ্রত্যাশিত যোগাযোগে প্রাপ্তি। রোববার কোথাও গিয়ে লাভ হবে না। সোমবার অশুভ প্রভাব। মঙ্গলে কার্যোদ্ধারে সক্ষম। বুধে অপূর্ণতা থাকবে। বৃহস্পতিবার হটকরে সিদ্ধান্ত নেবেন না। শুক্রে বেলায় সুখবর। শনিতে অন্যভাবে চলার চেষ্টা করুন। 

কুম্ভ রাশি: অর্থ খরচ করে অন্যত্র গেলে ভালো থাকবেন। রোববার প্রলোভনে পা দেবেন না। সোমবার সতর্ক ভাবে চলুন। মঙ্গলবার অসন্তোষ বাড়বে। বুধে কাউকে সরাসরি অপ্রিয়বাক্য বলা উচিত হবে না। বৃহস্পতিবার সুখপ্রদ কিছু ঘটতে পারে। শুক্রে স্থিতিশীল পরিবেশ। শনিতে অর্থকরী প্রস্তাব গ্রহণ করুন।

মীন রাশি: কাউকে আদেশ করলে কাজ করে দিতে বাধ্য হবে। রোববার অনুকূল পরিবেশ। সোমবার দরকারি কাজ শেষ করুন। মঙ্গলে বিরুদ্ধে পরিবেশ। বুধে কোনো চুক্তিতে যাওয়া ঠিক হবে না। বৃহস্পতিবার ঝামেলা এড়িয়ে চলুন। শুক্রে কথা বলার ধরণের ওপর পরিবেশ নির্ভর করছে। শনিতে বন্ধুকে সঙ্গে রাখার চেষ্টা করুন।
সাপ্তাহিক রাশিফল 01/09/19 থেকে 07/09/19 সাপ্তাহিক রাশিফল 01/09/19 থেকে 07/09/19 Reviewed by WisdomApps on September 02, 2019 Rating: 5

নামচি চারধাম ভ্রমণ গাইড , কীভাবে যাবেন ? কি কি দেখবেন ?

August 24, 2019
নামচি ,
নামচি চারধামের ট্যুর সহ বিস্তারিত জানতে পারবেন এই ভিডিও থেকে ।
পেলিং থেকে ২য় দিনের ট্যুর প্ল্যানে যেতে পারেন রাভাংলা ও নামচি । 
নিউ জলপাইগুড়ি থেকে গাড়ি রিজার্ভ করে সরাসরি নামচি আসা যায় দুরত্ব ৯৫ কিমি , সময় লাগে ৩ থেকে ৪ ঘন্টা । তবে পেলিং বা গ্যাংটক থেকে সাইট সিন হিসাবে নামচি ঘুরে নেওয়া বেশি ভালো । পেলিং থেকে গাড়ি ভাড়া করলে নামচি রাভাংলা ও টেমি টি গার্ডেন ঘুরিয়ে গাড়ি হোটেলে নামিয়ে দেয় , ভাড়া পরে গাড়ি পিছু ৩০০০ থেকে ৩৫০০ টাকা , অবশ্যই দরদাম করে নিতে হবে । রাভাংলা থেকে নামচি চারধামের দুরত্ব মাত্র ২৭ কিমি , কাজেই রাভাংলা ও নামচি এই দুটি স্থান এক ট্রিপেই ঘুরে নেওয়া উচিৎ । 

মহাভারত থেকে জানা যায় অর্জুনের কঠোর তপস্যায় সন্তুষ্ট হয়ে দেবাদিদেব মহাদেব  , কিরিটেস্বর রূপ নিয়ে অর্জুনকে দেখা দেন । এই ঘটনাটি ঘটেছিল ইন্দ্রকিলে । এই ইন্দ্রকিলেরই বর্তমান নাম সিকিম । সিকিমে একটি কিরিটেস্বর মন্দির আছে । অনেক গাড়িই সাইট সিনে এখানে যায় না ।  এই কিরিটেশ্বর মন্দিরের ৩২ কিমি দূরে ৫৫০০ ফুট উঁচু পাহাড়ের শিখরে চারধাম মন্দির  অবস্থিত । গাড়িপথে যেতে যেতে পাহাড়ের নিচ থেকেই দেখতে পাবেন পাহাড়ের চুড়ায় ধ্যানমগ্ন হয়ে বসে আছেন দেবাদিদেব মহাবেদ । পাহাড়ের গা বেঁয়ে আকাবাকা রাস্তা ধরে গাড়ি আপনাকে পৌঁছে দেবে চারধামের গেটের কাছে । গাড়ি থেকে নেমে সিড়ি বেঁয়ে উপরে উঠে যান , বা হাতে টিকিট কাউন্টার পাবেন । মাথাপিছু ৫০ টাকা করে টিকিট কেটে প্রবেশ করুন । সিকিউরিটি চেক পার করলেই সামনে দেখতে পারবেন  চারধামের ছোট রেপ্লিকা মডেল  । এটা ছাড়িয়ে সিড়ি বেঁয়ে উপরে উঠে গেলে ডানদিকে চটি, জুতো রাখার জায়গা দেখতে পাবেন । এখানে চটি জুতো রেখে কুপন নিয়ে এগিয়ে চলুন দর্শনের উদ্দেশ্যে । পায়ে হেঁটে ঘুরতে অসুবিধা হলে ব্যাটারি চালিত গাড়ি করেও ঘুরতে পারেন । 

কিছুটা এগিয়ে গেলেই দেখতে পারবেন ভারতের সব থেকে বিখ্যাত  তীর্থস্থান  যথা বদ্রিনাথ ধাম , জগন্নাথ ধাম , দ্বারকা ও রামেস্বরম ধামের মন্দিরের অনুকরনে তৈরি রেপ্লিকা মন্দির গুলি একইসাথে গলাগলি করে অবস্থান করছে । আর  মন্দির গুলির ঠিক মাঝখানে ১০৮ ফুট উঁচু কারুকার্যপূর্ণ মন্দিরের মাথায় আশীর্বাদ মুদ্রায় বসে আছেন ৮৭ ফুট উঁচু শিব ও শম্ভু ভোলানাথ। এই দৃশ্য আর চারিদিকে উচ্চারিত মন্ত্রের ধ্বনি আপনার মনে অভিনব এক ভক্তিভাব জাগিয়ে তুলবে । 
আমরা  সিদ্ধ্বেস্বর দুয়ার দিয়ে ভিতরে প্রবেশ করেছিলাম, এখান দিয়ে প্রবেশ করলে  ঢোকার মুখে দেখতে পাবেন বিশ্বেশ্বর জোতিরলিঙ্গ ও মন্দির ,মুখ্য মন্দিরের চারপাশ ঘিরে ১২টি জোতিরলিঙ্গ ও মন্দির আছে ।  জোতিরলিঙ্গ মন্দির গুলি দেখে নিয়ে এগিয়ে যেতে পারেন মুখ্য শিব মন্দিরের দিকে । মন্দিরে প্রবেশের আগে মহাদেবের বিশালাকার মূর্তির পরিক্রমা করলে মনে এক অনাবিল আনন্দ অনুভব করবেন । মুখ্য শিব মন্দিরের ভিতরে প্রবেশ করলে দেখবেন ভিতরের দেওয়ালে শিব পুরানের অনেক গল্প খোদাই করে আঁকা আছে , সময় নিয়ে দেখবেন , অনেক কিছু দেখার আছে   ।  বিশেষ অনুমতি ছাড়া এই মন্দিরের ভিতরে ছবি তোলা বারন । বেরিয়ে আসার সময় মন্দির প্রবেশে দ্বারের কাছে সুন্দর একটি শিব মূর্তি ও শিব লিঙ্গ দেখতে পাবেন ।  এখানে যে শিবলিঙ্গ আছে তার চারপাশে যথাক্রমে নন্দি ,শ্রী গনেশ ,  ব্রহ্মাদেব ও ভগবান শ্রী বিষ্ণুর মূর্তি আছে , এই শিবলিঙ্গে অবশ্যই জল ঢালবেন  । 

পাহাড়ের এত উঁচুতে হওয়ায় মাঝে মাঝেই দেখবেন মেঘের ভিতরে হারিয়ে গেছেন ভোলানাথ । আমরা ওনার সাথে একটা ছবি নিতে গিয়েছিলাম ।  দেখি উনি ইচ্ছুক নন তাই মেঘের কোলে হারিয়ে গেলেন  । অপেক্ষা করলাম , এক পশলা বৃষ্টি হওয়ার পর আবার দেখা দিলেন । তখন একটা সেলফি নিয়েছি । 



মন্দিরের বাইরে বেড়িয়ে দেখতে পারবেন বিশালাকার নন্দি মহারাজ গ্যাট হয়ে বসে মহাদেবের দিকে চেয়ে আছেন  ।নন্দি মহারাজের পাশ দিয়ে নেমে ডান দিকে  গেলে দেখতে পাবেন সাঁই মন্দির । 
সাঁই মন্দির দেখে একটু পাশে এলে দেখতে পাবেন দ্বারকা ধাম । ভিতরে দেখা পাবেন ভগবান শ্রীকৃষ্ণের । 

দ্বারকা ধামের পাশেই রামেশ্বরম ধাম বা রামেস্বরম মন্দির ।  ভিতরে প্রবেশ করলে দেখতে পাবেন কষ্টি পাথরের তৈরি শিব লিঙ্গ , সামনে বসে নন্দী মহারাজ ।  

রামেস্বরম মন্দিরের পাশেই জগন্নাথ ধাম । প্রবেশ করলে দেখা পাবেন জগন্নাথ দেবের ।   

জগন্নাথ মন্দির দর্শন করে বাইরে এলে সামনে দেখতে পারবেন  ভগবান শিবের কিরিটেশ্বর মূর্তি ।



 এই মূর্তিটি সাড়ে ১৬ ফুট উঁচু , হাতে ধনুক , পিঠে তূণীর , গলায় শেষনাগ আর রুদ্রাক্ষের মালা  । জটাধারী কিরিটেশ্বরকে প্রনাম ঠুকে বেরিয়ে আসুন বাইরে । মনে রাখবেন চারধামের প্রতিটি মন্দির ও বিগ্রহগুলি আসল মন্দিরের অনুকরনেই তৈরি ।  আসল মন্দিরগুলির থেকে এগুলি বেশ কিছুটা ছোট হলেও এখানে সঠিক নিয়ম মেনেই পুজো দেওয়া হয়।  হাতে সময় থাকলে আপনার ইচ্ছামত মন্দিরে অবশ্যই  পুজো দেবেন । 

মন্দির ছাড়াও আশেপাশে আরও কিছু মূর্তি দেখতে দেখতে পাবেন , সময় নিয়ে ঘুরে দেখলে ভালো লাগবে । 
সমস্ত মন্দির ও মূর্তি দেখার পর ফেরত এসে চটি জুতো ফেরত নিয়ে পাশেই একটি ওপেন ফুড কোর্ট দেখতে পাবেন । এখানে নিরামিষ ভাতের ব্যবস্থা আছে । পুরোটাই সেলফ সার্ভিস । নিরামিষ থালি ২০০ থেকে ২৫০ টাকা / প্লেট । ফুড কোর্টের প্রবেশের মুখে একটা চকলেট, বিস্কুট , কোল্ড্রিঙ্কস এর দোকান পাবেন , এই দোকান থেকেই ভাতের কুপন কিনতে হবে । এই দোকানে সমস্ত প্যাকেট খাবারের দামের উপর ৫টাকা বেশী দিতে হয়  । এই ফুড কোর্টের ভিতরেই বেশ কয়েকটি বাথরুম আছে , ফ্রেশ হয়ে নিতে পারেন । 
ভাত খেয়ে এখানেই কিছুক্ষন রেস্ট নিয়ে নিতে পারবেন  ।


রেস্ট নিয়ে সিঁড়ি বেঁয়ে নীচে এলে ট্যাক্সি স্ট্যান্ডের সামনে এসে পরবেন ।  

মোটামুটি এই ছিল নামচি ট্যুর প্ল্যান । গাড়ি আপনাকে নামচি ঘুরিয়ে টেমি-টি গার্ডেন নিয়ে যেতে পারে । আমাদের হাতে একেবারেই সময় ছিল না তাই আমরা সরাসরি গ্যাংটক গেছিলাম । নামচী থেকে গ্যাংটক যাওয়ার পথ ভীষণ আঁকা বাকা । রাস্তায় হঠাত করে সন্ধ্যে নেমে এসেছিল । তার উপরে কুয়াশা ।  ভয়ংকর এক অভিজ্ঞতা হয়েছিল । পরবর্তী কোনো একটি ভিডিওতে এই ঘটনাটি জানাবো ।  অন্ধকার হয়ে এলে কোনোদিনও এই রাস্তায় যাবেন না । নামচি থেকে পেলিং ফেরত চলে যাওয়া অনেক ভালো ।


নামচি চারধাম ভ্রমণ গাইড , কীভাবে যাবেন ? কি কি দেখবেন ? নামচি চারধাম ভ্রমণ গাইড , কীভাবে যাবেন ? কি কি দেখবেন ? Reviewed by WisdomApps on August 24, 2019 Rating: 5

সাপ্তাহিক রাশিফল বাংলা আগস্ট ১৮ থেকে ২৪ - ২০১৯

August 19, 2019


মেষ রাশি: সঙ্গীতজগতের সঙ্গে নিবিড়তা বাড়বে। রবিবার সমস্যার সম্মুখীন। সোমবার অপ্রতিহত বাধায় জেরবার হবেন। মঙ্গলে সন্ধ্যার পর স্বস্তি। বুধে সপক্ষে পরিবেশ। বৃহস্পতিবার দরকারি ক্ষেত্রে এগিয়ে যাওয়া সম্ভব হবে। শুক্রে বেশি খরচ করে লাভবান হবেন। শনিবার মোটামুটি কাটবে।

বৃষ রাশি: অজান্তে কোনো ভুল হয়ে যাবার সম্ভাবনা। রবিবার অনুকূল প্রভাব। সোমবার আটকে আছে এমন কাজে সাফল্য। মঙ্গলবার প্রয়োজনীয় কাজ সন্ধ্যার আগে শেষ করুন। বুধে অনর্থক সময় নষ্ট। বৃহস্পতিবার গম্ভীর আলোচনায় যাওয়া ঠিক হবে না। শুক্রে স্বাচ্ছন্দ্য অনুভব করবেন। শনিতে মনে উৎসাহ বাড়বে।

মিথুন রাশি: কাউকে নিজের ব্যর্থতার গল্প জানাতে চাইবেন না। রবিবার বেলায় সমস্যা কমে যাবে। সোমবার নতুন যোগাযোগ। মঙ্গলে আটকে আছে এমন টাকা পাবেন। বুধে মনে নতুন উদ্যম। বৃহস্পতিবার অনুকূল প্রভাব। শুক্রে নৈরাশ্যজনক পরিস্থিতি। শনিতে সাহস নিয়ে এগিয়ে যান।

কর্কট রাশি: পেশাগত ক্ষেত্রে উন্নতি। রবিবার অশুভ প্রভাব। সোমবার পরিকল্পনা স্থির করুন। মঙ্গলে প্রতিপক্ষকে উত্তর দেবেন না। বুধে কর্মে সাফল্য। বৃহস্পতিবার অনুকূল প্রভাব। শুক্রে কেনাবেচার ক্ষেত্রে সন্তানের সঙ্গে আলোচনা করে নিন। শনিবার অংশীদারি ক্ষেত্রে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন না। 

সিংহ রাশি: যারা সন্তানসম্ভবা তারা ঝুঁকি নেবেন না। রোববার বাধা। সোমবার বিরুদ্ধে পরিবেশ। মঙ্গলবার এগিয়ে গিয়েও আটকে যাবেন। বুধে পরিস্থিতির উন্নতি হবে না। বৃহস্পতিবার সমস্যা থেকে মুক্তির ইঙ্গিত। শুক্রে শুভ পরিবর্তন। শনিতে ইচ্ছাপূরণ।

কন্যা রাশি: কাজ হাসিল করার জন্য যথোপযুক্ত পদক্ষেপ নেবেন। রবিবার অগ্রজসম কারোর সাহায্য পাবেন। সোমবার অনুকূল পরিবেশ। মঙ্গলে সন্ধ্যার আগে কাজ শেষ করুন, রাতে অশুভ পরিবেশ। বুধে বুঝে পদক্ষেপ নিন। বৃহস্পতিবার শত্রুপক্ষকে দিয়ে এলোমেলো জাজ করিয়ে নিন। শুক্রে অস্বস্তিকর পরিবেশ। শনিতে পরিশ্রম করে কাটবে।

তুলা রাশি: অপরকে যথাযথ সম্মান দিয়ে কাজ উদ্ধার। রোববার শুভ পরিবর্তন। সোমবার কাজের জন্য প্রস্তুত হন। মঙ্গলবার আপনার দ্বারা সহকর্মীরা প্রভাবিত হবেন। বুধে অনুকূল পরিবেশ। বৃহস্পতিবার কারোর মাধ্যমে উপকৃত হবেন। শুক্রে পিতার সঙ্গে মতবিরোধ। শনিতে আবেগপ্রবণ হলে ক্ষতি।

বৃশ্চিক রাশি: চিন্তার জগতে নতুন অধ্যায় সৃষ্টি করতে সক্ষম হবেন। রোববার সন্তানের লেখাপড়া নিয়ে ব্যস্ত। সোমবার কোনো মতে দিন গুজরান।মঙ্গলবার বিরোধীপক্ষ আপনাকে লক্ষ করবে। বুধে অনুকূল পরিবেশ। বৃহস্পতিবার অনুকূল প্রভাব অব্যাহত। শুক্রে আত্মীয়স্বজনের শুভ প্রভাব আপনাকে চালিত করবে। শনিতে আলোচনায় আপনার জয় সূচিত হবে।

 ধনু রাশি: যতটা সুযোগ পাবেন তাতে সমাজের কাছে জয়ের যাত্রা পৌঁছে যাবে। রবিবার তুচ্ছ কারণে অশান্তি। সোমবার তত শুভ নয়। মঙ্গলে পরিবারে আপনার কথা গ্রাহ্য হবে না। বুধে সন্তানের কথায় নৈরাশ্য। বৃহস্পতিবার খরচ বাড়বে। শুক্রে কথা বার্তায় দক্ষ হওয়া প্রয়োজন। শনিতে কোথাও গিয়ে শান্তি পাবেন না।

মকর রাশি: চিকিৎসার প্রয়োজনে পদক্ষেপ নিন। রোববার শুভ পরিবর্তন। সোমবার আইনানুগ কাজ এগিয়ে নিন। মঙ্গলবার কারোর থেকে সাহায্য পাবেন। বুধে সমালোচনা সহ্য করুন। বৃহস্পতিবার প্রয়োজনীয় কাজ শেষ করুন। শুক্রে বিরুদ্ধে পরিস্থিতি। শনিতে সন্তানের ব্যাপারে অখুশি।

কুম্ভ রাশি: সন্দেহের আবর্ত সৃষ্টি হবে। রোববার কাউকে কথা দিয়ে রক্ষা করা কঠিন। সোমবার মনে অস্থিরতা। মঙ্গলবার ছোট কেউ আনন্দের কারণ। বুধে স্থিতিশীল পরিবেশ। বৃহস্পতিবার কাজ শেষ করুন। শুক্রে বিরুদ্ধে পরিবেশ। শনিতে কোনো সুযোগ আসবে।

মীন রাশি: দূরে যাওয়া ঠিক হবে না। রোববার মোটামুটি শান্তিপূর্ণ। সোমবার অনুকূল পরিবেশ। মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর পরিস্থিতি মানিয়ে চলা ভালো। বুধে গোলমেলে পরিবেশ। বৃহস্পতিবার মনে অস্থিরতা। শুক্রে ভালোই দিন কাটবে। শনিতে দৈনন্দিন কাজে সাফল্য।

সাপ্তাহিক রাশিফল বাংলা আগস্ট ১৮ থেকে ২৪ - ২০১৯ সাপ্তাহিক রাশিফল বাংলা আগস্ট ১৮ থেকে ২৪ - ২০১৯ Reviewed by WisdomApps on August 19, 2019 Rating: 5

শিবনিবাস ভ্রমণ গাইড ও ইতিহাস । কি কি দেখবেন ? কবে যাবেন ?

August 12, 2019
 আজকের ডেসটিনেশন নদিয়ার শিবনিবাস ।  প্রথমে জেনে নিন কীভাবে শিবনিবাস যাবেন ?
দুই দিক দিয়ে আসা যায় শিবনিবাসে , শিয়ালদা থেকে গেদে লোকালে করে চলে আসুন মাজদিয়া, সময় লাগবে ২ ঘন্টা ৩০মিনিট  । মাজদিয়া স্টেশন থেকে টুক্টুকি করে অল্প সময়েই পৌঁছে যাবেন শিবনিবাস । অথবা কৃষ্ণনগর লোকাল ধরে কৃষ্ণনগরে চলে আসুন । স্টেশন থেকে টুক্টুকি করে কৃষ্ণনগর বাস স্ট্যান্ডে আসতে হবে , ভাড়া নেবে ১০ টাকা । কৃষ্ণনগর বাস স্ট্যান্ড থেকে মাজদিয়া যাওয়ার 

বাসে চেপে শিবনিবাস আসতে পারবেন ভাড়া পড়বে ২০ টাকারও কম । 
বাসে এলে শিবনিবাস মোড়ে নামতে হবে , মোড় থেকে মন্দির পর্যন্ত হেঁটে যেতে হবে । এই পথে যাওয়ার সময় একটি বাশের ব্রীজ বা সাঁকো পার হতে হবে । সাঁকো পার করে একটু হেঁটে গেলেই মন্দির  । আমরা মন্দির যাওয়ার পথে  এক সাধু বাবার ছাউনি ঘরের নীচে রাখা এই বাচ্চা হনুমানটিকে দেখেছিলাম , মা হারা এই ছোট্ট প্রানীটি এখন এনাদের স্নেহেই বড় হচ্ছে । ছাউনি ছাড়িয়ে এগিয়ে গেলেই মন্দির দেখতে পাবেন । 
 যদি আপনারা ট্রেনে বা নিজস্ব গাড়িতে আসেন তাহলে শিবনিবাস মোড়ে একটি সুন্দর নীল সাদা ব্রীজ দেখতে পাবেন , এই ব্রীজের নীচ দিয়ে বয়ে গেছে চুরনি নদী । মন্দিরে যাওয়ার আগে ব্রীজের উপর কিছুক্ষন দাড়িয়ে আশেপাশের প্রাকৃতিক দৃশ্য উপভোগ করতে পারেন । ছবি তোলার জন্য এটা বেশ ভালো জায়গা । ব্রীজ পার করে এগিয়ে গিয়ে বা হাতে মন্দির যাওয়ার পথ পাবেন ।

মন্দিরের কাছাকাছি পৌছালেই চোখে পড়বে সুউচ্চ " রাজরাজেশ্বর " মন্দিরটি । সাধারন মানুষের কাছে এটি " বুড়োশিবের মন্দির " নামেই খ্যাত । ১৭৫৪ খ্রীস্টাব্দে অর্থাৎ ১৬৭৬ শকাব্দে কৃষ্ণনগরের মহারাজা কৃষ্ণচন্দ্র তার প্রথম স্ত্রী'র জন্য এই শিব মন্দিরটি নির্মাণ করিয়েছিলেন । উঁচু ভিত্তিবেদির উপর স্থাপিত এই  মন্দিরটির  চুড়া সমেত উচ্চতা ১২০ ফুট।  খাড়া দেওয়ালের প্রতি কোনে মিনার ধরনের আটটি সরু থাম আছে । প্রবেশদ্বারে খিলান ও অবশিষ্ট দেওয়ালে একই আকৃতির ভরাটকরা নকল খিলান দেখতে পাবেন ।  মন্দিরের ভেতর পূর্ব ভারতের সবথেকে বড় কষ্টিপাথর নির্মিত শিবলিঙ্গ দেখতে পারবেন ।  এই শিবলিঙ্গের উচ্চতা ৯ ফুট আর বেড় ২১ ফুট ১০ ইঞ্চি। এই সুবিশাল শিবলিঙ্গের নাম 'রাজরাজেশ্বর'। শিবলিঙ্গের মাথায় জল , দুধ ইত্যাদি


ঢালবার জন্য সিঁড়ি আছে । দর্শনার্থীরা একদিক দিয়ে উঠে জল ঢেলে অন্যদিক দিয়ে নেমে শিবলিঙ্গ প্রদক্ষিন করে ফেরত আসতে পারেন ।  মন্দিরের আশেপাশে কয়েকটি দোকান আছে , পুজার সামগ্রি কিনে নিয়ে পুজো দিতে পারবেন ।  প্রাচীন কাল থেকে মার্চ মাসের ভীম একাদশি থেকে শুরু হয় মেলা, চলে শিবরাত্রি পর্যন্ত। এই স্থানটির একটি ইতিহাস আছে । জানা যায় এক সময় এখানে নসরত খাঁ নামে দুর্ধর্ষ এক ডাকাত ছিল । তার নামে এই জায়গার নাম ছিল নসরত খাঁর বেড়  । মহারাজা কৃষ্ণচন্দ্র সেই ডাকাতকে দমন করতে মাজদিয়ার এক গভীরে অরন্যে উপস্থিত হন । ডাকাত দমনের পর তিনি এক রাত বিশ্রাম নিয়ে পরের দিন সকালে নদীর জলে মুখ ধুতে যান । এই সময় নদীর স্রোতে একটি রুইমাছ লাফিয়ে এসে রাজার পায়ের কাছে পরে । এই দৃশ্য দেখে ক্রিশ্নরাম নামে মহারাজের আত্মীয় বলেন - " এই স্থানটি অত্যন্ত মনোরম , তার উপরে রাজভোগ্য সামগ্রী নিজে নিজেই রাজার কাছে উপস্থিত হচ্ছে , এই স্থানে বাস করলে মহারাজের নিশ্চয়ই উপকার হবে । " । তৎকালীন বর্গীদের হাত থেকে সুরক্ষিত থাকার জন্য মহারাজ একটি ভালো জায়গা খুঁজছিলেন , এই স্থানটি মহারাজের খুব পছন্দ হয় । তিনি নদিয়ার রাজধানী সাময়িকভাবে এখানে স্থানান্তরিত করেন । চুরনি নদীকে নির্দিষ্ট ভাবে কেটে এই স্থানকে সুরক্ষিত করা হয় ,আর এই স্থানের নাম বদলে শিব ঠাকুরের নামে নতুন নাম রাখা হয় শিবনিবাস । এই খানে মহারাজা ১০৮ টি মন্দির ও একটি প্রাসাদ নির্মাণ করেছিলেন । বর্তমানে মাত্র ৩ টি মন্দির অবশিষ্ট আছে । 
রাজরাজেশ্বর মন্দিরের পূর্বদিকে ৬০ফুট উঁচু চার চালার ২য়  মন্দিরটি দেখতে পাবেন ।মহারাজা কৃষ্ণচন্দ্র তার ২য় স্ত্রী'র জন্য এই শিব মন্দিরটি নির্মাণ করিয়েছিলেন । এটিকে 'রাজ্ঞীশ্বর' মন্দির বলে । এর ভিতরের শিবলিঙ্গটি ৭ফুট উঁচু । এটিও তৈরি হয়েছিল ১৭৫৪ সালে। এই মন্দিরটি সব সময় খোলা পাওয়া যায় না । এর পাশে একটি রাম-সীতার মন্দির রয়েছে। পশ্চিমমুখী এই মন্দিরটি ভিত্তিবেদির উপর অবস্থিত , চার চালার এই মন্দিরটির উচ্চতা ৫০ ফুট । এই মন্দিরের সিংহাসনে প্রতিষ্ঠিত আছেন কালো পাথরের রামচন্দ্র, অষ্টধাতুর দেবী সীতা সাথে অনুজ লক্ষণ। এছাড়াও শিব, কালী, গনেশ, সরস্বতী ও কৃষ্ণের প্রাচীন মূর্তি এখানে প্রতিষ্ঠিত । এই মন্দির প্রাঙ্গনে ছবি তোলা কঠোরভাবে নিষিদ্ধ । এই মন্দিরটি তৈরি হয় ১৭৬২ সালে।  মহারাজা কৃষ্ণচন্দ্র শিবনিবাসে অগ্নীহোত্রী বাজপেয়ী যজ্ঞ সমপন্ন করেছিলেন । এই যজ্ঞে কাশি , কাঞ্চি প্রভৃতি স্থানের বিজ্ঞ পণ্ডিতরা এসেছিলেন । তারা মহারাজকে  " অগ্নিহোত্রী বাজপেয়ী " আখ্যা দেন । সেই সময় থেকেই শিবনিবাসকে তীর্থস্থান কাশির ন্যায় মর্যাদা দেওয়া হয় । প্রতি বছর শ্রাবণ মাসের শেষ সোমবার লক্ষাধিক মানুষ নবদ্বিপের গঙ্গা নদী থেকে জল নিয়ে ৪২ কিলোমিটার হেঁটে শিবনিবাসের বুড়োশিবের মাথায় ঢালে । 
এছাড়াও মন্দির গুলির কিছু বিশেষত্ব আছে । প্রতিটি মন্দিরের মাথায় কয়েকশ ফোকর দেখতে পারবেন , ফোকরগুলিতে কয়েকশ টিয়াপাখি বাসা করে। তাদের , বসা , উড়ে যাওয়া ,মারা মারি করা দেখতে দেখতে অনেকটা সময় কেটে যাবে ।  ১৮২৪ সালে বিশপ হেয়ার সাহেব নদিপথে ঢাকা যাওয়ার সময় এই মন্দির ও রাজপ্রাসাদ দেখে মুগ্ধ হন এবং এই মন্দির গুলি সমন্ধে তার একটি লেখা ১৮২৮ সালে লন্ডনের জার্নালে প্রকাশিত হয় । তিনি রাজপ্রাসাদের প্রবেশদ্বারটিকে ক্রেমলিলের প্রধান তোরণের সঙ্গে তুলনা করে বলেছেন " সেই বিস্তীর্ণ প্রাসাদের মনোরম নির্মাণ শৈলী তাঁকে কনওয়ে ক্যাসেল ও বোলটন অ্যাবির কথা স্মরণ করিয়ে দেয় "। এই মন্দিরগুলিতে কোনো টেরাকোটার কাজ না থাকলেও এর গঠনশৈলী বাংলার মন্দিররীতিতে এক উল্লেখযোগ্য সংগজোজন । বাংলার বুকে শিবনিবাশের ঐতিহাসিক ও আধ্যাত্মিক গুরুত্ব অপরিসীম । মন্দির ছাড়াও শিবনিবাসে একটি রেশম খামার আছে , সময় হলে দেখে আসতে পারেন । রাম মন্দিরের গা ঘেঁসে পাকা রাস্তা ধরে বেশ কিছুটা এগিয়ে গেলে  এই রেশম খামারটি দেখতে পাবেন । 
তুঁত গাছের বাগানে ঘেরা রাস্তা দিয়ে হেঁটে হেঁটে আশেপাশে রেশম কীট প্রতিপালন দেখতে পারে । বিশেষ অনুমতি নিয়ে গুটি থেকে রেশম তৈরির পদ্ধতিও দেখতে পারবেন । 

মন্দির ও রেশম খামার দেখে আশেপাশের হোটেল থেকে কিছু খেয়ে নিয়ে মাজদিয়া বা কৃষ্ণনগর স্টেশনে ফেরত চলে যান । শিয়ালদহ বা লালগোলা যাওয়ার অনেক ট্রেন পেয়ে যাবেন ।  

শিবনিবাস ভ্রমণ গাইড ও ইতিহাস । কি কি দেখবেন ? কবে যাবেন ? শিবনিবাস ভ্রমণ গাইড ও  ইতিহাস । কি কি দেখবেন ? কবে যাবেন ? Reviewed by WisdomApps on August 12, 2019 Rating: 5

সাপ্তাহিক রাশিফল ১১ থেকে ১৭ই আগস্ট ২০১৯

August 12, 2019

মেষ রাশি: ইচ্ছার বিরুদ্ধে চুক্তি করে বুঝবেন লাভই হয়েছে। রোববার কাজে বিলম্ব। সোমবার ধর্মীয় অনুষ্ঠানে গিয়ে বিরক্ত। মঙ্গলে বেলায় শুভ যোগ। বুধে গতানুগতিক দিন যাপন। বৃহস্পতিবার গুছিয়ে চলতে পারবেন। শুক্রে খেলাধুলার সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদের সুযোগ। শনিতে মন রুষ্ট।

বৃষ রাশি: ভুলে যাওয়া ঘটনার জন্য প্রকাশ্যে সমঝোতা করা লাগবে। রোববার বিরুদ্ধে পরিবেশ, মনঃকষ্ট। সোমবার শত্রুপক্ষ সক্রিয়। মঙ্গলে সমস্যা বাড়তে পারে। বুধে কাজে ভুল। বৃহস্পতিবার রাতে স্বস্তি। শুক্রে শারীরিক কষ্ট। শনিতে বন্ধুর সাহায্য পাবেন।

মিথুন রাশি: কর্মে তেমন সুবিধা করে উঠতে পারবেন না। রোববার লিখিত সমঝোতা হবে। সোমবার প্রতিপক্ষ দেখে বিরূপ ভাব প্রকাশ করবেন না। মঙ্গলবার বেলায় মুশকিলে পড়বেন। বুধে প্রতিকূলতার সম্মুখীন। বৃহস্পতিবার ধৈর্য চ্যুতি। শুক্রে শারীরিক কষ্ট। শনিতে বন্ধুর সাহায্য পাবেন।

কর্কট রাশি: রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব হলে সময়টা সংগ্রামবহুল। রোববার মোটামুটি শুভ। সোমবার দক্ষতাকে সঠিক কাজে ব্যবহার করুন। মঙ্গলবার উপযুক্ত ব্যক্তিকে পেয়ে যাবেন। বুধে প্রয়োজনীয় কাজ শেষ করুন।  বৃহস্পতিবার কষ্ট পাবেন। শুক্রে মনস্থির করা কঠিন। শনিতে বিনিয়োগে অর্থনষ্ট।

সিংহ রাশি: পরিশ্রমের ফল আশানুরূপ হচ্ছে না। রোববার অপেক্ষায় কাটাতে হবে। সোমবার সন্তানের আবদার মানলে ভুল করবেন। মঙ্গলে বেলায় কারোর সঙ্গে আলোচনা করে দেখতে পারেন। বুধে  পরিবেশ অনুকূল। বৃহস্পতিবার কারোর দ্বারা সুখবর পাবেন। শুক্রে সুযোগ কাজে লাগান। শনিতে কাউকে জোর করা উচিত হবে না।

কন্যা রাশি: দুঃস্থদের জন্য খাবারের দায়িত্ত্ব নিতে পারেন। রোববার মোটামুটি দিনযাপন। সোমবার পরিবারের জন্য কিছু করতে চাইলেও পারবেন না। মঙ্গল ও বুধবার আপনার কথা কেউ শুনতে চাইবে না। বৃহস্পতিবার মানসিক দ্বন্দ্ব। শুক্রে ভালো ভাবে কাটবে না। শনিতে শরীর নিয়ে সমস্যা।

তুলা রাশি: সন্তানের ব্যবহারে অখুশি হবেন। রবিবার অনুরোধ রক্ষা করতে যাবেন। সোমবার যোগ্যতা অনুযায়ী যোগাযোগ। মঙ্গলে কারোর সঙ্গে মনোমালিন্য। বুধে অকারণ ব্যয় ও ভীতি। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর সমস্যা বাড়বে। শুক্রে অর্থ পেয়ে যাবেন। শনিতে দুশ্চিন্তা বাড়বে।

বৃশ্চিক রাশি: পিতার সঙ্গে মতপার্থক্য। রবিবার বকেয়া আদায়ে বিলম্ব। সোমবার কর্মস্থলে কেউ আমল দেবে না। মঙ্গলে সমস্যা কমবে। বুধে কেউ সুবুদ্ধি দিলে গ্রহণ করুন। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর ঝামেলায় যাবেন না। শুক্রে অশুভ প্রভাব। শনিতে অবস্থার কোনো বদল হবে না।

ধনু রাশি: বিবাহ সংক্রান্ত কোথায় কোনো অনুরোধ ফেলতে পারবেন না। রোববার সপক্ষে পরিবেশ। সোমবার দরকারি কাজ শেষ করুন। মঙ্গলে আপনার কথা অনেকেই বুঝবে না। বুধে শারীরিক অস্থিরতা। বৃহস্পতিবার তোয়াজ করে কাজ করিয়ে নেবেন। শুক্রে বাইরের ঝামেলা কমতে থাকবে। শনিতে অনুকূল যোগাযোগ।

মকর রাশি: কাউকে বিশ্বাস করে দায়িত্ব দেবেন না। রোববার অগ্রগতি ব্যাহত। সোমবার অর্থনষ্ট। মঙ্গলে সুখবর পেতে পারেন। বুধে বাইরের কাজ সেরে ফেলুন। বৃহস্পতিবার লেনদেনে সতর্ক থাকুন। শুক্রে পারিবারিক কারণে সমঝোতা হবে না। শনিতে যা বলবেন উল্টো ফল হবে।

কুম্ভ রাশি: অন্য ক্ষেত্র থেকে আয় তেমন হবে না। সোমবার বেশি খরচ। মঙ্গলে সহ্যশক্তি বাড়িয়ে মানিয়ে চলবেন। বুধে ব্যয় বৃদ্ধি। বৃহস্পতিবার বাধা। শুক্রে পারিবারিক অনুষ্ঠানে জড়িত থাকবেন। শনিতে সম্মানজনক পরিবেশ।

মীন রাশি: পুরোনো শক্তির মুখোমুখি হলেও ক্ষতি নেই। রবিবার বেশ ভালোই কাটাবেন। সোমবার দ্রুত সিদ্ধান্ত নিন। মঙ্গলে পরিবেশ অনুকূল। বুধে উদার মনোভাব। বৃহস্পতিবার শরীর নিয়ে কষ্ট। শুক্রে প্রতিকূল প্রভাব। শনিতে বাজে কথা বলে সম্পর্ক নষ্ট করবেন না।
সাপ্তাহিক রাশিফল ১১ থেকে ১৭ই আগস্ট ২০১৯ সাপ্তাহিক রাশিফল ১১ থেকে ১৭ই আগস্ট ২০১৯ Reviewed by WisdomApps on August 12, 2019 Rating: 5

সাপ্তাহিক রাশিফল ০৪/০৮/২০১৯ থেকে ১০/০৮/২০১৯

August 05, 2019



মেষ রাশি: যে সংবাদে খুশি হবেন তা হয়তো এসে যাবে। রবিবার পরিস্থিতি স্বাভাবিক। সোমবার একইভাবে কাটাবেন। মঙ্গলে বেশ গুছিয়ে চলবেন। বুধে দরকারি কাজ করে নেবেন। বৃহস্পতিবার চুলচেরা বিশ্লেষণে যাবেন না। শুক্রে বিদ্যার্থীদের সামান্য বাধা। শনিতে সমালোচনা আপোষে মেটানোর চেষ্টা করুন।

বৃষ রাশি: আপনার পছন্দমতো পরিবেশ পাওয়া সম্ভব নয়। রবিবার ঘরোয়া পরিবেশ মানিয়ে নিন। সোমবার পরিশ্রমবহুল দিন। মঙ্গলে পরিস্থিতির সামাল। বুধে গতানুগতিক কাটবে। বৃহস্পতিবার সহকর্মী আপনাকে সাহায্য করবে। শুক্রে প্রয়োজনীয় ব্যাপারে আশার আলো। শনিতে পরিবেশ অনুকূলে থাকবে।

মিথুন রাশি: নিজের সিদ্ধান্তে অনড় থাকুন। রবিবার তত শুভ নয়। সোমবার অপছন্দের ব্যক্তিকে কোনো আছিলায় আটকে দিতে পারবেন। মঙ্গলে সন্তানের জন্য দুশ্চিন্তা। বুধে কর্মের ওপর দিনটি নির্ভর করছে। বৃহস্পতিবার দুপুরের পর কাজ গুছিয়ে নিতে পারবেন। শুক্রে ক্ষমতা বৃদ্ধি। শনিতে অনুকূলে পরিবেশ।

কর্কট রাশি: অতিমাত্রায় খামখেয়ালিপনায় উন্নতি বিলম্ব। রবিবার সহোদরের দ্বারা উপকৃত হবেন। সোমবার দায়িত্ত্বপূর্ন কাজে সাফল্য। মঙ্গলে বেলায় অশুভ পরিবর্তন। বুধে জটিলতার ভেতর কাটবে। বৃহস্পতিবার নতুন উদ্যোগ। শুক্রে আত্মীয়রা ভুল বুঝবে। শনিতে অভিজ্ঞ কারোর সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করুন।

সিংহ রাশি: একাধিক পরিবর্তনের মাধ্যমে জয়। রোববার কাউকে কথা দেওয়া ঠিক হবে না। সোমবার অর্থযোগ মধ্যম। মঙ্গলে শুভ পরিবর্তন। বুধে যোগাযোগগুলি তৎপর করে তুলুন। বৃহস্পতিবার অসতর্ক হলে ক্ষতি। শুক্রে সত্যকথা বলতে গিয়ে বাধাপ্রাপ্ত হবেন। শনিতে ভুল পথে অর্থ নষ্ট হবে।

কন্যা রাশি: কর্মের জন্য সুখ্যাতি বিস্তার করবে। রবিবার দিনটি আশাপ্রদ। সোমবার চিন্তার কারণ নেই। মঙ্গলে বেলায় বাধা। বুধে মনে অবসাদ। বৃহস্পতিবার কেউ সুপরামর্শ দিতে এগিয়ে আসবে। শুক্রে অর্থলাভ। শনিতে স্থিতিশীল পরিবেশ।

তুলা রাশি: অন্যের ওপর ভরসা করে চলতে হবে। রবিবার অগোছালো ভাবে দিন কাটবে। সোমবার উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন নেই। মঙ্গলে প্রিয়জনের সান্নিধ্য। বুধে প্রয়োজন মতো কাজ এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে যা পরিবর্তন মেনে চলুন। শুক্রে সার্বিক ভাবে ভালোই কাটবে। শনিতে নমনীয় বাক্য ব্যবহার করুন।

বৃশ্চিক রাশি: সমস্যা বাড়বে। রবিবার আর্থিক যোগ শুভ। সোমবার দরকারি কাজ সেরে নিন। মঙ্গলে বাধার সম্মুখীন। বুধে একঘেয়ে দিন। বৃহস্পতিবার স্বস্তি পাবেন। শুক্রে নতুন কর্মযোগ। শনিতে অনুকূল পরিবেশ।

ধনু রাশি: আপনার বিরোধিতা যে করবে সে প্রতিহত হবে। রবিবার আশাপ্রদ দিন। সোমবার আপনার ভূমিকা প্রাধান্য পাবে। মঙ্গলে কেউ সাহায্য করতে চাইলে সম্মতি দিন। বুধে গতানুগতিক দিনযাপন। বৃহস্পতিবার দুপুরে পর বাধা। শুক্রে কোনো অশুভ ঘটবে না। শনিতে অর্থ সমস্যা।

মকর রাশি: খরচের মাত্র বাড়বে। রবিবার প্রতিকূল পরিবেশ। সোমবার যা করতে চাইবেন হবেনা। মঙ্গলে সুযোগ বৃদ্ধির সম্ভাবনা। বুধে মোটামুটি ভালোই কাটবে। বৃহস্পতিবার বকেয়া আদায় হবার সম্ভাবনা। শুক্রে প্রিয়জন অসুস্থ হতে পারে। শনিতে কম খরচে দিন গুজরান।

কুম্ভ রাশি: রবিবার অগ্রগতি ব্যাহত। সোমবার অতি আশা ঠিক হবে না। মঙ্গলে দরকারি কাজ সেরে ফেলুন। বুধে ছোট ব্যাপারে সময় বেশি লাগবে। বৃহস্পতিবার বেলায় পরিবেশ বদলাতে থাকবে। শুক্রে সন্তানের কোনো সংবাদে দুঃখিত হবেন। শনিতে ছোট কাজে রাজি হয়ে যান।

মীন রাশি: রবিবার দিনটি শুভ। সোমবার প্রয়োজনীয় কাজ শেষ করুন। মঙ্গলে দিনের শুরু অনুকূল। বুধে দরকারি কাজ নিয়ে সমস্যা। বৃহস্পতিবার কারোর সাহায্যের আশা কম। শুক্রে ন্যায্য পাওনা আদায়। শনিতে  কর্ম নিয়ে অগ্রগতি।
সাপ্তাহিক রাশিফল ০৪/০৮/২০১৯ থেকে ১০/০৮/২০১৯ সাপ্তাহিক রাশিফল ০৪/০৮/২০১৯ থেকে ১০/০৮/২০১৯ Reviewed by WisdomApps on August 05, 2019 Rating: 5

সাপ্তাহিক রাশিফল 28/07/2019 থেকে 03/08/2019

July 29, 2019


মেষ রাশি: নতুনের খোঁজে বার বার সিদ্ধান্ত বদল করবেন। রবিবার এলোমেলো ভাবে দিনটি কাটবে। সোমবার শুভ যোগাযোগ। মঙ্গলে আপনার আশ্রিত কেউ সহায়তা করবে। বুধে সংযত থাকলে কোনো সমস্যা নেই। বৃহস্পতিবার মন শান্ত করে দিনটি কাটাবেন। শুক্রে অস্বস্তি। শনিতে বিরুদ্ধ পরিবেশ মানিয়ে চলুন।

বৃষ রাশি: আদর্শের প্রতি আনুগত্যের ফলে ভুল। রবিবার দরকারি কাজ সহজেই হবে। সোমবার কাজের গতি কমবে। মঙ্গলে সমঞ্জস্য রক্ষা হবে। বুধে উদ্যম বৃদ্ধি। বৃহস্পতিবার উপস্থিত বুদ্ধির দ্বারা কার্যোদ্ধার। শুক্রে পরিশ্রম বৃদ্ধি। শনিতে চুক্তিতে সই করলেও পারিশ্রমিক পাবেন না।

মিথুন রাশি: রসিকতাপূর্ন কথায় পরিবেশ হালকা রাখবেন। রবিবার তত শুভ নয়। সোমবার যথাযথ প্রচেষ্টায় অর্থবৃদ্ধি। মঙ্গলে নতুন যোগাযোগ। বুধে অর্থকরী ব্যাপারে সাবধানে থাকুন। বৃহস্পতিবার পশ্চিমে গেলে বেশি খরচ। শুক্রে অনুকূল পরিবেশ। শনিতে পরিশ্রমের দ্বারা ন্যায্য মূল্য আদায় করবেন।

কর্কট রাশি: অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে হ্রাসবৃদ্ধির খেলা চলবে। রবিবার সুসংবাদ। সোমবার শরীর নিয়ে ঝকমারি। মঙ্গলে কোনোমতে দিনযাপন। বুধে শুভ পরিবর্তন। বৃহস্পতিবার দরকারি কাজ করাফ সুযোগ পাবেন। শুক্রে অতিরিক্ত অর্থ ব্যয়। শনিতে জীবন সংগ্রামে স্বার্থকতার ইঙ্গিত।

সিংহ রাশি: পাহাড়ের দিকে কর্মজীবনের যোগাযোগ হলে নিয়ে নিতে পারেন। রবিবার কর্মস্থলে নানা সমস্যার সমাধান। সোমবার কোনো ব্যাপারে ঋণ করা লাগতে পারে। মঙ্গলে সন্তানের কৌশল বুঝে যাবেন। বুধে লোকবল নিয়ে সমস্যার সমাধান। বৃহস্পতিবার একইরকম অবস্থা। শুক্রে বেলায় অনুকূল যোগাযোগ। শনিতে দেহভাব শুভ।

কন্যা রাশি: উগ্রতার বিপক্ষে গিয়ে যা করতে চাইবেন করেই ছাড়বেন। রবিবার কারোর প্রভাব আপনাকে চালিত করবে। সোমবার বিবেচনা করে চলতে পারলে বিবাদ থেকে অব্যাহতি। মঙ্গলে পারিবারিক দিক স্থিতিশীল। বুধে অগ্রজসম কারোর কথা মানতে বাধ্য হবেন। বৃহস্পতিবার চালাকি করলে ধরা পড়তে পারেন। শুক্রে বেলায় মনের ভার বাড়বে। শনিতে নিজের ভুল সংশোধনের চেষ্টা করুন।

তুলা রাশি: যোগ অনুশীলনের মাধ্যমে মনের ভীতি কাটতে থাকবে। রোববার সম্ভ্রান্ত ব্যক্তির ব্যবহারে ক্ষুদ্ধ হবেন। সোমবার অপ্রতিহত বাধায় অগ্রগতি ব্যাহত। মঙ্গলে পরিবেশ সহজ রাখার দায়িত্ব আপনার। বুধে সন্তানের কাজে খুশি হবেন। বৃহস্পতিবার ঘরে বাইরে অনুকূল প্রভাব। শুক্রে অর্থনৈতিক দিন আশাপ্রদ। শনিতে পড়াশোনার ক্ষেত্রে অগ্রগতি।

বৃশ্চিক রাশি: বড় দিদি বা দাদার সমস্যার জন্য কঠিন পদক্ষেপ নিন। রোববার সবকিছু ঠিকঠাক। সোমবার যখন যেমন তখন তেমন। মঙ্গলে সাময়িক ভাবে মন খারাপ। বুধে পরিচিত কারোর সঙ্গে মেলামেশা সহজ হবে না। বৃহস্পতিবার বিরোধীপক্ষ সুযোগের চেষ্টা করবে। শুক্রে নতুন যোগাযোগ। শনিতে চিন্তামুক্ত দিন।

ধনু রাশি: বহুজনের সঙ্গে মিলে যা কাজ করবেন তা প্রশংসার যোগ্য হবে। রোববার নিজের উদ্যম একমাত্র সাফল্য আনবে। সোমবার মনে সুখ বৃদ্ধি। মঙ্গলে সহকর্মীর আমন্ত্রণ রক্ষা করা উচিত। বুধে যে বিরোধিতা করবে তাকে সরাসরি কিছু বলবেন না। বৃহস্পতিবার অকারণ জটিলতা। শুক্রে পক্ষে ও বিপক্ষে দুরকম পরিবেশ উপস্থিত। শনিতে দুরবস্থা নিয়ে বেশি আলোচনা করবেন না।

মকর রাশি: চিকিৎসক এর পরামর্শ নিলে ভালো হবে। রবিবার কাজকর্মে ব্যস্ত। সোমবার কর্তব্যে অটল থাকুন। মঙ্গলে কারোর পরামর্শে ব্যবসা সামলে উঠবেন। বুধে আইনানুগ ক্ষেত্রে পরিবারের সমর্থন পাবেন। বৃহস্পতিবার প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে অগ্রগতি। শুক্রে বেলায় সময় নষ্ট। শনিতে নিজেই নিজের বন্ধনের কারণ হবেন।

কুম্ভ রাশি: সহিষ্ণুতার দ্বারা সমস্ত অশুভ প্রভাব থেকে বেরিয়ে আসবেন। রবিবার পরিবারগত সমস্যা। সোমবার ঝামেলা অব্যাহত। মঙ্গলে অর্থনৈতিক টানাপোড়েন। বুধে গতানুগতিক দিনযাপন। বৃহস্পতিবার প্রতিপক্ষ বুঝে উঠতে পারবে না। শুক্রে শুভ প্রভাব অব্যাহত। শনিতে অনুকূল প্রভাব।


মীন রাশি: আইনানুগ ক্ষেত্রে ঠিক থাকুন। রবিবার কারো সাহায্য নিয়ে দিন যাপন। সোমবার গায়ের জোরে আদায় সম্ভব নয়। মঙ্গলে মনে অশান্তি। বুধে কর্ম শুভ। বৃহস্পতিবার ব্যস্ততার ভেতরে সামলে নেবেন। শুক্রে পুরোনো কথার উত্থাপন হলে সরে আসুন। শনিতে সীমিত অর্থ নিয়ে কর্তব্য করে যাবেন।
সাপ্তাহিক রাশিফল 28/07/2019 থেকে 03/08/2019 সাপ্তাহিক রাশিফল 28/07/2019 থেকে 03/08/2019 Reviewed by WisdomApps on July 29, 2019 Rating: 5

সাপ্তাহিক রাশিফল ২১শে জুলাই থেকে ২৭শে জুলাই

July 21, 2019

মেষ রাশি: অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে গিয়ে সম্পর্ক নষ্ট হবার সম্ভাবনা। রবিবার দিনটি আশানুরূপ। সোমবার তাড়াহুড়ো করার দরকার নেই। মঙ্গলে অপ্রতিহত বাধা রয়েছে। বুধে দুপুরের পর সমস্যা কমতে থাকবে। বৃহস্পতিবার হিসাব সংক্রান্ত কাজ খুঁটিয়ে দেখুন। শুক্রে বিশ্বাস ভঙ্গ হবে এমন কাজ করবেন না। শনিতে প্রিয়জনের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝির আশঙ্কা।

বৃষ রাশি: কোনও কাজের জন্য নিজের স্বার্থ ত্যাগ করবেন। রবিবার উচ্চপদে দায়িত্ত্ব পালন করবেন। সোমবার ব্যবহারিক বুদ্ধিতে পটু থাকায় ক্ষতি হবে না। মঙ্গলে বিজাতীয় ব্যক্তির সান্নিধ্য লাভ। বুধে বিকেলের পর ঝুঁকি এড়িয়ে চলুন। বৃহস্পতিবার তুচ্ছ কারণে অন্যের শাস্তি পেতে হবে। শুক্রে পরিবেশ তত শুভ নয়। শনিতে যোগাযোগ শুভ।

মিথুন রাশি: রন্ধন শিল্পের জন্য যুক্ত হলে অনেক এগিয়ে যাবেন। রবিবার মনোবলের দ্বারা অশুভ বাধামুক্ত হবেন। সোমবার নীতিগত ক্ষেত্রে নমনীয়তা দেখবেন না। মঙ্গলে পারিবারিক ক্ষেত্রে সংযত থাকবেন। বুধে কর্মক্ষেত্রে বাধা। বৃহস্পতিবার বাইরের কোনো ঘটনায় বিচলিত হবার সম্ভাবনা। শুক্রে গতানুগতিক পরিবেশ। শনিতে শরীর নিয়ে কাবু হবেন।

কর্কট রাশি: অজ্ঞাতশক্তি আপনাকে প্রতিকূল প্রভাব থেকে বের করে আনবে। রবিবার খরচের চাপ বৃদ্ধি পাবে। সোমবার নিয়মের বাইরের ঘটনায় অসন্তুষ্ট হবেন। মঙ্গলে স্থির সিদ্ধান্ত নিতে দেরি হবে। বুধে সুসংবাদ আসবে। বৃহস্পতিবার নিজের স্বার্থ রক্ষা করতে পারবেন। শুক্রে বয়স্ক মহিলার সহায়তা পাবেন। শনিতে ন্যায্য পাওনা পেয়ে যাবেন।

সিংহ রাশি: আয় ও সঞ্চয় পরিবর্তনশীল। রবিবার পরিবেশ মোটামুটি। সোমবার কোনো সুযোগ হাতছাড়া হবে। মঙ্গলে বাইরের প্রভাব অর্থনাশের কারণ। বুধে সমস্যা বাড়বে। বৃহস্পতিবার পরিবেশ আয়ত্তে আনা কঠিন। শুক্রে অতিরিক্ত মানসিক ক্ষমতার দ্বারা আরও এগিয়ে যাবেন। শনিতে অর্থযোগ শুভ।

কন্যা রাশি: নীতিবোধের দ্বারা প্রতিটি পরিস্থিতি মূল্যায়ন করবেন। রবিবার নিজের পরাক্রম এগিয়ে যাবেন। সোমবার বেশ ভালোই কাটবে। মঙ্গলে উদ্যমী হওয়ায় নিজের ব্যাপারে দুশ্চিন্তা আসবে না। বুধে শত্রুতা বৃদ্ধি। বৃহস্পতিবার মিশ্র পরিবেশে উত্তেজিত হবেন না। শুক্রে অর্থ নিয়ে বচসা। শনিতে পরিস্থিতি সহজ হতে থাকবে।

তুলা রাশি: যে বন্ধুর জন্য ত্যাগ করবে সে বন্ধুই বিরুদ্ধে চলে যাবে।  রবিবার ভুল পদক্ষেপ আফসোসের কারণ হবে। সোমবার কাউকে বুঝিয়ে সমস্যার সমাধান হতে পারে। মঙ্গলে জরুরি নিয়ম পালন করে চলুন। বুধে ঘনিষ্ঠজনের সঙ্গে বুদ্ধিতে এঁটে উঠবেন না। বৃহস্পতিবার কর্মক্ষেত্রে পরিবেশ অনুকূল। শুক্রে পরিবেশ স্থিতিশীল। শনিতে ক্ষমতা সম্পন্ন ব্যক্তির সঙ্গে আলোচনায় লাভ হবে না।

বৃশ্চিক রাশি: স্বার্থ ব্যাহত হবে। রবিবার তত শুভ নয়। সোমবার বিদ্যার্থীদের পক্ষে রূঢ় ব্যবহার ঠিক হবে না। মঙ্গলে অপেক্ষা করা ছাড়া কিছু করার নেই। বুধে ভালো করতে গিয়ে উল্টো হবে। বৃহস্পতিবার আপনার যোগ্যতা বুঝে বিতর্কে এগোবেন। শুক্রে দূরে গিয়ে স্বল্প লাভ। শনিতে পরিচিত কারোর মাধ্যমে প্রাপ্তি।

ধনু রাশি: কেনাবেচার প্রতিষ্ঠানে সুনাম অর্জন হবে। রবিবার সহজ বুদ্ধিতে এগিয়ে যান। সোমবার কর্তব্য স্থির করা কঠিন হবে। মঙ্গলে সুন্দর পোশাক পরিহিত ব্যক্তিকে এড়িয়ে চলুন। বুধে পড়াশোনার ক্ষেত্রকে গুরুত্ব দিন। বৃহস্পতিবার অনড় মনোভাব রাখুন। শুক্রে প্রতিকূল প্রভাব অব্যাহত। শনিতে ভালো যোগাযোগের ইঙ্গিত।

মকর রাশি: করতলের ওপর প্রাপ্তি নির্ভর করছে। রবিবার কোনো লোভনীয় ক্ষেত্রে রাজি হবেন না। সোমবার উচিত মনে করলে বন্ধুকে সরাসরি বলে ফেলুন। মঙ্গলে দিন যাপন ভালোই হবে। বুধে সন্ধ্যায় পরিবেশ জটিল হবার আশঙ্কা। বৃহস্পতিবার ন্যায্য পাওনা বিলম্বে পাবেন। শুক্রে আয়- ব্যয়ের সমতা রক্ষা করা যাবে না। শনিতে  সন্তানের বক্তব্য জানার চেষ্টা করুন।

কুম্ভ রাশি: সমালোচনা শোনার জন্য প্রস্তুত থাকুন। রবিবার ভালোই কাটাতে পারবেন। সোমবার ব্যয় করে ঝামেলা মুক্ত হবেন। মঙ্গলে অবসাদ বোধ। বুধে যা প্রয়োজনীয় তাই করুন। বৃহস্পতিবার অচেনা কারোর সহায়তায় কার্যোদ্ধার। শুক্রে ভালোভাবে কাটবে। শনিতে আপনার ব্যবহার বাড়ির কেউ মানবেনা।

মীন রাশি: চরিত্রের দৃঢ়তার জন্য কেউ বিরুদ্ধে যেতে পারবেনা। রবিবার বিবেচনা করে পদক্ষেপ নিন। সোমবার অর্থ পাওয়ার সম্ভাবনা। মঙ্গলে সাফল্য লাভ। বুধে ঝামেলায় যাবেন না। বৃহস্পতিবার কর্মযোগ শুভ। শুক্রে কাউকে প্ররোচিত করবেন না। শনিতে দরকারি আলোচনার সুযোগ।
সাপ্তাহিক রাশিফল ২১শে জুলাই থেকে ২৭শে জুলাই সাপ্তাহিক রাশিফল ২১শে জুলাই থেকে ২৭শে জুলাই Reviewed by WisdomApps on July 21, 2019 Rating: 5

সাপ্তাহিক রাশিফল ৭ই জুলাই থেকে ১৩ই জুলাই ২০১৯

July 07, 2019

মেষ রাশি: স্বাধীনভাবে কাজে সামান্য বাধা। রবিবার পরিবার নিয়ে ব্যস্ত থাকবেন। সোমবার সুযোগ বুঝে নিজের দাবি আদায় হতে পারে। মঙ্গলে সম্মতি সংক্রান্ত ব্যাপারে মতামত না দেওয়ায় ভালো। বুধবার সহকর্মীদের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় থাকবে। বৃহস্পতিবার অনুকূল প্রভাব অব্যাহত। শুক্রে বিরুদ্ধ শক্তির সঙ্গে মানিয়ে চলতে হবে। শনিতে অপরিমিত ব্যয়ের আশঙ্কা।

বৃষ রাশি: বিশেষ কোনো ঘটনা জীবনধারার ওপর আলোকপাত করবে। রবিবার তত শুভ নয়। সোমবার সন্তানের ব্যাপারে দুশ্চিন্তা বৃদ্ধি। মঙ্গলে যে সহায়তা করতে চাইবে তত উপযুক্ত নয়। বুধে শুভ পরিবর্তন। বৃহস্পতিবার আপনার কাজ এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবেন। শুক্রে বেলায় সুপ্ত ইচ্ছা পূরণ হবার সম্ভাবনা। শনিতে আনন্দের সঙ্গে দিনটি কাটবে।

মিথুন রাশি: কারোর অনুগ্রহ আপনাকে সহায়তা করবে। রবিবার বন্ধুস্থানীয় কারোর মাধ্যমে সুখবর পাবেন। সোমবার ব্যক্তিগত কারণে উদ্যেশ্য সফল হবে না। মঙ্গলে কাউকে কিছু বিস্তারিত বলা ঠিক হবে না। বুধে অগ্রগতির সম্ভাবনা কম। বৃহস্পতিবার অদম্য উৎসাহ থাকায় সহজে হেরে যাবেন না। শুক্রে বেলায় শুভ পরিবর্তন। শনিবার কৌশলী বুদ্ধি নিয়ে পরিস্থিতি সামলে নেবেন। 

কর্কট রাশি: রাজনীতিক ক্ষেত্রে অশুভ সূচক। রোববার বেশি খরচ করে পরিস্থিতি সামলে দেবেন। সোমবার পাঁজরে আঘাত লাগার সম্ভাবনা। বুধবার দিনটি নৈরাশ্যজনক। প্রত্যাশিত প্রাপ্তি হবে না। বৃহস্পতিবার অপছন্দের কথাবার্তা নিয়ে মন্তব্য করতে পারবেন না। শুক্রে সমস্যা বাড়তে পারে। শনিতে শুভ যোগাযোগ।

সিংহ রাশি: গৃহগত ক্ষেত্র অশুভসূচক। রবিবার যা সত্য তাই বলে দিন। সোমবার নিয়মমাফিক খরচ হবে। মঙ্গলে কর্মে বাধা। বুধে কোনো মহিলার মাধ্যমে সুপরামর্শ পেতে পারেন। বৃহস্পতিবার প্রতিবেশী আপনার সঙ্গে আলোচনা করতে চাইবেন। শুক্রে পুরোনো শত্রুতা বাড়বে। শনিতে গতানুগতিক দিনযাপন।

কন্যা রাশি: অনুকূল আবহাওয়ায় প্রফুল্ল থাকবেন। রবিবার এলোমেলো ভাবে দিনটি কাটবে। সোমবার নিজের চেষ্টায় ঘটনাগুলোকে আয়ত্তে আনবেন। মঙ্গলে অনুকূল পরিবেশ। বুধে দরকারি ব্যাপারে সময়মত পৌঁছানো সম্ভব না। শুক্রে অধস্তন কর্মীর উপস্থিতি আপনার জন্য অনুকূল। শনিতে নিজের জন্য সময় রাখুন।

তুলা রাশি: হিসেব রাখার কাজে সুনাম বৃদ্ধি। রবিবার লেনদেন সংক্রান্ত ব্যাপার শেষ করে নিন। সোমবার কর্মযোগ শুভ। মঙ্গলে সময়মত কাজ শেষ হবে না। বুধে কাজ সুসম্পন্ন হবে। শুক্রে কাউকে কথা দিয়ে রাখতে পারবেন না। শনিতে অন্যের জন্য ব্যস্ত থাকতে হবে।

বৃশ্চিক রাশি: চঞ্চলতার জন্য ব্যক্তিগত জীবনে সময় নষ্ট। রবিবার আপনার সিদ্ধান্ত সঠিক পথেই এগোবে। সোমবার যতটা আশা করেছিলেন তার চেয়ে কম টাকা পাবেন। মঙ্গলে গোপন বিষয় আলোচনার ফল ভালোই হবে। বুধে সুযোগ হাতছাড়া হবার আশঙ্কা। বৃহস্পতিবার অসতর্ক হলে বদনাম রটবে। শুক্রে বেলায় শুভ পরিবর্তন। শনিতে সবাইকে নিয়ে ভালোই দিন কাটবে।

ধনু রাশি: অতিরিক্ত দুঃসাহস ক্ষতির কারণ হতে পারে। রবিবার কিছু সমস্যা রয়েছে। সোমবার শুভ পরিবর্তন। মঙ্গলে বিশেষ কাজে সাফল্যের ইঙ্গিত। বুধে দরকারি কাজে পরিবারের সাহায্য পাবেন। বৃহস্পতিবার কাজের গতি কমতে পারে। শুক্রে জোর করে সত্য যাচাই করতে যাবেন না। শনিতে অনর্থক ছোটাছুটি করে সময় নষ্ট। 

মকর রাশি: আইন, দর্শনের সঙ্গে যুক্ত দের শুভ সময়। রবিবার প্রতিশোধের চিন্তা করলে ভুল করবেন। সোমবার অজানা কারণে মনে আঘাত। মঙ্গলে কোনো অসমাপ্ত কাজের দায়িত্ত্ব আপনাকে নিতে হবে। বুধে কর্ম সংক্রান্ত ব্যাপারে প্রত্যাশপুরণ। বৃহস্পতিবার প্রিয়জনের আচরণ বুঝে সিদ্ধান্ত নিন। শুক্রে পারিবারিক দিক থেকে খুশি থাকবেন। শনিতে সপক্ষে পরিবেশ।

কুম্ভ রাশি: শিক্ষকতা কাজে বিশেষ সম্মান। রবিবার গতানুগতিক ভাবে দিন কাটবে। সোমবার পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে চলতে হবে। মঙ্গলবার অজানা বাধায় যাত্রা করা যাবেনা। বুধে ধৈর্য্য ধরে থাকুন। বৃহস্পতিবার খুব বেশি পরিবর্তন হবে না। শুক্রে সহকর্মীর ওপর আস্থা রাখতে পারেন।শনিতে বিশ্বস্ত কেউ আপনাকে সাহস যোগাবে।

মীন রাশি: পিঠের ওপরের দিকে ব্যথার সম্ভাবনা। রবিবার শত্রুপক্ষকে অবদমিত করা সম্ভৰ। সোমবার পরিচিত কারোর দ্বারা উপকৃত হবেন। মঙ্গলবার যথাযথ পদক্ষেপে সাফল্য। বুধে ভুল হতে পারে। বৃহস্পতিবার অশুভ প্রভাব অব্যাহত। শুক্রে কাল্পনিক দুশ্চিন্তাকে প্রশ্রয় দেবেন না। শনিতে  তর্কে জিতে যেতে পারেন।
সাপ্তাহিক রাশিফল ৭ই জুলাই থেকে ১৩ই জুলাই ২০১৯ সাপ্তাহিক রাশিফল ৭ই জুলাই থেকে ১৩ই জুলাই ২০১৯ Reviewed by WisdomApps on July 07, 2019 Rating: 5

সাপ্তাহিক রাশিফল 30 জুন থেকে 06ই জুলাই 2019 পর্যন্ত

July 03, 2019

মেষ রাশি: নৈসর্গিক কারণে কাজে বাধা পড়বে। রবিবার মোটামুটি করে কাটবে। সোমবার সন্ধ্যার পর শুভ পরিবর্তন। মঙ্গলে পরিবারের কারোর এবং বুধবারে প্রতিবেশী দ্বারা উপকৃত হবেন। বৃহস্পতিবার পারিবারিক কারণে উদ্বেগ থাকবে। শুক্রে পরিবেশের খুব একটা বদল হবে না। শনিতে বিদ্যার্থীদের পক্ষে ব্যস্ততার মধ্যে চলতে হবে।


বৃষ রাশি: গুপ্ত শত্রুর মুখোমুখি হয়ে কোনো সমস্যার মোকাবিলা করবেন। রবিবার অনুকূলে থাকায় দরকারি কাজ করে ফেলবেন। সোমবার সন্ধ্যার পর কোনো ঝুঁকি নেওয়া ঠিক হবে না। মঙ্গলে কারোর ভুল ধরে অপ্রিয় হতে পারেন। বুধে কোনো খবরের জন্য অপেক্ষার অবসান। বৃহস্পতিবার অধস্তন কর্মীর মন বুঝে প্রস্তাব দিন। শুক্রে দৈনন্দিন কাজগুলি শেষ করবেন। শনিবার পারিবারিক ঘটনায় দুঃখ পাবেন। 


মিথুন রাশি: সার্বিকভাবে সম্মান অক্ষুন্ন থাকবে। রবিবার যতটা সম্মান পাবেন তার তুলনায় আর্থিক দিক দুর্বল। সোমবার শরীর নিয়ে সমস্যা কমবে। মঙ্গলে অনুকূলে পরিবেশ। বুধে দরকারি আলোচনা করে নেওয়ার সুযোগ পাবেন। বৃহস্পতিবার বেশি খরচ করে কোথাও যাওয়ার প্রয়োজন হবে। শুক্রে কেনাবেচার ব্যাপারে ভালো। শনিবার সহদরস্থানীয় কেউ আপনাকে সাহায্য করবে।


কর্কট রাশি: দূরদেশে যাওয়া শুধু সময়ের অপেক্ষা। রবিবার ঘরে  বাইরে শুভ প্রভাব। সোমবার প্রয়োজনীয় কাজ সন্ধ্যের মধ্যে শেষ করুন। মঙ্গলে ঝামেলা অল্পবিস্তর থাকবে। বুধে নানা ধরণের কোথায় বিচলিত হবেন না। বৃহস্পতিবার উদ্দেশ্য সফল হতে পারে। শুক্রে স্থিতিশীল পরিবেশ।  শনিতে কাউকে অর্থ দেওয়া উচিত হবে না।


সিংহ রাশি: পরিচিত আত্মীয়ের মাধ্যমে অর্থ সংক্রান্ত সুরাহা হয়ে যাবে। রবিবার অত্যন্ত শুভ পরিবর্তনের সম্ভাবনা। সোমবার প্রতিবেশীদের মধ্যে সদ্ভাব বজায় রেখে চলুন। মঙ্গলে অগ্রজসম কারোর জন্য বেশি অর্থ খরচ হতে পারে। বুধে উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নজরে আসতে পারেন। বৃহস্পতিবার গবেষণামূলক ক্ষেত্রে সম্মান প্রাপ্তির আশা। শুক্রে বাক্য ব্যবহারের দক্ষতার জন্য সম্মান লাভ। শনিবার অন্যের দ্বারা উপকৃত হবেন।


কন্যা রাশি: জীবিকার ক্ষেত্রে যশ এবং প্রতিপত্তি বৃদ্ধি পাবে। রোববার প্রভাবশালী ব্যক্তি অনুগত্য লাভ। সোমবার কোনো বিশেষ ক্ষেত্রে কাজের দায়িত্ব বাড়বে। মঙ্গলে পিতৃস্থানীয় কারোর জন্য চিন্তিত থাকবেন। বুধে পারিবারিক ভ্রমণের সুযোগ অসংখ্য। বৃহস্পতিবার বয়সে বড় কারোর কথা শুনে চলতে হবে। শুক্রে স্বাস্থ্য ভালোই থাকবে। শনিতে আয় ব্যয়ের সমতা রক্ষা কঠিন।


তুলা রাশি: গুরুজনের সাহায্যতে অস্বস্তিকর পরিস্থিতি কাটিয়ে উঠবেন। রোববার বিরুদ্ধে পরিবেশ। সোমবার বিকেলে পর অস্বস্তি বাড়তে পারে। মঙ্গলবার না বুঝে হটাৎ ঠকে যাওয়ার আশঙ্কা। বুধে বাধা কমতে পারে। বৃহস্পতিবার মানসিক দৃঢ়তা বাড়বে। শুক্রে গুরুফলের আশা করতে পারেন। শনিতে আর্থিক যোগ শুভ। 


বৃশ্চিক রাশি: বিদেশে যাওয়ার উদ্দেশ্য পূরণ হবে। রোববার প্রয়োজনীয় ব্যাপারে পারিবারিক সহায়তা পাবেন। সোমবার অনৈতিক কোনো তোষামোদ মেনে নেবেন না। মঙ্গলে অপ্রতিহত বাধায় অগ্রগতি ব্যাহত। বুধে মানসিক অশান্তি। বৃহস্পতিবার পশ্চিমদিক থেকে সহায়তা পেয়ে যাবেন। শুক্রে দৈনন্দিন কাজ নিজের মতো এগোবে। শনিতে প্রতিযোগিতা মূলক ক্ষেত্রে আশানুরূপ সাফল্য।


ধনু রাশি: পরিবেশের সঙ্গে খাপ খাইয়ে চলুন। রবিবার মতবিরোধ হতে গিয়েও সামলে নেবেন। 
সোমবার মোটামুটি ভালোই কাটবে। মঙ্গলবার পরিজনেরা আপনাকে সমর্থন করবে। বুধে ন্যায্য পাওনা হাতছাড়া হতে পারে। বৃহস্পতিবার আপনার কিছু বলার থাকলে শত্রুপক্ষকে বলে দিন। শুক্রে দিনটি মধ্যমপ্রদ কাটবে। শনিতে গতানুগতিক কাজগুলি হয়ে যাবে। 


মকর রাশি: গোপনীয়তা বজায় রেখে মেলামেশা করবেন। রবিবার সন্তানের ব্যাপারে দুশ্চিন্তা বৃদ্ধি। সোমবার শুভকর্মের জন্য ঋণ চাইলে পেয়ে যাবেন। মঙ্গলবার প্রতিপক্ষকে আপনার ইচ্ছা জানিয়ে দেবেন। বুধে প্রচেষ্টার মাধ্যমে বিদ্যায় সাফল্য। বৃহস্পতিবার জনসংযোগ মূলক কাজে প্রশংসা বৃদ্ধি। শুক্রে ফাটকা ব্যবসায় টাকা লাগানো ঠিক হবে না। শনিতে সহকর্মীর সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝির আশঙ্কা। 


কুম্ভ রাশি: ঝুঁকিপূর্ণ কাজে সাফল্য। রবিবার প্রত্যাশা অনুযায়ী ফল প্রাপ্তিতে সাফল্য। সোমবার আয়ের চাইতে ব্যয় বেশি হবার আশঙ্কা। মঙ্গলবার চঞ্চলতা থেকে ভুল সিদ্ধান্ত নিয়ে আফসোস। বুধে সাংসারিক কারণে জটিলতা। বৃহস্পতিবার বিতর্কে গেলে আপনি জয়ী হবেন। শুক্রে সুসংবাদ আসার সম্ভাবনা। শনিবার কেনাবেচায় লাভবান হবেন।


মীন রাশি: নিজ নিজ ক্ষেত্রে সফল হবেন। রবিবার সহদরস্থানীয় দ্বারা উপকৃত হবেন। সোমবার দরকারি কাজ সকালে শেষ করুন। মঙ্গলবার অপ্রীতিকর পরিবেশ। বুধে প্রতিকূল প্রভাব আপনার কাজে বাধা দেবে। বৃহস্পতিবার বিদ্যার্থীর ক্ষেত্রে আশানুরূপ ফল হবে না। শুক্রে অনুকূল প্রভাব ফিরবে। শনিতে বিদ্যার্থীদের পক্ষে আশাজনক।


সাপ্তাহিক রাশিফল 30 জুন থেকে 06ই জুলাই 2019 পর্যন্ত সাপ্তাহিক রাশিফল 30 জুন থেকে 06ই জুলাই 2019 পর্যন্ত Reviewed by WisdomApps on July 03, 2019 Rating: 5

জল কামান খাওয়া এক প্রাথমিক শিক্ষকের অভিজ্ঞতা

June 27, 2019
দিনটা ২৪ শে জুন ২০১৯ । আগের দিন রাত্রে এক ভাই ফোন করে জিজ্ঞাসা করেছিলো - " দাদা , কাল আমরা শেষ কামড় বসাতে যাবো , তুমি আসবে তো ? " 
হেঁসে বললাম - কাকে আবার কামড়াতে যাবি ভাই ? ভেউ ভেউ করে দুর্নাম করেছিস , এবার কি কামড়ে জলাতঙ্ক করে ছাড়বি ? "
পরের দিন যে এভাবে আমার মুখের কথা জল-আতঙ্কের রূপ নেবে ভাবতে পারিনি । 
যাইহোক - কিছু হাসি ঠাট্টা করার পর বললাম - মায়ের অসুখ , আন্দোলনে যেতে পারবো না । ভাইটা আর কিচ্ছুক্ষন কথা বলে ফোন রেখে দিল । 
রাত তখন ৯ টা হবে ,প্রতিদিন এই সময়ে পাশের বাড়ির মেয়েটি বেশ চিৎকার করে পড়াশুনা করে । কোনো কোনো দিন ওর পড়া কানে আসে । শুনতে বেশ লাগে । পাড়ায় দু'এক জন নতুন সঙ্গীত শিল্পীও হয়েছে  , তাদের বেসুরো গানের চেয়ে পড়ার আওয়াজ বেশ মধুর । সেদিনও মন গেল , কি পড়ছে শুনতে পেলাম ।
 সিপাহী বিদ্রোহের কারন ও ফলাফল । 
 আশ্চর্য , হঠাত মনে হল - কালকের আন্দোলনটা কি সিপাহী বিদ্রোহের থেকে কোনো অংশে কম ? মনের মধ্যে এক আলাদা ভাবের সঞ্চার হল । এই আন্দোলন কি একরকম স্বাধীনতার আন্দোলন নয় ? - স্বল্প বেতনের লজ্জা থেকে স্বাধিনতা , মানুষের হাজারো বাঁকা প্রশ্নের থেকে স্বাধীনতা , মন খুলে বাঁচতে না পারার জ্বালা থেকে স্বাধীনতা । 
সিপাহী বিদ্রোহ একটি চরম অসফল বিদ্রোহ , ইংরেজদের কাছে গো হারা হেরেছিল সিপাহীরা । এমনকি মঙ্গল পান্ডে আত্মহত্যা করতে গেছিলেন । তবু আমরা স্বাধীনতার প্রথম সংগ্রামের কথা ভাবলেই এই বিদ্রোহের কথাই আগে মনে করি । এই বিদ্রোহ যেমন স্ফুলিঙ্গ ছিল পরবর্তী হাজারো সংগ্রামের , তেমনই হয়তো কালকের সংগ্রাম ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে । 

আর আমি  স্কুলে বসে হটস্টার চালিয়ে লাইভ টিভিতে দেখবো - আন্দোলনের কি পরিস্থিতি ? 
ভাবলাম , আমি কি এতটাই সঙ্কীর্ণ ? 

মন আর মানলনা । ঠিক করলাম যাবই , দেখি কি হয় - 


পরদিন সকাল আট'টার ট্রেন ধরবো ঠিক করেও পারলাম না । পরের ট্রেন সকাল ন'টায় । তাই হোক । বেড়িয়ে পড়লাম , কি হবে জানিনা তাই আলাদা কোনো প্রস্তুতিও নিইনি । জল , ছাতা , মানিব্যাগ , আই কার্ড আর ট্রেনে বসে পড়ার জন্য ব্রাইয়ান ট্রেসির বই ' মাস্টার ইওর টাইম , মাস্টার ইওর লাইফ ' নিয়ে  নিলাম। 
শিয়ালদহ পৌঁছে জানতে পারলাম - সুবোধ মল্লিক স্কোয়ারে যেতে হবে । ওখান থেকেই যাত্রা শুরু হবে । হয়তো শেষ হবে ধর্মতলায় রানী রাসমনী রোডে । উত্তেজনায় টগবগ করছে শরীর । কদিন আগেই একটা স্মার্ট ওয়াচ কিনেছিলাম । ঘড়িটাতে সময় ছাড়াও দিনে কত কিমি হাটলাম , হার্ট রেট কত - এরকম অনেক কিছু দেখা যায় । আন্দোলনে হাঁটতে হবে বলে স্মার্ট ওয়াচ পড়েই এসেছিলাম । শিয়ালদহ থেকে কিছুক্ষন হেটে পৌছালাম সুবোধ মল্লিক স্কয়ার-এ । দেখি কয়েক হাজার শিক্ষক রাস্তা জুড়ে দাড়িয়ে আছেন । পিছনের দিকের কয়েকজন চায়ের দোকানে বসে চা বিস্কুট খেয়ে নিচ্ছেন । অনেকে হাততালি দিয়ে জোড়ে জোড়ে - " পি.আর.টি ,  পি.আর.টি   " বলে চিৎকার করছে । বেশ একটা দুর্গাপুজার মতো পরিবেশ । শুনতে পেলাম টুপি আর ব্যাচ সামনে গেলে পাওয়া যাবে । কয়েক হাজার মানুষকে পাশ কাটিয়ে সামনে গেলাম । ভিড়ের এক্কেবারে সামনে ক্যামেরা হাতে কয়েকজনকে দেখলাম । আর দেখলাম " ইউইউপিটিএ "এর  এক একটি অক্ষর হাতে নিয়ে দারিয়ে আছেন দিদি মনি ও মাস্টারমশাইরা । ব্যাচ পেলাম , সেফটিপিনও; কিন্ত টুপি নেই ।  
এবার পালা চেনাজানা মুখ খোজার । লাইনের শেষ মাথা আর দেখা যায়না । তারই মধ্যে কিভাবে যেন জনা চারেক অতিপরিচিত শিক্ষকমশাইদের পেয়ে গেলাম । কিছুক্ষন অপেক্ষার পর বড় ব্যানার এল । দুটি ম্যাটাডো গাড়িও এলো , নেতৃত্ব যারা দিচ্ছেন তারা গাড়িতে করে রওনা দিলেন , তাদের হাতে মাইক্রোফোন । গাড়ির মাথায় লাগানো মাইক । কাছ থেকে দেখেছিলাম তাই বলতে পারি - নেতৃত্ব প্রদানকারী শিক্ষকদের কয়েকজনের শরীর বয়সের ভারে ঝুঁকে পড়া গাছের মত হলেও তাদের উদ্যম এক আলাদা স্পার্কের জোগান দিচ্ছিল আমাদের মধ্যে । ১২ টা নাগাদ শুরু হল মিছিল । দুটি লাইন , রাস্তার দু'পাশ দিয়ে হাটা শুরু , সবাই এখানে শিক্ষক বা শিক্ষিকা । হাঁটতে হাঁটতে চলতে লাগলো স্লোগান - " আমরা কারা ? উস্থিয়ান, সামনে কারা - উস্থিয়ান ..." তারপর - " আমরা কি চাই ? পি.আর.টি ... " আরো অনেক কিছু । চলতে চলতে দেখা পাওয়া গেল সার বেধে দাড়ানো কলকাতা পুলিশের । তারা হাসি হাসি মুখ নিয়ে দাড়িয়ে দেখছিল মিছিলের চলমানতা । পুলিশের সামনে দাড়িয়ে গেলেন একদল শিক্ষক , হাতের তালির সাথে সাথে স্লোগান উঠলো - " পুলিশ তোমার ডি.এ বাকি , এই মিছিলে হাটবে নাকি ?"  
দু একজন পুলিশ মুখে এক অসহায় হাসি মেখে আমাদের এগিয়ে যেতে বললেন । আবার সচল হল মিছিল । পৌছালাম ধর্মতলা । নেতৃত্ব থেকে চুপি চুপি বলে গেল - " যতটা পারবেন আস্তে হাটবেন , ঘন্টা খানেক যানচলাচল অচল না হলে আমাদের খবর মিডিয়া নেবে না " । বুঝলাম তো, কিন্তু কত আর আস্তে হাঁটা যায় ? হাঁটতে হাঁটতে চোখ গেল আটকে থাকা গাড়িগুলোর দিকে । বাস , ট্যাক্সি , প্রাইভেট গাড়ি সব সারি বেধে দাঁড়িয়ে আছে । কেন জানিনা , বড় মায়া হল । ভাবলাম - আমরা যখন বাসে থাকি আর সামনে দিয়ে মিছিল যায় , তখন মনে হয় - কখন শেষ হবে ? ।  জানি , অনেক মানুষ ভয়ঙ্কর ব্যাস্ততা নিয়ে বেড়িয়েছেন । তারা হয়ত হা পিত্যেশ করছেন , হয়তো ভগবানের কাছে চাইছেন - এই জ্যাম তাড়াতাড়ি ঠিক করানোর জন্য । আবার এও মনে হল - ওই বাসে যারা বসে আছেন তাদের মধ্যেও হয়ত কেউ প্রাইমারী শিক্ষক বা কোনো শিক্ষকের স্ত্রী বা সন্তান বা পরিবারের কেউ । এই আন্দোলন তাদের জন্যেও । 
জানিনা মিছিলের আর কতক্ষন লেগেছিল রাস্তা পার হতে , তবে দুপুর ১ টা ১৫ নাগাদ আমরা জড়ো হলাম রানী রাসমনী রোডে । সামনের রাস্তা ঘিরে রেখেছে পুলিশ বাহিনী , প্রথমে একটা ব্যারিকেট , তারপর আরো উচু আরেকটি ব্যারিকেট । কথায় কাজ না হলে এই ব্যারিকেট ভাঙতে হবে । এটাই নাকি নিয়ম । এই দুটি ব্যারিকেট ভাঙতে পারলেই আমরা যেতে পারবো বিধানসভা , তারপর নবান্ন । 
ও , এতো অনেক কাজ । শরীরে শক্তির টান পড়েছে তাই পাশের একটি হোটেলে ঢুকে কয়েকটা নান খেয়ে নিলাম । হোটেলের মালিক জিজ্ঞাসা করলেন - " দাদা , এই " পি.আর.টি কি জিনিস ? সবাই দেখছি চাইছেন আপনারা " , বুঝলাম - সাধারন মানুষ অনেকেই আমাদের আন্দোলনের কারন বুঝতে পারেননি । একটু ভেঙ্গে বোঝালাম । ভদ্রলোক বললেন - " আরে দাদা , আপনারা কি পাগল হয়েছেন ? এ সরকার আর থাকবে না , এ শেষ সময়ে লুটেপুটে নিয়ে যাবে । আপনাদের কিচ্ছু দেবে না ।" 
কিছু বললাম না । আমরা রাজনীতি করতে আসিনি । কোনো রঙ নিয়েও আসিনি । শুধুই কয়েকটি দাবি নিয়ে এসেছি । সারা পশ্চিমবঙ্গের প্রায় দুই'লক্ষ প্রাথমিক শিক্ষক শিক্ষিকাদের মনের কথা সবার সামনে তুলে ধরার চেষ্টা করছি মাত্র । এভাবেই তো পরিবর্তন আসে । 


খেয়েদেয়ে শক্তি পেলাম । জড়ো হলাম ব্যারিকেটের কাছে । শুনলাম আমাদের নেতৃত্বদের মধ্যে ৫০ জন গ্রেপ্তার হয়েছেন । কাজেই আর বসে থাকা নয় । ধাক্কা মারো ব্যারিকেটে । 


শুরু তো হল ধাক্কা মারা , কিন্তু লোক কই ? আমরা জনা শ'তেক লোক গায়ের জোড়ে ধাক্কা মেরে চলেছি দড়ি বাঁধা পুলিশ ব্যারিকেটে । উল্টদিক থেকে প্রায় সম সংখ্যক পুলিশ একই তালে উল্টধাক্কা মেরে আটকে রাখছেন ব্যারিকেট । এ যেন  পুলিশ আর শিক্ষকের  - " দোল দোল দুলুনি খেলা " । আস্তে আস্তে যোগ দেওয়া শুরু করলেন আরো শিক্ষক শিক্ষিকা রা । মনে বল পেলাম । শুরু হল অন্তহীন ঠেলাঠেলি । বোঝা গেল - পুলিশের দম ফুরাতে শুরু করেছে । তাই - রেডি করা হল জল কামান । আগে শুধু টিভিতেই দেখেছি তাই বুঝিনি এর কি ক্ষমতা । ঝড়ের বেগে একরাশ জলরাশি  এসে লাগলো বুকের ছাতিতে । পিছিয়ে গেলাম কয়েক হাত । মনে পড়লো , পকেটে আছে কিস্তিতে কেনা ১৩ হাজারের ফোন । পিছিয়ে এলাম বেশ কিছুটা । তখনো জল কামান চলছে পুরোদমে । মোবাইলটাকে ব্যাগে ভরে , ব্যাগটাকে প্লাস্টিকে মুড়ে রেডি হয়ে আবার এগিয়ে গেলাম । নোংরা জলের স্রোত এসে লাগলো কানে , বুঝতে না বুঝতেই আবার , তারপর আবার । অন্য কেউ হলে হয়ত বিরত্ব দেখাতো কিন্তু আমি এক মাস্টারমশাইয়ের ছাতার তলায় গিয়ে কোনোরকমে নিজেকে বাঁচানোর চেস্টা করতে লাগলাম । ছাতার সাথে লড়াই করে জলের তোড় ভিন্ন পথ নিল । এবার শুরু হল হাটু আর মুখে আক্রমন । কিছুক্ষনের জন্য জলের ভয়ে কুকড়ে গেছিলাম । তারপর স্রোত থামল । জল শেষ । রিফিল করতে মিনিট দশেক লাগবে । দেখলাম - বুকের ব্যাচ কোথায় যেন ছিড়ে পড়েছে , জামা , জিন্স , পিঠের ব্যাগ সব ভিজে চুপচুপ করছে । মনে বেশ একটা কষ্ট লাগলো , আমরা প্রাইমারীর মাস্টাররা কি এতটাই অপ্রয়োজনীয় ? এতটাই হেয় ? ন্যায্য দাবির কথা বলায় - গ্রেফতার , জল কামান ? কেমন যেন অবিশ্বাস্য লাগছিল । আরো আশ্চর্য লাগছিল পিছনের কয়েক হাজার শিক্ষকদের দেখে । আমরা খাচ্ছি জল কামান , তাঁরা খাচ্ছেন - চা , সরবত , আখের রস । ভেজা জামাকাপড়েই পিছনের দিকে ছুটে গেলাম - সামনে যাদের পেলাম তাদের বললাম - " আপনারা এখানে দাঁড়িয়ে না থেকে এগিয়ে আসুন , সবাই মিলে ঝাপিয়ে পড়ি " । তাঁরা অনেকেই আমার ছবি তুলে নিলেন । কয়েকজন পরিস্কার ভাষায় বললেন - " তোমরা লড়  আমরা সাথে আছি ।  বুঝলাম না " এ কেমন সাথে থাকা !!! রাগে শরীরে এনার্জি বেড়ে গেল । আবার গেলাম - ঠেলাঠেলি শুরু । আবার জলকামান শুরু । এবার আর পিছিয়ে আসিনি । বুদ্ধি করে সবাই মিলে ব্যারিকেট না ঠেলে দিলাম এক টান । ব্যাস , আমাদের দিকেই ভেঙ্গে পড়লো ব্যারিকেট । হুড়মুড়িয়ে ব্যারিকেটের উপর উঠতেই টের পেলাম এক মাস্টারমশাইয়ের পা চাপা পড়েছে লোহার ভারী ব্যারিকেটের তলায় । লাফ দিয়ে নেমে গেলাম ।  সামনে আরো বড় ব্যারিকেট  । পিছন ফিরে দেখলাম আহত শিক্ষককে পিছনে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে । মাস্টারমশাইয়ের চোট কেমন তা দেখার আগেই জল কামান এসে লাগলো গলার কাছে । ছুটে একপাশে চলে গেলাম । সরে গেলাম অনেকটা কোনার দিক , কামানের নাগালের বাইরে । কিছুক্ষন চালিয়ে আবার একটু বিরতি । এই মোক্ষম সময় দ্বিতীয় ব্যারিকেট ভাঙার । 


কিন্তু হায় !! এই ব্যারিকেটের ইঞ্জিনিয়ার পরীক্ষায় ফাঁকি মেরে পাশ করেনি । মজবুত ব্যারিকেট । ব্যারিকেটে ধাক্কা মারতে গেলে পাদানীতে চড়তে হচ্ছে , আর পাদানীটা ব্যারিকেটের-ই অংশ । একেই শক্ত স্টিলের ভার , তার উপরে নিজের ওজন , অন্যপাশে পুলিশ বাবাজীরা যুত করে ব্যারিকেটের পাদানির উপর উঠে বসে আছেন । এ ব্যারিকেট ভাঙতে ক্রেন প্রয়োজন । এমনিতেই শক্তি শেষ , তার উপরে ক্রমাগত জল কামান । এই যুদ্ধও চলল ৩০ মিনিট মত । আর পারছিলাম না । শুকনো ড্রেসের শিক্ষকেরা দূরে দাঁড়িয়ে ছিলেন । সত্যি বলতে কি ভীষণ রাগ আর হিংসা হচ্ছিল । মনে হচ্ছিল - আমরা এই হাজার খানেক লোক পাগল , আর বাকি সবাই পাগলা গারদে এসেছেন পাগল দেখতে । 


যাইহোক , ব্যারিকেট যুদ্ধে আমাদের অবশ্যম্ভাবী হার যখন মনের ভিতরে জায়গা গেঁড়ে বসেছে তখন খবর পেলাম - " শিক্ষা মন্ত্রী কথা বলতে রাজি হয়েছেন । সুরাহা হবে " । ৩০ মিনিট রেস্ট । উঠে পরলাম । মাথা ঝিম ঝিম করছিল । গা হাত পা কাঁপছিল । এদিক ওদিক খুঁজে গতকালের ভাইটির দেখা পেলাম । তার জিন্স কিছুটা ভিজেছে । জলের ছিটে লেগেছে বোধ হয় । আমার সাথে কয়েকটা ছবি তুলে বলল - " দাদা , আমার কাছে গামছা আছে তুমি গা হাত পা মুছে এক সেট নতুন জামা প্যান্ট পড়ে নাও । " 
বললাম জামা প্যান্ট কোথায় পাবো ? এমন হবে তা তো জানতুম না তাই কিছুই এক্সট্রা আনিনি । 
কাজেই - ধর্মতলা বাজার থেকে একটা নতুন প্যান্ট আর গোল গলা গেঞ্জি কিনে পড়ে ফেললাম । পাশের হোটেলে গিয়ে খাওয়া দাওয়া করলাম । তারপর ফিরত গিয়ে দেখি সব শান্ত । জল কামান আর নেই , সবাই পেপার পেতে বসে শুয়ে আছেন । মাইকে একজন শিক্ষক গান গাইছেন । এভাবেই কেটে গেল অনেকটা সময় । একজন বিজ্ঞ ব্যাক্তি এসে বললেন - " খবর পেলাম এই অবস্থান বিক্ষোভ না তুললে , গ্রেফতার হওয়া ৫০ জন শিক্ষকদের ছাড়া হবে না  " । 
গভীর এক হতাশা মন টাকে গ্রাস করে নিল । মাথা আর কান ততক্ষনে ব্যাথার চরম সীমায় পৌঁছে গেছিল । আর ওখানে বসে থাকতে পারলাম না । ভেজা বই ,আধ ভেজা মোবাইল আর ভেজা মানিব্যাগ ভরা ভেজা ব্যাগটাকে  কাঁধে নিয়ে উঠে পরলাম শিয়ালদহ যাওয়ার বাসে । মনকে সান্ত্বনা দেওয়ার জন্য বললাম - আরে আর কিছু হোক না হোক - এটুকু তো নিশ্চিত হলাম যে আমার স্মার্ট ওয়াচটি সম্পূর্ণ ওয়াটার প্রুফ । 


[ আমার অভিজ্ঞতা শেয়ার করলাম - এক প্রাথমিক স্কুলের ভারপ্রাপ্ত শিক্ষক ]

***ভালো লাগলে লেখাটি শেয়ার করতে পারেন 
জল কামান খাওয়া এক প্রাথমিক শিক্ষকের অভিজ্ঞতা  জল কামান খাওয়া এক প্রাথমিক শিক্ষকের অভিজ্ঞতা Reviewed by WisdomApps on June 27, 2019 Rating: 5

সাপ্তাহিক রাশিফল 22/06/19 থেকে 28/06/19 পর্যন্ত

June 23, 2019

মেষ রাশি: কর্মকে বদল করার জন্য মনস্থির করুন। রবিবার কর্ম ও পরিবার অনুকূল। সোমবার প্রয়োজনীয় কাজ শেষ না করলে আটকে যাওয়ার সম্ভাবনা। মঙ্গলে পরিবেশ মিশ্র। বুধে অর্থকরী বাধা। বৃহস্পতিবার মনে নব আশা। শুক্রে শুভযোগ। শনিতে লেনদেনের ক্ষেত্রে সতর্ক থাকুন।


বৃষ রাশি: ঊর্ধ্বতন কতৃপক্ষকে ভয় পাবেন না। রবিবার নতুন কাজে সাফল্য। সোমবার গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপারে সাফল্য। মঙ্গলে প্রত্যাশপুরণ হতে পারে। বুধে অনুকূল প্রভাব অব্যাহত। বৃহস্পতিবার পরিস্থিতি জটিল। শুক্রে অর্থযোগ শুভ। শনিতে একটু বেলায় শুভ পরিবর্তন।


মিথুন রাশি: এককভাবে এগোতে পারবেন। রবিবার দ্রুত কোনো ঘটনা ঘটবে, চিন্তা করার সময় পাবেন না। সোমবার পদস্থ ব্যক্তির সঙ্গে যোগাযোগের ইঙ্গিত। মঙ্গলে আনন্দবহুল পরিবেশ। বুধে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে লাভ। বৃহস্পতিবার অপ্রত্যাশিত যোগাযোগ। শুক্রে সামাজিক ক্ষেত্রে খ্যাতি বৃদ্ধি। শনিতে কোনো চুক্তিতে সই না করাই ভালো।


কর্কট রাশি: স্বাভাবিক দৃষ্টিভঙ্গিতে সিদ্ধান্ত নিন। রবিবার অশান্তির ভেতরে কাটবে। সোমবার অশুভ যোগ। মঙ্গলে কর্মে বাধা। বুধে একইরকম ভাবে কাটবে। বৃহস্পতিবার শুভ পরিবর্তন। শুক্রে মনের আশা পূরণ হবে। শনিতে ধনাগমের আশা।


সিংহ রাশি: মায়ার বাঁধনে কাউকে গিয়ে সমালোচনা শুনতে হবে। রবিবার অনুকূলে পরিবেশ থাকবে। সোমবার বিকেলের পর কোনো ঝুঁকি নেওয়া ঠিক হবে না। মঙ্গলে অকারণ ভীতি সৃষ্টি হবে।  বুধে পরাভব মেনে নিলে জটিল পরিস্থিতি থেকে মুক্তি। বৃহস্পতিবার হজমের গোলমালে কষ্ট। শুক্রে কারোর জন্য অপেক্ষা করে সময় নষ্ট। শনিতে নতুন যোগাযোগ। 


কন্যা রাশি: ঘরে বাইরে সন্মান, পদমর্যাদা। রবিবার আশানুরূপ পরিবেশ। সোমবার সম্মানজনক ক্ষেত্র থেকে শুভফল আশা করতে পারেন। মঙ্গলে খাদ্য সম্পর্কিত ব্যাপারে লাভ হওয়ার সম্ভাবনা। বুধে ঘরে বাইরে আশানুরূপ পরিবেশ। বৃহস্পতিবার ধীরে চলা দরকার। শুক্রে সামান্য কাজে পরিশ্রম বেশি হবে। শনিতে দুপুরের পর শুভ পরিবর্তন।


তুলা রাশি: কতগুলো নিয়মের বশবর্তী হয়ে চলতে হবে। রবিবার তত শুভ নয়। সোমবারও অস্থিরতার ভেতর কাটবে। মঙ্গলে বিতর্কিত ক্ষেত্রে জয়লাভের সম্ভাবনা। বুধে কিছু প্রাপ্তি ও সার্থকতা। বৃহস্পতিবার প্রিয়জনের সঙ্গে যোগাযোগ। শুক্রে প্রয়োজনীয় কাজ অল্প প্রয়াসে এগিয়ে যাবে। শনিতে পূর্বের কোনো সমস্যা দেখা দিতে পারে।


বৃশ্চিক রাশি: বিশ্বস্ত কারও ওপর নির্ভর করতে পারেন। রবিবার কাজকর্মে বাধা। সোমবার ঝামেলা অব্যাহত। মঙ্গলে যত পরিচিতই হোক চুক্তির ক্ষেত্র খতিয়ে দেখা দরকার। বুধবার পরিবেশ প্রতিকূল। বৃহস্পতিবার সমস্যা কিছু কমবে। শুক্রে মোটের উপর শুভ। শনিতে কোনো প্রচেষ্টা সার্থক রূপ নেবে। 

ধনু রাশি: সন্তানের ব্যবহারে ক্ষুদ্ধ হবেন। রবিবার প্রতিবেশী কারোর মাধ্যমে দরকারি খবর পাবেন। সোমবার অজ্ঞাতকারণে নিশ্চিত প্রাপ্তি হাতছাড়া। মঙ্গলে বিরোধিপক্ষকে নিয়ে দুশ্চিন্তা। বুধে দিনটি সংগ্রামবহুল। বৃহস্পতিবার সুখবর আসতে পারে। শুক্রে নতুন সমস্যার আশঙ্কা। শনিতে পরিবার নিয়ে উদ্বিগ্ন হবেন।

মকর রাশি: ভালোয় মন্দয় মিলিয়ে কাটবে। রোববার বেশি দূরে যাওয়ার পক্ষে শুভ নয়। সোমবার অর্থকরী অনিশ্চয়তা। মঙ্গলে অনুকূলতা অব্যাহত। বুধে কর্ম ও পারিবারিক ক্ষেত্রে শুভদায়ক। বৃহস্পতিবার পক্ষে ও বিপক্ষে দুরকম প্রভাব বর্তমান। শুক্রে বাধা। শনিবার নতুন কিছুর পক্ষে অনুপযুক্ত।


কুম্ভ রাশি: ক্ষমতাবান ব্যক্তি সমস্যা সমাধানের জন্য আপনাকে বলবেন। রবিবার শুভ পরিবর্তনের সম্ভাবনা। সোমবার কাজ কিছুটা এগিয়ে যাওয়ার পর আটকে যেতে পারে। মঙ্গলে অনিশ্চয়তার প্রভাব থাকায় কোথাও দেরী হতে পারে। বুধে ভুল পথে অর্থ খরচ। বৃহস্পতিবার কর্মক্ষেত্রে আপনার মতামত গুরুত্ব পাবে। শুক্রে নানাদিক বিশেষ উল্লেখযোগ্য। শনিতে দুপুরের পর জটিলাকার ধারণ করতে পারে।


মীন রাশি: শরীর নিয়ে বাধা। রবিবার আর্থিক ব্যাপারে আশাহত। সোমবার যা আশা করবেন পেতে পেতে সন্ধ্যা হয়ে যাবে। মঙ্গলে শুভ যোগাযোগ। বুধে নতুন কিছু শুরু করে রাখতে পারেন। বৃহস্পতিবার অর্থ, পরিবার নিয়ে দুশ্চিন্তা কাটবে। শুক্রে কাউকে কথা দিয়ে রক্ষা করা সম্ভব হবে না। শণিতে বেলায় শুভ পরিবর্তন।
সাপ্তাহিক রাশিফল 22/06/19 থেকে 28/06/19 পর্যন্ত সাপ্তাহিক রাশিফল 22/06/19 থেকে 28/06/19 পর্যন্ত Reviewed by WisdomApps on June 23, 2019 Rating: 5

মাত্র ৫৫০০ টাকায় ২ জন ,২ রাত ৩ দিন ভালোভাবে দার্জিলিং ঘুরে আসতে পারবেন - দার্জিলিং ভ্রমণ গাইড

June 18, 2019
এই লেখাটি আমার ব্যাক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে লিখছি । খুব কম খরচে দুই জন মানুষ অনায়াসে দার্জিলিং ঘুরে আসতে পারবেন । থাকা , খাওয়া ও সাইট সিন সব নিয়ে ৫৫৩০ টাকার ভিতর বেশ ভালোভাবে হয়ে যাবে ।  কেনাকাটা করার ব্যাপারটা সম্পূর্ণ আপনার , ওটার উপর আমার কিছু করার নেই । তাহলে আসুন স্টেপ বাই স্টেপ জেনে নিই কীভাবে এত কম খরচে আপনি ঘুরতে পারবেন ? 


ট্রেনের টিকিট ঃ ঘুরতে যাওয়ার প্ল্যান অন্তত ৩ মাস আগে করবেন এবং মনস্থির করার সাথে সাথেই টিকিট কেটে রাখলে সঠিক দামে কনফার্ম টিকিট পাবেন । হাওড়া থেকে নিউ জলপাইগুড়ি যাওয়ার ভাড়া মাত্র ৩২০ টাকা / হেড । তাহলে দুইজনের ভাড়া পরবে ৬৪০+ ট্যাক্স = ৬৫০ টাকা ধরুন । 
দুইদিনের ট্যুর ধরে নিয়ে রিটার্ন টিকিট টাও কেটে নিন । একই ভাড়া পড়বে । তাহলে নিউ জলপাইগুড়ি পর্যন্ত যাওয়া ও ফেরত আসা = ১৩০০ টাকায় কমপ্লিট । 
চেষ্টা করবেন এমন ট্রেন ধরার যেটা ভোর বেলা নিউ জলপাইগুড়ি পৌছাবে । ভোরের দৃশ্য খুব সুন্দর । 


নিউ জলপাইগুড়ি থেকে দার্জিলিং ঃ নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশনের কাছে আটোস্ট্যান্ড আছে । ২০টাকা করে ভাড়া নেবে , পৌছে যাবেন তেঞ্জিং নোরগে বাসট্যান্ড । এখানেই শেয়ার জিপ পেয়ে যাবেন । ভাড়া মাথা পিছু ১৫০ টাকা । ৩ ঘন্টা জার্নি করে দার্জিলিং পৌছে যাবেন । এখানে দুজনের মোট খরচ - ৩০০+৪০ = ৩৪০ টাকা । 
কোন হোটেলে থাকবেনঃ দার্জিলিং-এ প্রচুর হোটেল আছে । ভ্রমণ সিজন - অর্থাৎ গরম কালে ভিড় বেশী থাকে তাই ঘরের ভাড়া বেড়ে যায় । অন্য সময় বেশ কম । অনলাইনে বুক করলে মাত্র ৪০১ টাকা থেকে ১০০০  টাকার ভিতর অনেক হোটেল পেয়ে যাবেন । ৭০০ - ৮০০ টাকার হোটেলও বেশ ভালো । অ্যাটাচ বাথরুম , গিজার পেয়ে যাবেন ৭০০টাকার রুমে । ধরে নিলাম ৭৫০ টাকা রেটে রুম বুক করলেন । তাহলে দু'দিনে রুম রেন্ট = ১৫০০ টাকা । 


মেন বিষয় , সাইট সিন ঃ দার্জিলিং এ দুই দিনের প্ল্যান নিয়ে গেলে একদিন সাইট-সিন করবেন আর একদিন পায়ে হেটে ঘুরে বেড়াবেন । পায়ে হেটে ম্যাল , ম্যাল মার্কেট , মহাকাল মন্দির , চউক বাজার , নেহেরু মার্কেট , ছোট ছোট মনাস্ট্রি , কৃষ্ণ মন্দির  ঘুরে দেখতে পারেন । এতে কোনো খরচা হবে না । কোথাও কোনো এন্ট্রি টিকিট নেই । 
দ্বিতীয় দিন সাইট সিন করার জন্য আগের দিন  অবশ্যই গাড়ি বুক করতে হবে । একটা গাড়ি বুক করলে ২০০০ থেকে ২৫০০ টাকা লাগে । দুজনের জন্য বুক করবেন না । গাড়ির ড্রাইভারদের বললেই তারা আরও এক জোড়া টুরিস্ট খুঁজে দেবে , একটা ৪ সিটার গাড়ি ৪ জন মিলে ২০০০ টাকায় বুক করলে মাথাপিছু মাত্র ৫০০ টাকা ভাড়া লাগবে । 
অতএব , দুই জনের সারাদিন সাইট সিনের খরচ মাত্র ৫০০+৫০০ = ১০০০ টাকা । গাড়ি আপনাকে নিয়ে যাবে , টাইগার হিল , বাতাসিয়া লুপ , ঘুম মনাস্ট্রি , রক গার্ডেন , টি গার্ডেন , চিড়িয়াখানা , রোপওয়ে , তেঞ্জিং রক , পিস প্যাগোডা , বুদ্ধ টেম্পেল  প্রভৃতি জায়গায় । বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই কোনো টিকিট লাগে না । বাতাসিয়া লুপ ও চিড়িয়াখানা দেখতে টিকিট কাটতে হবে , টিকিট ও ছবি তোলার ৫০ টাকা খরচ ধরে দুজনের মোট ২০০ টাকা খরচ হবে ।  রোপওয়ের খরচ ৩৫০ টাকা / হেড , খরচ বাঁচাতে এটা বাদ দিতে পারেন । যাইহোক , সাইটসিন করতে মোট খরচ = ১২০০ টাকা 

খাওয়া দাওয়া ঃ প্রথমেই মনে রাখবেন , ছাতু , চিড়ে , মুড়ি , বিস্কুট - এগুলো বাড়ি থেকে যথেষ্ট পরিমান সাথে নিয়ে বেরোবেন । দার্জিলিং এ খাবারের দাম বেশ ভালো । মোটামুটি দেখে নিন এই কদিনের খাবার তালিকা - 
প্রথম দিন
১।  ট্রেনে ডিনার - ( বাড়ি থেকে নিয়ে যাবেন )
২। ট্ব্রেরেন থেকে নেমে ব্রেকফাস্ট - ছাতু / চিড়ে খেয়ে নিন 
২। হোটেলে পৌছে দুপুরের খাবার - নিরামিষ ভাত থালি ১০০ টাকা মিনিমাম । দুজন ২০০ টাকা । 
৩। সন্ধ্যের খাবার - মোমো খেতে পারেন । ১ প্লেট ৪০ টাকা 
৪। রাত্রের খাবার - রুটি ১০ টাকা পিস । ৬ পিস রুটি + তরকারী = ৮৫ টাকা 
দ্বিতীয় দিন 
১। ব্রেকফাস্ট - ছাতু / মুড়ি / চিড়ে খেয়ে নিন 
২। লাঞ্চ - আমিষ থালি  - ১৫০ টাকা / প্লেট । দুজনের - ৩০০ টাকা 
৩। সন্ধ্যের খাবার - চাউমিন খেতে পারেন । ১ প্লেট ৫০ টাকা - দুজনের হয়ে যাবে 
৪। ডিনার - একই হিসাবে মোট ৮৫ টাকা 
ফেরত আসার দিন 
১। ব্রেকফাস্ট - ছাতু / মুড়ি খেয়ে নিন 
২। ট্রেনে খাবার - মালদা স্টেশনে ট্রেন এসে অনেকক্ষণ দাঁড়ায় । ৫ টাকায় পরোটা , ১০ টাকায় দই , ৫ ৩। টাকায় মিস্টি পেয়ে যাবেন । ৫০ টাকায় দুজনের খাওয়া হয়ে যাবে । 

মোট খাবার খরচ - ৭৯০ টাকা + চা'য়ের খরচ = ৮২০ টাকা ধরা যাক । 



ফেরত আসার দিন ঃ হোটেল যদি ট্যাক্সি স্ট্যান্ডের কাছে না থাকে তাহলে একটা ট্যাক্সি করে ট্যাক্সি স্ট্যান্ডে আসতে হবে - খরচ - ৩০০ টাকা, অন্যথায় এই খরচ লাগবে না  । ট্যাক্সি স্ট্যান্ড থেকে শেয়ার ট্যাক্সি ডাইরেক্ট নিউ জলপাইগুড়ি আসবে । খরচ দুজনের মিলিয়ে - ৩৪০ টাকা । 


সর্বমোট খরচ ঃ 

যাওয়া আসা ঃ ১৩০০ + ৩৪০ + ৩৪০ = ১৯৮০ টাকা 

সাইট সিন ও টিকিটঃ ১২০০ টাকা 

হোটেল খরচঃ ১৫০০ টাকা 

খাওয়া দাওয়াঃ ৮২০ টাকা  

দুই জন মানুষের ২ রাত তিন দিনের দার্জিলিং ঘোরা , থাকা , খাওয়ার মোট খরচ  = ৫৫০০ টাকা 


** রোপওয়ে চড়লে , ৭০০ টাকা জুড়ে নেবেন - মোট ৬২৩০ টাকা 
** কেনাকাটার খরচ সম্পূর্ণ ব্যাক্তিগত ব্যাপার , তবে ৩০০০ টাকায় খুব ভালো কেনাকাটা করা যেতে পারে । বারগারিং করতে হবে । 

দার্জিলিং ঘোরার খুঁটিনাটি বিষয় , যেগুলো না জানলে আপনি ঠকে যাবেন , সেগুলোর উপর আমাদের একটি ভিডিও আছে দেখে নিন - ভীষণ উপকার পাবেন - লিঙ্ক YouTube






লেখাটি ভালো লাগলে , শেয়ার করে আমাদের উতসাহ বাড়াতে পারেন । 


[ আমরা যে হোমস্টেতে ছিলাম- রিন্সাং খাংসার হোমস্টে  ] বিস্তারিত দেখে নিন 









  
মাত্র ৫৫০০ টাকায় ২ জন ,২ রাত ৩ দিন ভালোভাবে দার্জিলিং ঘুরে আসতে পারবেন - দার্জিলিং ভ্রমণ গাইড মাত্র ৫৫০০ টাকায়  ২ জন ,২ রাত ৩ দিন ভালোভাবে দার্জিলিং ঘুরে আসতে পারবেন - দার্জিলিং ভ্রমণ গাইড Reviewed by WisdomApps on June 18, 2019 Rating: 5
Powered by Blogger.